Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ এপ্রিল, ২০১৯ ১৬:৪৬

ফরিদপুরে আওয়ামী লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ, আহত ৩০

ফরিদপুর প্রতিনিধি:

ফরিদপুরে আওয়ামী লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ, আহত ৩০

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার ভাওয়াল ইউনিয়নের ইউসুফদিয়া গ্রামে গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সকালে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

দফায় দফায় এ সংঘর্ষে কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের নগরকান্দা ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ ১০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ১১টি টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করায় সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে।

স্থানীয় থানা সূত্রে জানা গেছে, গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ইউসুফদিয়া গ্রামে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ওয়াহিদুজ্জামানের সমর্থক আনো মোল্লার সাথে সোমবার সকাল ৮টার দিকে একই গ্রামের এনায়েত হোসেনের সমর্থক শিপন মোল্লার সাথে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এরই সূত্র ধরে উভয় পক্ষের কয়েক হাজার সমর্থক ঢাল-কাতরা, সড়কি-ভেলা, রামদাসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। তিন ঘণ্টাব্যাপী দফায় দফায় এ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়।

এদের মধ্যে গুরুতর আহতরা হলেন, আনো মোল্লা, আক্কাস, আলমগীর মোল্লা, সিরাজুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, পলাশ, শিপন, নুর আলম, সুমন, রাকিবসহ কয়েকজনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সালথা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ওয়াহিদুজ্জামান জানান, এনায়েত হোসেনের সমর্থকরা আমার এক কর্মীকে মারপিট করে আহত করে। এ ঘটনার সূত্র ধরেই উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

বিএনপি নেতা এনায়েত হোসেন জানান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান একসময় বিএনপি করতো। বিএনপির প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হবার পর আওয়ামী লীগে যোগ দেয়। এরপর থেকেই তার সমর্থকরা আমার কর্মীদের বিভিন্ন সময় হামলা চালিয়ে আহত করে। আমার সমর্থকদের বেশ কিছু বাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। সোমবার সকালে আমার এক সমর্থককে পিটিয়ে আহত করে ওয়াহিদুজ্জামানের লোকজন।

সালথা থানার ওসি মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রাবার বুলেট ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। যারা সংঘর্ষের সাথে লিপ্ত ছিল তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য