শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ আগস্ট, ২০২০ ১৪:১৯
প্রিন্ট করুন printer

মুজিববর্ষ উপলক্ষে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের চারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

মুজিববর্ষ উপলক্ষে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের চারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন
Google News

জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সারা দেশে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ১০ লাখ গাছের চারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় বরিশাল সদর উপজেলার শায়েস্তাবাদ ইউনিয়নের চরআইচা গ্রামে সড়কের পাশে একটি চারা রোপনের মধ্য দিয়ে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম। 

বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধন উপলক্ষে চরআইচা গ্রামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম। 

পানি উন্নয়ন বোর্ড দক্ষিণাঞ্চল জোনের প্রধান প্রকৌশলী মো. হারুন-অর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহমুদুল ইসলাম ও মহাপরিচালক এ এম আমিনুল হক ও জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান। এছাড়া স্থানীয় নেতৃবৃন্দ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। 

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে প্রতিমন্ত্রী সড়কের পাশে একটি আম গাছের চারা রোপনের মধ্য দিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে সারা দেশে ১ কোটি গাছের চারা রোপনের কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবিলায় দেশের ২৫ ভাগ এলাকায় বনায়ন ও সবুজ বেষ্টনী গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর অংশ হিসেবে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সারা দেশে ১০ লাখ গাছের চারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। ২ হাজার ৫০০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যে এই গাছের চারা রোপন করা হচ্ছে। 

এদিকে, দেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি আগের চেয়ে অনেক উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, উজানের দেশে এবার প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। সেই পানি বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে বঙ্গোপসাগরে নেমে যাচ্ছে। আগামীতে বন্যার কবল থেকে মানুষের জানমাল রক্ষায় দেশের ৬৪ জেলায় ১ হাজার খাল খনন করা হচ্ছে। খাল খনন কর্মসূচির ৭০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। খনন কাজ শেষ হলে খালে পানি ধারণ ক্ষমতা বাড়বে। তখন বন্যায় মানুষের জানমালের আর তেমন ক্ষতি হবে না।

পরে প্রতিমন্ত্রী বরিশাল সদর উপজেলার বেলতলা, লামছরি ও চরকাউয়া এলাকায় কীর্তনখোলা নদীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় নদী ভাঙনরোধে দ্রুত সময়ের মধ্যে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন প্রতিমন্ত্রী। ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শনকালে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ও পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তারা ছাড়াও মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদুল হক খান মামুনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর