শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:৫১
প্রিন্ট করুন printer

পাবনায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, আহত ৩

অনলাইন ডেস্ক

পাবনায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, আহত ৩

পাবনার সদর উপজেলায় দুবলিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ৩ জন। 

শুক্রবার সকালে পাবনা- সুজানগর সড়কের দুবলিয়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুবলিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ শফিউল আলম জানান, এদিন সকালে পাবনা থেকে সুজানগর অভিমুখে যাওয়া কয়লা ভর্তি একটি ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুবলিয়া বাজার এলাকায় সুজানগর থেকে পাবনাগামী সিএনজিকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলে সিএনজির যাত্রী ঝন্টু কুন্ডু (৬০) মারা যায়। দুর্ঘটনায় সিএনজির চালক সহ আরো ৩ যাত্রী আহত হয়। আহতদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরিফা খাতুন নামে আরো একজনের মৃত্যু হয়।

বিডি-প্রতিদিন/ সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৩:০৪
প্রিন্ট করুন printer

কসবায় প্রাইভেটকার চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

কসবায় প্রাইভেটকার চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
প্রতীকী ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় প্রাইভেটকার চাপায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছে। বুধবার রাতে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের কসবার খাড়েরা ইউনিয়নের গুলাসার এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। 

নিহত বিল্লাল (২১) নামের ওই এলাকার দুলাল মিয়ার ছেলে। এসময় সজিব (১৯) নামের আরেক আরোহী গুরুতর আহত হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বিল্লাল মোটরসাইকেল যোগে তার বন্ধু সজিবকে নিয়ে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। এসময় একটি দ্রুতগামী প্রাইভেটকার মোটর সাইকেলটিকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই বিল্লাল নিহত হয়। গুরুতর আহত সজিবকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মনবাড়িয়া সদর  হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়।

বিশ্বরোড খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে প্রাইভেটকারটি আটক করা সম্ভব হয়নি।

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:৫৩
প্রিন্ট করুন printer

টেকনাফে পুলিশি অভিযানে মানব পাচারকারী দালাল গ্রেফতার

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

টেকনাফে পুলিশি অভিযানে মানব পাচারকারী দালাল গ্রেফতার
সাইফুল ইসলাম

কক্সবাজারের টেকনাফের বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ সদস্যরা অভিযান চালিয়ে মানব পাচার মামলার আসামি ও চিহ্নিত মানব পাচারকারী এক দালাল সাইফুল ইসলাম (২৬)-কে গ্রেফতার  করেছে। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) ভোরে টেকনাফ বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ নুর মোহাম্মদ সর্ঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে বাহারছড়া নোয়াখালী জুম্মাপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করে। 

পুলিশ জানায়, গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ১০৯ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুদের প্রলোভন দেখিয়ে ৩টি ইঞ্জিন চালিত নৌকাযোগে মালয়েশিয়া পাঠানোর সময় সেন্টমার্টিন ছেঁড়াদ্বীপের ১০ নটিক্যাল মাইল দূরে ট্রলার ডুবির ঘটনায় ১৯ জনের করুণ মৃত্যু ঘটে। অন্যরা কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সহায়তায় প্রাণে রক্ষা পায়। উদ্ধারকৃত ভিকটিমেরা গ্রেফতার এই দালালের নাম উল্লেখ করায় তার বিরুদ্ধে টেকনাফ মডেল থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন ৭/৮ ধারার মামলা দায়ের করা হয়।

বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ নুর মোহাম্মদ জানান, দীর্ঘদিন সে পলাতক ছিল। গ্রেফতারের দিন রাতেও সে মালয়েশিয়ায় পাচারের জন্য লোকজন জড়ো করার সংবাদ পেয়ে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মানব পাচারকারী এই চিহ্নিত দালালকে কক্সবাজার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:২৬
প্রিন্ট করুন printer

ফেনীর সেই ফুড প্রোডাক্ট কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

অনলাইন ডেস্ক

ফেনীর সেই ফুড প্রোডাক্ট কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে
প্রতীকী ছবি

ফেনীর কাশেমপুরে একটি ফুড প্রোডাক্টের কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। আগুন নিয়ন্ত্রনে কাজ করে ফায়ার সার্ভিসের ৯টি ইউনিট। গতকাল বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টায় আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হয়। আগুনে নুডুলস, সেমাই ও বিস্কুট ফ্যাক্টরী পুরোপুরি পুড়ে গেছে। পরবর্তিতে গোডাউনেও আগুন লেগে যায়। এই কারখানায় পড়ায় ১৫০০ শ্রমিক কর্মরত আছেন।

ফেনীর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সহকারী উপ-পরিচালক পূর্ণচন্দ্র মৎসুদ্দী জানান, আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় এর ভয়াবহতা দেখে আশপাশের জেলার ষ্টেশন থেকে আরও ৫টি ইউনিটসহ মোট ৯টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার কাজ শুরু করে। ফেনীর ৫ উপজেলার ফায়ার সার্ভিস ও নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জ, চৌমুহনী, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম ষ্টেশনসহ মোট ৯টি ইউনিট ৬ ঘন্টা চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। 

তিনি আরও জানান, আগুনের সূত্রপাত এখনো জানা যায়নি। তবে প্রাথমিক ধারণা হচ্ছে কারখানার অভ্যন্তরের কার্টুন সেড থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। এ ঘটনায় কোন প্রাণহানির খবর পাওয়া যায়নি। তবে এতে ৩০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি মালিক পক্ষের। 

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:১০
প্রিন্ট করুন printer

টেকনাফে রাখাইন সম্প্রদায়ের বেদখল বৌদ্ধবিহার নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আদিবাসী ফোরামের মতবিনিময়

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

টেকনাফে রাখাইন সম্প্রদায়ের বেদখল বৌদ্ধবিহার নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আদিবাসী ফোরামের মতবিনিময়

ঢাকার নাগরিক ও মানবাধিকারকর্মীদের একটি প্রতিনিধিদল টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের উত্তর পাড়ায় ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী রাখাইন সম্প্রদায়ের ৩০০ বছরের পুরনো বৌদ্ধবিহার পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছে।

বুধবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের আয়োজনে কক্সবাজার প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. রোবায়েত ফেরদৌস, সামাজিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ, নাগরিক উদ্যোগের নির্বাহী পরিচালক জাকির হোসেন, নারী প্রগতি সংঘের উপ-পরিচালক মুজিব মেহদী, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও আদিবাসী ফোরামের নেতা-কর্মীরা।

এ সময় উপস্থিত প্রতিনিধিদল হ্নীলার ওই বিহার পরিদর্শন শেষে উদ্বেগ প্রকাশ করে জানায়, টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের উত্তর পাড়ায় ছিল ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী রাখাইন সম্প্রদায়ের ৩০০ বছরের পুরনো একটি বৌদ্ধবিহার। সাত বছর আগে বিহারের জমি দখল শুরু করে। অবৈধ বসতি গড়ে ওঠার পর একাধিকবার ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে বিহারে। বর্তমানে এটি আর ব্যবহৃত হচ্ছে না।

স্থানীয় চেয়ারম্যানের প্রশ্রয়ে বিহারের জমি দখল করে তৈরি হয়েছে ৪০টির বেশি বসতি।

এ সময় কক্সবাজার প্রেসক্লাবে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. রোবায়েত ফেরদৌস জানান, কয়েক দফায় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বৌদ্ধবিহার নিয়ে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান ও জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

বিহারটি রক্ষায় তারা চার দফা প্রস্তাবনা পেশ করেন। এই চার দফা হল দ্রুত অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ, রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের কাছে বিহার ভূমির দখল বুঝিয়ে দেওয়া, ধ্বংসপ্রাপ্ত বিহার পুনঃস্থাপন এবং রাখাইন সম্প্রদায়ের মানুষের নির্ভয়ে বিহারে যাতায়াত নিশ্চিত করা।

‘আদালতের নির্দেশনা থাকার পরও অবৈধ দখলদারদের খপ্পর থেকে ৩০০ বছরের পুরোনো বৌদ্ধবিহারের ভূমি উদ্ধার করা যাচ্ছে না। আমরা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে এ বিষয়ে পৃথক বৈঠক করেছি। দু’জনই আশ্বাস দিয়েছেন।’

২০০১ সালে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের সেন প্রু ক্যাং নামে পরিচিত রাখাইন সম্প্রদায়ের বৌদ্ধবিহারটির তৎকালীন ভিক্ষু উ পঞা বংশ মহাথেরোর সঙ্গে একটি চুক্তি সম্পাদন করেন কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনের সাবেক সাংসদ মরহুম মোহাম্মদ আলী। বিহারের ১১ একর ভূমির ওপর রোপণকৃত বৃক্ষের লাভের অংশ ভাগ করার উদ্দেশ্যে চুক্তিটি করা হয়েছিল। চুক্তিতে উল্লেখ না থাকা সত্ত্বেও প্রভাবশালী মহল গাছ কাটা শুরু করে। পাশাপাশি বিহারের ভূমি দখল করে গড়ে তোলা হয় বসতঘর।

বৌদ্ধবিহার রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব ও আদিবাসী ফোরাম কক্সবাজার জেলা কমিটির সহসভাপতি ক্যা জ অং বলেন, বর্তমানে বিহারের জমিতে ৪০টির বেশি অবৈধ বসতি রয়েছে। এগুলো উচ্ছেদ করে বিহারের ভূমিটি পরিচালনা কমিটির কাছে হস্তান্তরের নির্দেশনা থাকলেও বিগত সাত বছরে কালক্ষেপণ করা হচ্ছে। ফলে রাখাইন সম্প্রদায়ের লোকজন ধর্মকর্ম করতে পারছেন না।

মতবিনিময় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবু তাহের চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক এড. আয়াছুর রহমানসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদকর্মীরা।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:৫৮
প্রিন্ট করুন printer

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে ফেরি চলাচল শুরু

অনলাইন ডেস্ক

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে ফেরি চলাচল শুরু
ফাইল ছবি

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে ঘন কুয়াশার কারণে তিন ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার পর থেকে ফেরি পারাপার শুরু হয়েছে।

শিমুলিয়া ঘাটের বিআইডাব্লিউটিসি'র ব্যবস্থাপক সাফায়েত আহমেদ জানান, ঘন কুয়াশায় দুর্ঘটনা এড়াতে সকাল সাড়ে ৫টা থেকে উভয় ঘাট থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখে ঘাট কর্তৃপক্ষ। এ সময় চলাচলরত দুইটি ফেরি পদ্মা নদীর বিভিন্ন স্থানে যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে আটকা পড়ে। ঘন কুয়াশা থাকায় ফেরিগুলো মাঝ পদ্মায় নোঙর করে রাখা হয়। সকাল সাড়ে ৮ টার পরে কুয়াশার মাত্রা কমে এলে দুইঘাট থেকে ফেরি চলাচল শুরু করে। 

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর