শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ মার্চ, ২০২১ ১৬:৩১
প্রিন্ট করুন printer

চ্যানেল টোয়েন্টিফোর'র প্রতিবেদন

টেকনাফে ভোটে লড়তে জেল ফেরত ইয়াবা কারবারিদের গণসংযোগ!

অনলাইন ডেস্ক

টেকনাফে ভোটে লড়তে জেল ফেরত ইয়াবা কারবারিদের গণসংযোগ!

কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফ এখন আলোচনায় জেল ফেরত ইয়াবা কারবারিদের নির্বাচনি গণসংযোগ নিয়ে। যারা আসন্ন পৌরসভা আর ইউপি নির্বাচনে লড়তে তারা চালাচ্ছেন প্রচারণা। তবে তাদের বয়কট ঘোষণা, সাধারণ মানুষের। সুশীল সমাজ বলছে, ইয়াবা কারবারিরা জনপ্রতিনিধি হলে অসম্ভব হবে মাদক রোধ।

গাড়ি বহর নিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা নেয়া শাহাজান মিয়া। তিনি টেকনাফ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। ইয়াবা ও অস্ত্র মামলায় সম্প্রতি জামিনে বের হয়ে ঘোষণা দিয়েছেন আবারো নির্বাচন করার।

তার মত ইয়াবা কারবারিদের আরেকজন জিয়াউর রহমান। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আত্মসমর্পণকারী জিয়াউরও জামিনে মুক্তি পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির মনোনয়ন চেয়ে চালাচ্ছেন প্রচারণা। আর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান ইয়াবা মামলায় কারামুক্ত হাম জালাল।

সাবেক এমপি বদির ভাই আত্মসমর্পণকারী আব্দুস শুক্কুরও প্রচারণায় ব্যস্ত পৌরভোটে প্রার্থী হতে। তার মত কারামুক্ত টেকনাফের এনামুল হকও ইউপি সদস্য প্রার্থী হতে আগ্রহী।

সবমিলে টেকনাফের এক পৌরসভা এবং ছয় ইউনিয়নে প্রার্থী হতে সরব এমন ৭৭ জন ইয়াবা কারবারি। যদিও এদের কারো কারো দাবি, তাদের বিরুদ্ধে সব মামলায় ষড়যন্ত্রমূলক। 

টেকনাফের প্রায় সবকটি ইউনিয়নে এমন অনেকেই জনপ্রতিনিধি হতে চান, যারা ইয়াবা কারবারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত। যদিও তাদের বয়কট করার ঘোষণা সাধারণ জনগণের।

ইয়াবা কারবারিদের নির্বাচনে প্রার্থী হতে চাওয়াকে অশনি সংকেত বলছেন নাগরিক সমাজ। পুলিশ বলছে, জেল ফেরত মাদক কারবারিদের ওপর নজরদারি আছে। তবে তাদের বয়কট করতে দরকার সামাজিক আন্দোলন।

দেশের আলোচিত উপজেলা টেকনাফের পাঁচ ইউনিয়নে ভোট হবে আগামী ১১ এপ্রিল। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষদিন ১৮ মার্চ।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর