শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ মার্চ, ২০২১ ১২:৩২
প্রিন্ট করুন printer

কুষ্টিয়ায় ৭ মার্চের আলোচনা সভায় দুই নেতার হাতাহাতি

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ায় ৭ মার্চের আলোচনা সভায় দুই নেতার হাতাহাতি

কুষ্টিয়ায় জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে ৭ মার্চের আলোচনা সভায় দুই নেতার মধ্যে হাতাহাতি ও বাকবিতণ্ডা হয়েছে। আলোচনা সভাকালে দুইবার এমন ঘটনায় নেতা-কর্মীরা হতবাক হয়ে যান। এ সময় সিনিয়র নেতারা দুই নেতার মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

দলীয় নেতা-কর্মীরা জানান, ৭ মার্চ উপলক্ষে বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগ এনএস রোডের দলীয় অফিসে আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনা সভা চলাকালে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক খন্দকার ইকবাল মাহমুদ বক্তব্য দিতে উঠলে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শেখ মেহেদী হাসান তাকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে কথা বলেন। এ সময় রেগে গিয়ে এর প্রতিবাদ করেন ইকবাল মাহমুদ। এ সময় দুই নেতার মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ২ থেকে ৩ মিনিট ধরে চলে এ অবস্থা।

এ পরিস্থিতিতে দলের সিনিয়র নেতারা হস্তক্ষেপ করেন। আলোচনা সভার সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজর্গ আলীসহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

পরে আলোচনা সভা শেষে মঞ্চ থেকে নামার সময় দুই নেতা আবার জড়িয়ে পড়েন বাকবিতণ্ডায়। এ সময় একে অন্যর দিকে তেড়ে যায় দুই নেতা। ফের উত্তপ্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি শান্ত করেন নেতারা।

ঘটনা নিয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ নেতা ইকবাল মাহমুদ বলেন, আমার বক্তব্য চলাকালে শেখ মেহেদী হাসান একটি খারাপ কথা বললে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে। একজন জুনিয়র ছেলে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে কটু কথা বলে। এত সাহস সে কোথায় পায়?

শেখ মেহেদী হাসান বলেন, সিনিয়রদের বক্তব্য দেয়া নিয়ে একটু উত্তেজনা ও ঝামেলা হয়। পরে সব ঠিক হয়ে গেছে। খুব সুন্দর অনুষ্ঠান হয়েছে। ভাই, কোন সমস্যা হয়নি।

এদিকে দ্বিতীয়বার উত্তেজনা তৈরি হলে কুষ্টিয়া মডেল থানা থেকে পুলিশের টিম যায়। তারা অফিসের বাইরে অবস্থান নেন। 

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান বলেন, অনুষ্ঠানে একটু আধটু সমস্যা হয়েছিল। সব ঠিক হয়ে গেছে।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর