শিরোনাম
প্রকাশ : ২৯ জুলাই, ২০২১ ২০:৪৩
প্রিন্ট করুন printer

ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনে রেলের আয় সাড়ে ৮ লাখ টাকা

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনে রেলের আয় সাড়ে ৮ লাখ টাকা
Google News

আমের মৌসুম প্রায় শেষ হয়ে যাওয়া গত ১৬ জুলাই থেকে ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে দেড় মাসে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে এই ট্রেনে আম পরিবহন করে রেলওয়ের আয় হয়েছে ৮ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪০ টাকা। 

জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতিতে কৃষকদের উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্য সহজে ও কম খরচে বহন করার জন্য সরকারের নির্দেশনায় গত ২৭ মে বাংলাদেশ রেলওয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহী থেকে ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন চালু করে। 

ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনের মাধ্যমে গত ২৭ মে থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত ৬ লাখ ৫৫ হাজার ২৯৫ কেজি আম বহন করা হয়। যেখান থেকে রেলের আয় হয়েছে ৮ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪০ টাকা। 

ট্রেনটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ স্টেশন থেকে ছেড়ে আমনুরা বাইপাস, রহনপুর, নাচোল, কাকনহাট, রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন, আড়ানী, লোকমানপুর, আব্দুলপুর ও আজিমনগর স্টেশন থেকে আম নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হতো ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন। এতে পরিবহন খরচ কম হওয়ায় তুলনামূলক কম দামে আম ঢাকায় বিক্রি করা সম্ভব হয়েছে। 

ব্যবসায়ীরা বলছেন, কম খরচে এবং সময়মতো রেলে আম পরিবহনের সুযোগ পেয়ে বেশ লাভবান হয়েছেন তারা। বিশেষ করে ট্রেনে যত্ন সহকারে আম ওঠানোর ফলে নষ্টও হয়নি তেমন। ফলে সড়ক পথের চেয়ে রেলপথে পণ্য পরিবহনে তুলনামূলকভাবে নিরাপদ। 

আব্দুল আহাদ নামে এক ব্যবসায়ী জানান, ট্রেনে ঢাকায় এক কেজি আম পাঠাতে এক টাকা ৩০ পায়সা খরচ হয়েছে। আর কুরিয়ার সার্ভিসে কেজি প্রতি ১২ টাকা লাগে। সে তুলনায় ট্রেনে স্বল্প খরচে পরিবহনের এমন সুযোগ পাওয়ায় খুশি আম ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি ব্যক্তি পর্যায়ে কম খরচে মালবাহী ট্রেনে আম পাঠানো ব্যক্তিরাও খুশি। 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মো. ওবাইদুল্লাহ জানান, চলতি আম মৌসুমে ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেনে বাংলাদেশ রেলওয়ে যে সেবা দিয়েছে তাতে ব্যবসায়ী ও ব্যক্তি পর্যায়ে ব্যক্তিরাও সন্তুষ্ট। গত বছরের তুলনায় এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অধিক পরিমাণে আম বহন করে রেলওয়ে। এতে করে গত ২৭ মে থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত ৬ লাখ ৫৫ হাজার ২৯৫ কেজি আম বহন করে আয় হয়েছে ৮ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪০ টাকা। 

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন

এই বিভাগের আরও খবর