৩ আগস্ট, ২০২১ ১৭:১০

নওগাঁয় সৌন্দর্যের শোভা ছড়াচ্ছে সারি সারি তাল গাছ

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

নওগাঁয় সৌন্দর্যের শোভা ছড়াচ্ছে সারি সারি তাল গাছ

নওগাঁয় সৌন্দর্যের শোভা ছড়াচ্ছে সারি সারি তাল গাছ।

সৌন্দর্যের শোভা ছড়াচ্ছে সারি সারি তাল গাছ। নওগাঁর মহাদেবপুরের পল্লীতে ৩ কিলোমিটার জুড়ে প্রায় ৫ হাজার তাল গাছ পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি পরিণত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন এক বিনোদন কেন্দ্রে। নির্মল বাতাস আর বিপুল এ তাল সাম্রাজ্যের সৌন্দর্য উপভোগ করতে দূর-দূরান্ত থেকে আসছেন বিনোদন প্রেমী মানুষ।

স্থানীয়রা বলছেন, ৩০ বছর আগে রোপণ করা এসব তাল গাছ বজ্রপাত রোধেও রাখছে ব্যাপক ভূমিকা। প্রান্তিক পর্যায়ের এ তাল বাগান রক্ষাসহ অবকাঠামো উন্নয়নের আশ্বাস উপজেলা প্রশাসনের। শ্রাবনের ভরা মৌসুমে বরেন্দ্র অঞ্চলের মাঠগুলো টইটম্বুর পানিতে। সে পানিতে প্রস্তুতি চলছে রোপা আউশ আবাদের। বিস্তৃত মাঠের মাঝ দিয়ে বয়ে চলেছে আঁকাবাকাঁ সড়ক। আশেপাশের অন্তত ২০ গ্রামের সংযোগ সড়কটি স্বাধীনতার পর স্থানীয় বাসিন্দারা তৈরি করেন।

প্রথম দিকে সড়কটি গ্রামের মানুষের জন্য ছিল মেঠো পথ। তবে গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের আওতায় সম্প্রতি পাকা করা হয়েছে সড়কটি। নওগাঁর মহাদেবপুরের খাঁজুর ইউনিয়নের কয়ারপাড়ার ১২ কিলোমিটারের এ সংযোগ সড়কের ৩ কিলোমিটার জুড়ে রয়েছে সারি সারি তাল গাছ।

সড়কের দুই পাশে নিবির তাল গাছগুলোকে সাদা চুনকাম করায় দূর থেকে দেখলে ফুটে উঠে গ্রামীণ আবহের এক অনন্য চিত্র। চারপাশে বিস্তৃত সবুজ মাঠের গ্রামীণ  নির্মল পরিবেশ আর মুক্ত বাতাস এক ভিন্ন আবহের শোভা ছড়াচ্ছে।

আজ থেকে প্রায় ৩০ বছর আগে গ্রামীণ এ মেঠো পথ নিয়ে স্বপ্ন বুনেছিলেন স্থানীয় কয়ারপাড়া গ্রামের বৃক্ষ প্রেমিক খিতিশ চন্দ্র। নিজ উদ্যোগে বিভিন্ন জায়গা থেকে তাল বীজ সংগ্রহ করে সড়কের দুই পাশে রোপণ করেন তিনি। সময়ের ব্যবধানে এসব তাল গাছ বজ্রপাত রোধে যেমন রাখছে অবদান অন্যদিকে সৌন্দর্যের শোভা ছড়াচ্ছে বিনোদন প্রিয় মানুষের কাছে। জেলা শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরের এ তাল সাম্রাজ্য পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি সড়কের দুই পাশের এ সৌন্দর্য আকৃষ্ট করছে দর্শনার্থীদের।

প্রয়াত খিতিশের ছেলে তপন মন্ডল জানান, তার বাবা কোনো স্বার্থ নিয়ে এসব গাছ রোপণ করেনি। পরিবেশের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসায় রোপণ করেছিলেন এসব তাল বীজ। জীবিত অবস্থায় তার এ তাল বাগানের মূল্যায়ন করতে না পারলেও মহত এ কাজের জন্য স্বজন ও এলাকাবাসী গর্বিত।

স্থানীয় প্রবীণ শিক্ষক আশরাফ আলী, বলরাম চন্দ্র বর্মন জানান, জীবিত অবস্থায় আমরা খিতিশের মূল্যায়ন করতে পারিনি। কিন্তু আজ খুব ভাল লাগছে তার কাজের মূল্যায়ন হচ্ছে দেখে। করোনা ও লকডাউনের মাঝেও সকাল বিকাল দূর-দূরান্ত থেকে তাল বাগানের দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ দেখতে আসছে নানা বয়সী মানুষ। নির্মল প্রকৃতির নির্যাস নিতে ক্ষণিক সময় পার করেন আগত দর্শনার্থীরা। তাল সাম্রাজ্যের এ সৌন্দর্য ধরে রাখতে বাড়তি কিছু অবকাঠামো গড়ে তোলার দাবি তাদের। এ তাল বাগানকে সংরক্ষণ ও পরিবেশের ভূমিকা তুলে ধরে স্থানীয়ভাবে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কাজ করছে।

সংগঠনের প্রধান প্রকৌশলী ফয়সাল হোসেন বলেন, আজ আমরা তাল বাগানের জন্য যেমন পুলকিত। সেই সাথে এ তাল বাগানের স্রষ্টা খিতিশের চেতনা নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরতে চাই। 

খাজুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এড়াতে প্রয়াত খিতিশের মতো আরো বেশি তাল বাগান গড়ে তুলতে কাজ করবেন। আর তাল বাগানের দৃষ্টিনন্দন এ পরিবেশ রক্ষায় সার্বিক সহযোগিতা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর