২২ অক্টোবর, ২০২১ ১৬:১৩

নীলফামারীর ১১ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগে বিদ্রোহীর ছড়াছড়ি

নীলফামারী প্রতিনিধি

নীলফামারীর ১১ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগে বিদ্রোহীর ছড়াছড়ি

নীলফামারী সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ নভেম্বর। ওই ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে দুইটিতে আওয়ামী লীগ দলীয় একক প্রার্থী দিতে পারলেও নয়টি ইউনিয়নে বিদ্রোহীর ছড়াছড়ি। তবে এসব প্রার্থী নিজেদের স্বতন্ত্র বলে দাবি করছেন। এতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন নৌকার প্রার্থীরা। আর কৌশলে বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থীরা স্বতন্ত্র নির্বাচন করছেন। এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জামায়াত ও বিএনপি দলীয় কোনো প্রার্থী না দিলেও কৌশলে তাদের নেতারা স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন। উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থীদের নিজ দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে। 

দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনী ওই তফসীল মোতাবেক ১৭ অক্টোবর রবিবার ছিল মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন। ওইদিন ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে চওড়াবড়গাছা ইউনিয়নে ৭জন,গোড়গ্রাম ইউনিয়নে ১০জন, পলাশবাড়ি ইউনিয়নে ৫ জন, রামনগর ইউনিয়নে ২ জন, কচুকাটা ইউনিয়নে ৪ জন, পঞ্চপুকুর ইউনিয়নে ৯ জন, সোনারায় ইউনিয়নে ৭ জন, সংগলশী ইউনিয়নে ৫ জন, চাপড়াসরমজানী ইউনিয়নে ৮ জন, লক্ষ্মীচাপ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩ জনসহ মোট ৬ ৮জন মনোনয়ন জমা করেছেন। এসব ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়নে আওয়ামী লীগের ১১ জন, ওয়াকার্স পাটির ১ জন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ৫জন মনোনয়ন জমা করেছেন। 

ওয়ার্কাস পাটি এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। তবে আওয়ামী লীগের রামনগর এবং পলাশবাড়ী ইউনিয়ন বাদে নয়টিতেই রয়েছেন একাধিক বিদ্রোহী।

দলীয় সূত্র জানায়, চওড়াবড়গাছা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোয়ন পেয়েছেন প্রদীপ কুমার রায়, গোড়গ্রাম ইউনিয়নে মাহবুব জর্জ, রামনগর ইউনিয়নে মিজানুর রহমান, কচুকাটা ইউনিয়নে তছলিম উদ্দিন, পঞ্চপুকুর ইউনিয়নে নূরুল আমীন সরকার, সোনারায় ইউনিয়নে আবদুল মজিদ, চড়াইখোলা ইউনিয়নে মাহফুজার রহমান শাহ, চাপড়াসরমজানী ইউনিয়নে কামরুজ্জামান স্বপন, লক্ষ্মীচাপ ইউনিয়নে গোলাম মোস্তফা, পলাশবাড়ী ইউনিয়নে মমতাজ আলী প্রামানিক, সংগলশী ইউনিয়নে  কাজী মোস্তাফিজার রহমান।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর