১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৯:১০

নোয়াখালীতে আশ্রয়ণের ঘর নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে আশ্রয়ণের ঘর নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

নোয়াখালী সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নে আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতাধীন ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে নিম্নমানের ইট, বালুসহ যাবতীয় মালামাল ব্যবহারের অভিযোগ ওঠেছে।

এদিকে-আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় ঘর নির্মাণে ব্যবহৃত নিম্নমানের মালামাল ফেরতসহ সংশ্লিষ্ট কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঠিকাদারকে অব্যাহতি প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নিজাম উদ্দিন আহমেদ। ওই ঘরগুলোতে নিম্নমানের মালামাল ব্যবহারের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে টনক নড়ে প্রশাসনের।

সকালে উপজেলার চর দরবেশ গ্রামের ওই আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় ঘর নির্মাণে ব্যবহৃত নিম্নমানের মালামাল ফেরতসহ সংশ্লিষ্ট কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঠিকাদারকে অব্যাহতি প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নিজাম উদ্দিন আহমেদ। 

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের চর দরবেশ গ্রামে ২ একর ৪৬ শতাংশ সরকারি খাস জমিতে প্রতিটি ঘরের সামনে ১০ ফুট, পাশে ৬ ফুট ও পেছনে ৮ ফুট জায়গা রেখে  ৮০টি ঘর নির্মাণের কাজ হাতে নেওয়া হয়। প্রতিটি ঘর নির্মাণের জন্য বরাদ্দ করা হয় ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা। গত আগস্ট মাসে সরকারি ওই খাস জমির মাটি ভরাট শেষে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে ঘরগুলো নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়। উপজেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধায়নে ঘরগুলোর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করতে নির্মাণ সামগ্রী সরবরাহের দায়িত্ব দেয়া হয় হাজী নিজাম উদ্দিন নামের এক ঠিকাদারকে। ২০২৩ সালের জানুয়ারীর মধ্যে ঘরগুলোর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর প্রত্যেকটি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য আর্শিবাদ স্বরুপ। কিন্তু মাঠ পর্যায়ে সেই ঘরগুলো নির্মাণে নিম্নমানের মালামাল ব্যবহারসহ নানা অনিয়ম করা হচ্ছে। এখানে জমিতে মাটি ভরাটের সাথে সাথে কাঁদা মাটির ওপর গত সপ্তাহ থেকে ঘরগুলো নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। ঘরগুলোতে যে ইট ও বালু ব্যবহার করা হচ্ছে তা অত্যন্ত নিম্নমানের। ঢালাই ছাড়াই কাঁদা মাটির  মধ্যে ঘরের ওয়ালগুলো তোলা হচ্ছে। ঠিকাদার হাজী নিজাম উদ্দিন নিম্নমানের ইট-বালু ব্যবহারে নিষেধ করা হলেও তিনি তা মানেননি। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। পরে নিম্নমানের ইট-বালুর ভিডিও করে ফেসবুকে আপলোড করলে তা মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. জহিরুল ইসলাম জানান, ওই ৮০টি ঘর নির্মাণের কাজ আমরাই তদারকি করছি। শুধু মাত্র মালামাল সরবরাহ করার জন্য হাজী নিজাম উদ্দিন নামের এক ব্যক্তিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। গত কয়েকদিন বৃষ্টি হওয়ার সুযোগে হাজী নিজাম উদ্দিন কথা মতো ভালো মালামাল সরবরাহ না করে নিম্নমানের ইট-বালু সরবরাহ করে কাজ শুরু করেন। বিষয়টি দুঃখজনক। বিষয়টি আমরা জানার সঙ্গে সঙ্গে তাকে মালামাল সরবরাহের দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে নিম্নমানের ইট-বালু ব্যবহারের বিষয়টি আমাদের নজরে আসায় আজ সরেজমিনে পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় নিম্নমানের সকল মালামাল ফেরত দিয়ে মালামাল সরবরাহকারীকে এই কাজ থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে। এখন সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী মানসম্মতভাবে আমরা নিজেরাই ঘরগুলো তৈরী করবো।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর