শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ এপ্রিল, ২০১৯ ২১:৩৫

তিন উৎসবে শাকিবের ছবি

আলাউদ্দীন মাজিদ

তিন উৎসবে শাকিবের ছবি

উৎসবের ছবি মানেই শীর্ষনায়ক শাকিব খান। নব্বই দশকের শেষভাগ থেকে ঢাকাই সিনেমায় এটিই নিয়মে পরিণত হয়েছে। শাকিবের ছবি ছাড়া উৎসব যেন জমেই না। প্রদর্শক এবং দর্শক, উভয়ে উৎসবে শাকিবের ছবির জন্য মুখিয়ে থাকেন। প্রতি ঈদে এই নায়কের একাধিক ছবি মুক্তি পায় এবং কাক্সিক্ষত ব্যবসা করে। এ বছরও এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না। আসন্ন বাংলা নববর্ষে মুক্তি পাবে শাকিব অভিনীত ‘শাহেনশাহ’ ছবিটি। এরপর রমজানের  ঈদে মুক্তি পাবে শাকিব খান প্রযোজিত ‘পাসওয়ার্ড’। সবশেষে ঈদুল আজহায় মুক্তি পাবে শাকিব প্রযোজিত আরেকটি ছবি ‘ফাইটার’। রমজানের ঈদে মুক্তির লক্ষ্যে শাকিব খান প্রযোজিত ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটির নির্মাণ কাজ খুব জোরেশোরেই এগোচ্ছে। শাকিবের কথায়, ‘ছবিটি নির্মাণে যেভাবে মেধা আর শ্রম ব্যয় করছে পুরো টিম তাতে আন্তর্জাতিক বাজারের জন্য নির্মিতব্য এই ছবিটি দেখে দেশ-বিদেশের দর্শক বলবে, ওয়াও, বাংলাদেশেও এমন মানসম্মত অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ছবি নির্মাণ সম্ভব? ছবিটি দেখে বিশ্বের দর্শক অনুধাবন করতে পারবে বাংলাদেশ এখন ছবি নির্মাণের ক্ষেত্রে কতটা উচ্চতায় পৌঁছে গেছে। এ ছবিতে দেশ-বিদেশের সেরা টেকনিশিয়ানরা কাজ করছেন। গল্পের ধারা একেবারেই ব্যতিক্রম। সব মিলিয়ে নিশ্চিত করে বলতে পারি বাংলাদেশে এ ধরনের ছবি এটিই প্রথম। ছবিটি হিন্দি, ইংরেজি ও বাংলা- এই তিন ভাষায় নির্মাণ হচ্ছে।’ শাকিব বলেন, চলতি বছর আরও কমপক্ষে তিনটি ছবির নির্মাণ কাজ শুরু করব। এসবের মধ্যে ঈদুল আজহার জন্য নির্মাণ করা হবে ‘ফাইটার’ ছবিটি। এটি পরিচালনা করবেন বদিউল আলম খোকন। এছাড়া পোড়ামন টু ও দহন খ্যাত নির্মাতা রায়হান রাফি শাকিবের প্রযোজনায় নির্মাণ করবেন একটি শৈল্পিক ছবি। শাকিব খান নিজস্ব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এস কে ফিল্মস থেকে নিয়মিত ছবি নির্মাণের মাধ্যমে দেশীয় পর্যাপ্ত ও মানসম্মত ছবির অভাব পূরণ করে যাবেন। বেশ দৃঢ়তার সঙ্গে এ কথা জানান এই শীর্ষনায়ক। শাকিব খান প্রসঙ্গে প্রদর্শকরা বলেন, এই নায়কের ছবি পাওয়া গেলে সিনেমা হলে দর্শক আসে। মুনাফার মুখ দেখা যায়। আনন্দ সিনেমা হলের ব্যবস্থাপক শামসুল ইসলাম বলেন, শাকিবের ছবি প্রদর্শন করলে সব শ্রেণির দর্শক ছবি দেখতে আসে। ফলে লোকসানের ঝুঁকি থাকে না। তাই বেশি রেন্টাল হলেও শাকিবের ছবির ওপর চোখ বন্ধ করে ভরসা করা যায়। আরেক প্রদর্শক লিটন বলেন, শাকিব খান কমপক্ষে দুই যুগ ধরে এই শিল্পটিকে তার অনবদ্য কাজ দিয়ে টিকিয়ে রেখেছেন। তার ছবি নিয়মিত পাওয়া গেলে চলচ্চিত্রের এই দৈন্যদশা আর থাকবে না। স্টার সিনেপ্লেক্সের প্রধান বিপণন কর্মকর্তা মেসবাহউদ্দীন বলেন, শাকিব খান এখন শুধু স্থানীয় ছবি নয়, কলকাতার ছবিরও ক্রেজে পরিণত হয়েছেন। তার শিকারি, নবাব, ভাইজান এলো রে, চালবাজ ঢাকা-কলকাতার যৌথ আয়োজনের ছবিগুলো এর উৎকৃষ্ট প্রমাণ। শাকিবের ছবি দেখতে সিনেপ্লেক্সেও দশকরা ভিড় জমায়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও শাকিবের খ্যাতি বাংলাদেশকে গর্বিত করেছে। শাকিবের ভক্ত ডা. মোখলেসুর রহমান বলেন, শাকিব খানের ছবি পেলে এখনো সপরিবারে সিনেমা হলে যাই। তার অভিনয় দক্ষতা সত্যি মুগ্ধ করে। বিশেষ করে উৎসবের দিনগুলোতে এই শীর্ষনায়কের ছবির জন্য অপেক্ষায় থাকি। এদিকে, পয়লা বৈশাখ থেকে এই নায়ককে নিয়ে আয়নাবাজি চলচ্চিত্র খ্যাত নির্মাতা অমিতাভ রেজা নির্মাণ করতে যাচ্ছেন চলচ্চিত্র ‘রিকশা গার্ল’। তাছাড়া তার ‘নোলক’ও চলতি বছর মুক্তি পাবে। সব মিলিয়ে উৎসবের নায়ক খ্যাত শাকিব খান এখন শুধু উৎসব নয়, সারা বছরের ছবির অভাব পূরণে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বিরাহীনভাবে।


আপনার মন্তব্য

close