শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ নভেম্বর, ২০১৫ ২৩:৩৬

হত্যাকারীরা রাষ্ট্রের ভিত্তিতে হামলা করছে

জিন্নাতুন নূর

হত্যাকারীরা রাষ্ট্রের ভিত্তিতে হামলা করছে
সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

লেখক, প্রকাশক ও ব্লগারসহ যারা মুক্তচিন্তার চর্চাকারী ব্যক্তিদের একের পর এক হত্যা করছে, তাদের মধ্যে উগ্র মৌলবাদী শক্তি কাজ করছে। এই হত্যাকারীদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ এবং তারা বিভ্রান্ত। হত্যাকারীরা যে শুধু হত্যা করছে তাই নয়, তারা রাষ্ট্রের ভিত্তি ধর্মনিরপেক্ষতার ওপরও আঘাত করছে। আমাদের বুঝতে হবে এটা শুধু কয়েকজন ব্যক্তি খুনের ঘটনা নয়, হত্যাকারীরা রাষ্ট্রের ভিত্তির ওপর হামলা করছে। শিক্ষাবিদ ও প্রাবন্ধিক অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ধর্মের পবিত্রতা রক্ষার জন্য এবং তথাকথিত ধর্মবিরোধীদের ওপর হামলা  করার জন্য তরুণদের মানসিকভাবে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। এই তরুণ হত্যাকারীরা পুলিশের হাতে ধরা পড়ে গেলে তারা শহীদ হবেন বা বেহেস্তে যাবেন এসব বলে তাদের বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। এই ধরনের হত্যাকাণ্ডের জন্য এই উগ্র ধর্মান্ধদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এই তরুণরা না বুঝেই হত্যাকাণ্ডগুলো ঘটাচ্ছে। কিন্তু এটি কোনো ধর্মীয় আচরন নয়, কারণ কোনো ধর্মেই এভাবে মানুষ হত্যার কথা বলা হয়নি। আর ইসলাম হচ্ছে শান্তির ধর্ম। সেখানেও এই ধরনের কিছু বলা নেই। আমার মতে, এই বিভ্রান্তির পেছনে রয়েছে সামাজিক ও রাজনৈতিক কারণ। দেশের পরিবেশ ক্রমেই অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে উঠছে। এখন আর গণতন্ত্রের চর্চা নেই। এই প্রাবন্ধিক বলেন, কোনো জলাশয়ের প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেলে সেখানে যেমন কীটপতঙ্গ জন্মায়, অসুখ হয় তেমনি আসছে দিনগুলোতে ভয়াবহ এক পরিস্থিতি তৈরি হতে যাচ্ছে। দেশে জনসংখ্যা বাড়ছে কিন্তু কর্মসংস্থান নেই। তরুণরা জীবিকার জন্য কাজ পাচ্ছে না। তাদের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। যারা ব্লগার ও প্রকাশক হত্যার সঙ্গে জড়িত তাদের সবাই হয়তো মাদ্রাসার শিক্ষার্থী নয়। এদের অনেকেই হয়তো আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত। তারা নিজেদের সহপাঠীদের বিদেশে গিয়ে ভালো জীবনযাপন করতে দেখে আরও হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ছে। এ ছাড়া অপরাধীরা হত্যাকাণ্ডের জন্য শাস্তি পাচ্ছে না। যদি তাদের শাস্তি দেওয়া হতো তবে তারা ভয় পেয়ে এই হত্যাকাণ্ড থেকে নিবৃত্ত থাকত। কিন্তু একের পর এক হত্যাকাণ্ড ঘটেই যাচ্ছে। হুমায়ুন আজাদ থেকে শুরু করে দীপন হত্যাকাণ্ড পর্যন্ত কোনো খুনিই চিহ্নিত হয়নি। হত্যাকারীদের সবাই পার পেয়ে যাচ্ছে। এই শিক্ষাবিদ বলেন, তরুণরা বরাবরই বীরত্বপূর্ণ কাজ করতে চায়। ’৭১ সালে যে তরুণরা মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিল তাদের একটি লক্ষ্য ছিল। তা ছিল দেশ স্বাধীন করা। কিন্তু এখন যে তরুণরা এই হত্যাকাণ্ডগুলো ঘটাচ্ছে তারা বিভ্রান্ত হয়ে মুক্তমনাদের হত্যা করে ভুল করছে। তারা ভাবছে এর মাধ্যমে তাদের লক্ষ্য পূরণ হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে প্রতিকারের জন্য এই হত্যাকারীদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে। তারা যে বিপজ্জনক কাজ করছে গণমাধ্যমে তার তাৎপর্য তুলে ধরতে হবে। বিভ্রান্ত হামলাকারীরা এসব কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নিজেদের দেশপ্রেমিক বলে মনে করলেও তারা আসলে দেশদ্রোহিতা করছে। আমার ধারণা এই ধরনের তৎপরতা বৃদ্ধি পাচ্ছে এদেশে বিদেশিদের আধিপত্য বিস্তার ও সাম্রাজ্যবাদ প্রতিষ্ঠার জন্য। পশ্চিমা দেশগুলো যেভাবে আধিপত্য বিস্তারের জন্য মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের ওপর হামলা চালিয়ে দেশগুলোকে ছিন্ন-ভিন্ন করে ফেলেছে, একইভাবে বাংলাদেশের ওপরও তারা হামলা করতে চাচ্ছে। বিশিষ্ট চিন্তাবিদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, দেশ এখন ক্রমেই অরাজকতার দিকে যাচ্ছে। এটা রাজনৈতিক সমস্যা, ধর্মীয় সমস্যা নয়। রাষ্ট্রকে এই ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। বিষয়টির তাৎপর্যকে গুরুত্ব দিতে হবে। কারণ হত্যাকারীরা একে একে পার পেয়ে যাচ্ছে কিন্তু রাষ্ট্র বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছে না। আর এই বিষয়টিকে গুরুত্ব না দিলে রাষ্ট্র এমন অবস্থায় পৌঁছাবে যে জায়গা থেকে আর ফিরে আসা যাবে না। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী আরও বলেন, দেশে জঙ্গিরা বিভিন্ন নামে তাদের তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। আগে তারা রাতের অন্ধকারে খুন করত এখন দিবালোকে প্রকাশ্যে ব্লগার ও সৃজনশীলদের ওপর হামলা চালাচ্ছে। এই অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি। কারণ, মত প্রকাশের জন্য মানুষ হত্যা মধ্যযুগীয় ব্যাপার। আমরা দেখেছি এক সরকার আসে আরেক সরকার যায় কিন্তু তারা জঙ্গিবাদের নির্মূল ইস্যুকে গুরুত্ব দেয় না। যারা রাষ্ট্র চালায় তারা মনে করে যে, বিরোধী দল ও বিরোধী মতাবলম্বী মানুষ তাদের শত্রু।

সরকারবিরোধী দল ও মতকে জব্দ করতেই ব্যস্ত থাকে। কিন্তু বিরোধী দল ও সরকার উভয়েরই শত্রু হচ্ছে উগ্রবাদী জঙ্গি সংগঠন। জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যাকাণ্ডে তার বাবা আবুল কাসেম ফজলুল হকের ‘হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে আমার কোনো অভিযোগ নেই। আমি তাদের বিচার চাই না’ এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষমতাসীন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফের দেওয়া বক্তব্যকে ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, দায়িত্বশীল অবস্থান থেকে এই ধরনের বক্তব্য আসা দুঃখজনক। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক না বুঝেই এমন নিষ্ঠুর বক্তব্য দিয়েছেন। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আমরা ক্রমেই বিচারহীনতার জায়গায় চলে যাচ্ছি। ধর্ষণ-খুনের ঘটনাগুলো প্রতিনিয়ত ঘটছে। এগুলো জঘন্য-নিন্দনীয়। কিন্তু ব্লগার বা প্রকাশকদের হত্যাকাণ্ডগুলোকে এই ঘটনাগুলোর সঙ্গে মেলালে হবে না। ব্লগার হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সদূর প্রসারী ক্ষতিকর ও গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে। আর এই ধরনের অপরাধ যদি বৃদ্ধি পায় তবে বুঝতে হবে আমাদের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল নয়।

 

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর