Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ আগস্ট, ২০১৮ ২২:৫৪

এখন চলছে ক্র্যাক ডাউন

নিজস্ব প্রতিবেদক

এখন চলছে ক্র্যাক ডাউন

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর এখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চিরুনি অভিযানকে সরকারের নির্মম আগ্রাসন হিসেবে দেখছে বিএনপি। দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘নিজস্ব লোকদের দিয়ে হামলা চালিয়ে শিশু-কিশোরদের রক্ত নিঙড়ে নেওয়ার পরেও ক্ষান্ত হয়নি সরকার। এখন চলছে র‌্যাব-পুলিশ দিয়ে ক্র্যাক ডাউন। বুধবার রাজধানীতে সরকারি বাহিনীর হাজার হাজার সদস্য চিরুনি অভিযান চালিয়েছে। এই অভিযান সরাসরি  কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ওপর এক নির্মম আগ্রাসন। আমরা অবিলম্বে শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীদের ওপর এই নির্মম হয়রানি বন্ধের দাবি জানাচ্ছি।’ গতকাল রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী আহমেদ এই অভিযোগ করেন। এ সময় দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন,  কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, মুনির  হোসেন, বেলাল আহমেদ, রফিক শিকদার, শাহজাহান সম্রাট প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। রিজভী আহমেদ বলেন, ‘নিরপরাধ শিক্ষার্থীদের আটক করে কোমরে দড়ি বেঁধে রিমান্ডে নিয়ে পৈশাচিক নির্যাতন করা হচ্ছে। এরা মানসিক বৈকল্যগ্রস্ত। ক্ষমতায় থাকার জন্য তারা শিশু-কিশোরদের রক্ত ঝরাতেও দ্বিধা করছে না। সরকার এখন ক্রোধের খেলায় মেতে উঠেছে।’ ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে এই বিএনপি নেতা বলেন, শিক্ষার্থীদের এই জাগরণ দুঃশাসনের বিরুদ্ধে। দমন-পীড়নে শিশু-কিশোরদের এই জাগরণ বন্ধ করা যাবে না। যতই ষড়যন্ত্র ও তৎপরতার কথা বলুক না কেন আওয়ামী নেতারা, দুঃশাসনের বিদায় ঘণ্টা বাজতে শুরু করেছে।’ দৃক গ্যালারির কর্ণধার আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে রিমান্ডে  নেওয়ার সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘নির্যাতিত শহিদুল আলমকে চিকিৎসা দিতে নির্দেশ দিয়েছে উচ্চ আদালত। কিন্তু সরকারি প্রতিষ্ঠান বিএসএমএমইউ সরকারের হুকুমে তাকে ভর্তি করেনি। ওই হাসপাতালে সরকারের নির্দেশ ছাড়া কোনো চিকিৎসা হয় না। ভিন্ন মতাবলম্বীদের সেখানে সুচিকিৎসার কোনো সুযোগ নেই।’


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর