শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩৩

ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে আসায় সরকার অনিশ্চয়তায়

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে আসায় সরকার অনিশ্চয়তায়

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় সরকার একটি অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গেছে। তিনি বলেন, সরকার মনে করেছিল এবারও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো ভোটারবিহীন একটি নির্বাচন দিয়ে ক্ষমতায় থেকে যাবে। কিন্তু জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে আসার কারণে তারা (সরকার) এখন দুশ্চিন্তায় পড়ে গেছে। গতকাল বিকালে রাজধানীর পুরানা  পল্টনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নতুন কার্যালয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন তিনি। এ সময় আগামী ৮ ডিসেম্বরের মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করা হবে বলেও জানান ড. কামাল। এর আগে বিকাল ৪টার দিকে পুরানা পল্টনের ৩৭/২ জামান টাওয়ারের চতুর্থ তলায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নতুন কার্যালয় উদ্বোধন করা হয়। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের সব কার্যক্রম এই নতুন কার্যালয় থেকে পরিচালিত হবে। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লা বুলু, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, গণফোরামের অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, ড. রেজা কিবরিয়া, বিএনপি চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা আবদুস সালামসহ প্রমুখ। ড. কামাল বলেন, যখনই আমরা নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম, তখন থেকেই আওয়ামী লীগ অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে যায়। কারণ সরকার আবারও যেনতেন নির্বাচন করার ‘পাঁয়তারা’ করছে। তিনি বলেন, ২০১৪ সালে যেনতেন নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ পাঁচ বছর ক্ষমতা ভোগ করেছে। কথা ছিল মধ্যবর্তী নির্বাচনের। কিন্তু তা তারা দেয়নি। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে করার মাধ্যমে জনগণ রাষ্ট্রের মালিকানা ফিরে পাবে। তাই নির্বাচন সুষ্ঠু করতে জনগণকে পাহারাদার হতে হবে। সাংবাদিকরাও অবাধ নির্বাচনের পাহারাদার হিসেবে ভূমিকা রাখতে পারেন। গণফোরাম সভাপতি বলেন, বর্তমানে দেশের মালিকানা মালিকদের (জনগণ) হাতে নেই। তাই দেশের মালিকানা পুনরুদ্ধার করতে জনগণকেই মাঠে থাকতে হবে। সরকার অপচেষ্টা চালালে তা মোকাবিলা করতে হবে।

 


আপনার মন্তব্য