শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:৩৩

ছাত্রদল কমিটিতে আওয়ামী লীগ নেত্রীর বিবাহিত ছেলে!

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটিতে আওয়ামী লীগ নেত্রী বেবী ইয়াছমিনের বিবাহিত ছেলে ও পুলিশ অ্যাসল্ট মামলার পলাতক আসামি এম রিফাত বিন জিয়াকে আহ্বায়কের পদ দেওয়ায় সংগঠনের ক্ষুব্ধ কর্মীরা মিছিল করেছেন। জিয়ার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক বিয়ের অভিযোগ। আর সদস্যসচিব করা হয়েছে ঢাকার ব্যবসায়ী মো. আমান উল্লাহকে। গত ২৪ জানুয়ারি বুধবার এ কমিটি ঘোষণা করে জেলা ছাত্রদল। ওইদিন রাতেই অবৈধ ও পকেট কমিটির অভিযোগ আনে রিগানের নেতৃত্বে ছাত্রদলের একটি গ্রুপ। রাত ১০টার দিকে মিছিল শেষে পথসভা চলাকালে ওই কমিটিরই যুগ্ম আহ্বায়ক-২ মোস্তাকিমুর রহমান ও সরাইল সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমেদ খন্দকার রিগানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সূত্র জানায়, এক বছর আগে সরাইল উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি বিলুপ্ত হয়। এক বছরে কোনো সভা ও সম্মেলন হয়নি। হঠাৎ করেই জেলা ছাত্রদল ২১ সদস্যবিশিষ্ট সরাইল উপজেলা ছাত্রদলের কমিটির অনুমোদন দেয়। প্রতিবাদে রাজপথে নেমে পড়েন রিগানের নেতৃত্বে ছাত্রদলের একাংশের নেতা-কর্মীরা। সকাল বাজার থেকে মিছিল করে হাসপাতাল মোড় হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পথসভা করে। পথসভায় তারা রিফাত ও আমানকে অছাত্র উল্লেখ করে এ কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করেন। বক্তারা বলেন, রিফাতের মা বেবী ইয়াছমিন সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির ৩০ নম্বর সদস্য। এ রিফাত নিজ গ্রামে ও নবীনগরে দুটি বিয়ে করেছেন। এ ছাড়া আহ্বায়ক ও সদস্যসচিব দুজনেরই ছাত্রত্ব নেই। রাত ১০টার দিকে ওই সভা থেকে পুলিশ রিগান মোস্তাকিনকে গ্রেফতার করে। গতকাল দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তারা জামিনে বেরিয়ে আসেন। সরাইল উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মো. ইসমাইল হোসেন উজ্জ্বল বলেন, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিবাহিত অছাত্র ছাত্রদলের কমিটিতে আসতে পারেন না। রিফাত সন্ত্রাসী, নারী নির্যাতন, পুলিশ প্রহার মামলাসহ একাধিক মামলার পলাতক আসামি। কমিটি গঠনে মোটা অঙ্কের টাকা লেনদেন হয়েছে। জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ফুজায়েল চৌধুরী বলেন, এই কমিটি কেন্দ্রের নির্দেশে করা হয়েছে। এর বেশি কিছু জানি না।


আপনার মন্তব্য