শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ টা
জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি

পাঁচ বছরের মধ্যে উন্নয়নের নতুন ধাপে যাবে বাংলাদেশ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

পাঁচ বছরের মধ্যে উন্নয়নের নতুন ধাপে যাবে বাংলাদেশ

করোনা মহামারী মোকাবিলা ও বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের ব্যাপক প্রশংসা করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে চোখে দেখার মতো। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে উন্নয়নের নতুন ধাপে যাবে বাংলাদেশ। এটি সত্যিই এক বিস্ময়কর অর্জন। সরকার এবং জনগণের আন্তরিক প্রচেষ্টার ফল এটি।’ গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত ‘ডিক্যাব টক’ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন। এ সময় তিনি জানান, কোভ্যাক্সের আওতায় বাংলাদেশকে আরও করোনাভাইরাসের টিকা দেবে জাপান। চলতি বছরের নভেম্বরের মধ্যে এসব টিকা বাংলাদেশে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে। ইতো নাওকি বলেন, বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশের স্ট্যাটাস অনেক বেড়েছে। এর পেছনে দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং সামাজিক উন্নয়ন বড় ভূমিকা রেখেছে। জাপান এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানি বাজার হতে যাচ্ছে। দেশে চলমান জাপানি প্রকল্পগুলো নিয়ে নাওকি ইতো বলেন, মাতারবাড়ী শুধু বাংলাদেশ নয়, এ অঞ্চলের স্বপ্ন। এটি এ অঞ্চলের অন্যতম একটি পাওয়ার হাব হিসেবে কাজ করবে। বেশির ভাগ বড় প্রকল্পে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করা কঠিন হয়ে পড়ে। জাপানের ক্ষেত্রে সম্ভাব্যতা যাচাই করতে বেশি সময় লাগে, কিন্তু এটা সব সময় একটু গুণগত কাজ হয়। প্রকল্পের সময়, বাজেট এবং গুণগতমান রক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ। রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশে কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স এখনো সহজ নয়। টেলিগ্রাফিক ট্রান্সফার এশিয়ার মধ্যে শুধু দুটি দেশে নিষিদ্ধ। বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে। বাংলাদেশ বিদেশি কোম্পানিকে আকৃষ্ট করে আরও ইমেজ বাড়াতে হলে কিছু নিয়মকানুনে পরিবর্তন আনতে হবে। জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩ মিলিয়ন (৩০ লাখ) ডোজ টিকা দিয়েছে জাপান। দুই মাসের মধ্যে পাঁচ চালানে এসব টিকা বাংলাদেশে এসেছে। অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজের জন্য যখন অনেক বাংলাদেশি অপেক্ষায় ছিলেন, তখন জাপান বাংলাদেশকে টিকা সরবরাহ করেছে। বাংলাদেশ ভালোভাবে টিকাগুলো কাজে লাগিয়েছে। ডিক্যাব সভাপতি পান্থ রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক এ কে এম মঈনুদ্দীন।

সর্বশেষ খবর