শনিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ টা
সাক্ষাৎকারে পীর চরমোনাই

হিন্দুবাড়িতে অগ্নিসংযোগ দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র

শফিকুল ইসলাম সোহাগ

হিন্দুবাড়িতে অগ্নিসংযোগ দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও পীর চরমোনাই মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেছেন, সামগ্রিকভাবে দেশ ভালো নেই। সবখানে সন্ত্রাস, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি চলছে। নাগরিক অধিকার ও মানবাধিকার আজ ভূলুণ্ঠিত। স্বাধীন দেশের সাংবাদিকরা স্বাধীনভাবে মতপ্রকাশ করতে পারেন না। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার ঘটনা ও হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঘরবাড়িতে হামলা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পীর চরমোনাই বলেন, কোরআন অবমাননার ঘটনায় মুসলমানরা ক্ষুব্ধ হবেন এটাই স্বাভাবিক। এ ঘটনায় আমরা বিস্মিত ও মর্মাহত। তবে ঘটনা কেন্দ্র করে কোনো  ধরনের বিশৃঙ্খলা সমর্থন করি না। তিনি বলেন, দেশের সব ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় ও নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘরে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন। তাদের ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ দেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের অংশ বলেই মনে হয়। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান সব ধর্মের মানুষেরই এ দেশে শান্তিতে বসবাস করার অধিকার রয়েছে। যারা ধর্মীয় কারণে কোনো নাগরিকের জানমালের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়ায়, তারা ধর্মবিরোধী, দেশবিরোধী এবং মানবতাবিরোধী। সব ধরনের উসকানি ও সহিংসতা থেকে দেশের স্বার্থে সবাইকে বিরত থাকতে হবে। কোনো প্রকার উসকানির ফাঁদে পা দেওয়া যাবে না। রংপুরের পীরগঞ্জ, কুমিল্লা, নোয়াখালী ও ফেনীসহ প্রতিটি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত দোষীদের খুঁজে বের করা সরকার ও প্রশাসনের দায়িত্ব। সরকার এ দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে সংকট আরও ঘনীভূত হবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় দেশের সব রাজনৈতিক দল, ধর্মীয় ব্যক্তি এবং জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। পীর চরমোনাই বলেন, এ ঘটনায় সরকারের ভূমিকা হতাশাজনক। পর্যাপ্ত গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা বাহিনী থাকার পরও এমন ঘটনা সরকারের অগোচরে ঘটেছে- এ কথা বিশ্বাস করতে পারছি না। নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারের ভূমিকা প্রসঙ্গে ইসলামী আন্দোলনের আমির বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনার কারণে দরিদ্রতা বেড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে দেশে নীরব দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা রয়েছে। তিনি বলেন, মন্ত্রীদের অতিকথন ও সমন্বয়হীনতা নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির আরেকটি কারণ। পীর চরমোনাই সরকারের প্রশাসন প্রসঙ্গে বলেন, ‘প্রশাসনে অনিয়ম আছে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না। জনসমর্থনহীন সরকারের প্রশাসনে অনিয়ম থাকাটা স্বাভাবিক। প্রশাসন জাতীয় সংকট মোকাবিলার চিন্তা না করে বিরোধী দল ও বিরোধী মত দমনে সর্বাত্মক শক্তি নিয়োগ করছে। প্রশাসনের সব পর্যায়ে পেশাদারিত্বের পরিবর্তে তোষণকারী শ্রেণি তৈরি হয়েছে।’ তিনি বলেন, সরকারি দলের দুর্নীতিবাজ নেতা-কর্মী ও দুর্নীতিবাজ আমলারা আঙুল ফুলে বট গাছে পরিণত হয়েছেন। সরকারি দফতরে সৎ কর্মকর্তারা কোণঠাসা। পক্ষান্তরে দুর্নীতিবাজদের আধিপত্য চলছে। দুর্নীতি প্রতিরোধে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের যে ভূমিকা থাকার কথা ছিল, দুদক সে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ। কোনো ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আলোচনায় থাকা লোকদের সম্পদের তথ্য অনুসন্ধানের কার্যক্রম করে বেঁচে আছে। এর বাইরে দুদকের দৃশ্যমান কোনো কার্যক্রম নেই। স্থানীয় ও উপনির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, স্থানীয় সরকারের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন কতটা স্বচ্ছ হচ্ছে বা হবে তা ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচন আমাদের দেখিয়ে দিয়েছে। তিনি বলেন, ‘বর্তমান মেরুদন্ডহীন তল্পিবাহক নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচন স্বচ্ছ হয়নি। বাকিগুলো কতটুকু হবে তা সময়ই বলে দেবে।’

তিনি বলেন, ‘তৃণমূলে দুর্নীতি বন্ধ করে দুর্নীতিমুক্ত কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে ইসলামী আন্দোলন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এ নির্বাচনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের জঘন্য কর্মকান্ড জনগণের কাছে ফুটে উঠছে।’ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি প্রসঙ্গে পীর চরমোনাই বলেন, মানুষ যেখানে ভোট ও মানবাধিকারের কথা বলতে রাস্তায় নামতে পারে না, সেখানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিকে স্বাভাবিক বলা যায় না। দেশে এখন কেউই নিরাপদ বোধ করছে না।

 পীর চরমোনাই বলেন, তথ্য প্রতিমন্ত্রীর রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিলের কথায় জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তার বক্তব্য সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। কোরআন অবমাননাসহ বর্তমান সময়ে ঘটে যাওয়া ঘটনা ও তথ্য প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য মনে হচ্ছে একই সূত্রে গাঁথা। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানের দেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থাকবে এটাই স্বাভাবিক। মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম বলেন, স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ আজ একটি বিস্ফোরণন্মোখ আগ্নেয়গিরির ওপর অবস্থান করছে। জনমনের শঙ্কা দূর করতে হলে, স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনতে হলে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন প্রয়োজন। যেখানে মানুষ স্বাধীনভাবে মতামত প্রকাশ করতে পারে। নিরপরাধ মানুষের ওপর থেকে জেল, জুলুম, হুলিয়া তুলে নিতে হবে। স্বাভাবিক রাজনৈতিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে। আলেম-ওলামাদের হয়রানি বন্ধ করতে হবে।

সর্বশেষ খবর