শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে গণভবনে আসছেন ৬২ স্বতন্ত্র এমপি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে গণভবনে আসছেন দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ৬২ স্বতন্ত্র এমপি। আগামী রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় নতুন এমপিদের গণভবনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদে ৬২ জন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যের মধ্যে ৬০ জনই আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা। তারা অপেক্ষায় ছিলেন সংসদ নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সাক্ষাৎ পাওয়ার। সেই প্রত্যাশা পূরণ হতে যাচ্ছে। সংসদ নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী কী বার্তা দেন, সেই অপেক্ষায় বিজয়ী স্বতন্ত্র এমপিরা। এ বৈঠকে আগামী পাঁচ বছর জাতীয় সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ভূমিকা কী হবে, সংরক্ষিত নারী আসনের বিষয়ে তাদের মতামতসহ গুরুত্বপূর্ণ নানা বিষয় আলোচনায় উঠে আসবে। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে দলের দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া নির্বাচিত স্বতন্ত্র এমপিদের গতকাল আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদে রেকর্ডসংখ্যক আসনে বিজয়ী স্বতন্ত্র এমপি। বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে হাতে গোনা দুই-তিনজন ছাড়া বাকি সবাই আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা। তাদের মধ্যে অনেক পোড়খাওয়া নেতাও রয়েছেন। আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের ত্যাগী নেতারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় সংসদে তাদের ভূমিকা কী হবে, তা নিয়ে তারা রয়েছেন ধোঁয়াশায়। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এই বৈঠকেই আগামী পাঁচ বছর সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ভূমিকা কী হবে তা স্পষ্ট হয়ে যাবে।

এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা-৪ আসন থেকে স্বতন্ত্র বিজয়ী এমপি ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আগামী রবিবার গণভবনে যাওয়ার আমন্ত্রণ পেয়েছি। স্বতন্ত্র হিসেবে বিজয়ী হলেও অপেক্ষায় ছিলাম দলীয় সভানেত্রীর সাক্ষাতের। আশা করছি, সেটা পূরণ হতে যাচ্ছে। নেত্রী যে বার্তা দেন সে অনুযায়ীই আমরা চলব।’ ঢাকা-১৯ আসন থেকে বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘দলের দফতর সম্পাদকের একটি মেসেজ পেয়েছি। সেখানে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের রবিবার ডেকেছেন।’

আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নীতিনির্ধারক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের প্রায় সবাই আওয়ামী লীগের পদধারী নেতা হলেও দ্বাদশ জাতীয় সংসদে তাদের সরকারের বাইরেই বসতে হবে। আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা দলীয় স্ব স্ব পদে বহাল থাকলেও সংসদ অধিবেশনে স্বতন্ত্র এমপি হিসেবেই দায়িত্ব পালন করতে হবে। তাদের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হিসেবে গণ্য করা হবে না, আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলেও তাদের ফিরিয়ে আনা হবে না। এ বিষয়টিই আগামী রবিবারের বৈঠকে সংসদ নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা স্বতন্ত্র প্রার্থীদের স্পষ্ট করে দিতে পারেন বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে সামনে সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দেশের ইতিহাসে এবারই প্রথম দ্বাদশ জাতীয় সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১০টি সংরক্ষিত নারী আসন পেতে যাচ্ছেন। তাই দলীয় ও স্বতন্ত্র জোটের মনোনয়ন নিয়ে চলছে নানা হিসাবনিকাশ। সংরক্ষিত এ ১০টি নারী আসনের ব্যাপারে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অবস্থান কী সেটিও সংসদ নেতা বৈঠকে জানার চেষ্টা করবেন। অতীতে কখনো সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচন হয়নি। দল মনোনীত প্রার্থীরাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বরাবরই সংরক্ষিত আসনে বিজয়ী হয়ে এসেছেন। কিন্তু এবার প্রেক্ষাপট ভিন্ন। আসন সংখ্যার অনুপাতে এবার স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ভাগে ১০টি সংরক্ষিত নারী আসন পাবেন। এ ১০টি আসনে কারা হচ্ছেন সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি তা এখনো খোলাসা হয়নি।

তবে স্বতন্ত্র একাধিক সংসদ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্বতন্ত্রদের জোট ১০টি সংরক্ষিত আসন ভাগে পাওয়ার কথা থাকলেও আগামী রবিবারের বৈঠকে তারা আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনার হাতেই সেই ভার ন্যস্ত করতে পারেন। তাদের মতে, নামে স্বতন্ত্র এমপি হলেও আমরা তো আওয়ামী লীগেরই। আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। তাঁর হাতেই আমরা এ ১০টি সংরক্ষিত আসনের মনোনয়নের ভার অর্পণ করব।

সর্বশেষ খবর