Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ জুলাই, ২০১৯ ২০:০১

সভাপতিহীন ভারতের জাতীয় কংগ্রেস, সোনিয়াকে চাইছে একাংশ

দীপক দেবনাথ, কলকাতা:

সভাপতিহীন ভারতের জাতীয় কংগ্রেস, সোনিয়াকে চাইছে একাংশ
ফাইল ছবি

সভাপতি ছাড়াই চলছে ভারতের ঐতিহ্যবাহী দল জাতীয় কংগ্রেস। লোকসভা ভোটে দলের পরাজয়ের সব দায় নিজের মাথায় নিয়ে গত ৩ জুলাই কংগ্রেস সভাপতি পদ থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে ইস্তফা দিয়েছিলন রাহুল গান্ধী। সেই সাথে যত দ্রুত সম্ভব দলের নতুন সভাপতি নির্বাচন করার কথাও বলেছিলেন রাহুল। কিন্তু এখনও পর্যন্ত নতুন সভাপতি পদে কাউকে স্থির করতে পারেনি দল। 

সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনে দেশজুড়েই অত্যন্ত খারাপ ফল হয়েছে কংগ্রেসের। ৫৪৩ আসনের মধ্যে তারা জয় পেয়েছে ৫২ আসনে। এমনকি রাহুল গান্ধী নিজেও উত্তরপ্রদেশের আমেথি কেন্দ্রে বিজেপি নেত্রী ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানির কাছে হেরে যান রাহুল। কিন্তু কেরালার ওয়ানেড় কেন্দ্র থেকে জিতে মুখ রক্ষা হয় রাহুলের। নির্বাচনে ভরাডুবির পরই গত ২৫ মে দলের ওয়ার্কি কমিটির বৈঠকেই কংগ্রেস সভাপতি হিসাবে রাহুল পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দলের শীর্ষ নেতাদের আবেদন ছিল তিনি যেন তার সিদ্ধান্ত বদল ঘটান। 

যদিও পদত্যাগের বিষয়ে অনড় থেকে ৩ জুলাই সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ট্যুইট করে চার পাতার একটি দীর্ঘ চিঠি পোস্ট করেন রাহুল। ট্যুইটারে নিজের নামের পাশ থেকে ‘কংগ্রেস সভাপতি’ শব্দটি সরিয়ে ফেলেন। কার্যত সেই থেকে অভিভাবকহীন ভাবে চলছে কংগ্রেস। 

কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির অধিকার রয়েছে রাহুল গান্ধীর উত্তরাধিকারীকে বেছে নেওয়া। কিন্তু দলের শীর্ষ নেতৃত্ব এখনও সেই কাজটি করে উঠতে পারেননি। এমন অবস্থায় দলের সিনিয়র নেতারা কংগ্রেসের ওয়ার রুমে দুইটি বৈঠকে হাজির হলেও সভাপতি নির্বাচনের বিষয়ে কোন আলোচনাই হয়নি বলে সূত্রে খবর। আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু ছিল কিভাবে কর্নাটক রাজ্যে জেডিএস-কংগ্রেস জোট সরকার টিকিয়ে রাখা যায়। কারণ জোট সরকার থেকে ১৬ জন বিধায়ক ইস্তফা দেওয়ায় গত দুই সপ্তাহ ধরে টালমাটাল অবস্থা চলছে কর্নাটকে। তার ওপর চিন্তা বাড়িয়েছে দুই নির্দল বিধায়কের মন্ত্রিপদ ছেড়ে বিরোধী বিজেপির প্রতি সমর্থন ঘোষণা করা। 

এরই মধ্যে দলেরই একাংশ ফের সোনিয়া গান্ধীকেই সভাপতির পদে দেখতে চাইছেন। প্রায় দুই দশক ধরে দলের সভাপতি থাকার পর গত ২০১৭ সালের ডিসেম্বর সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দেন সোনিয়া। তার জায়গায় সর্বসম্মত ভাবে সভাপতি নির্বাচিত হন রাহুল। কিন্তু রাহুলের নেতৃত্বে গত দুই বছরে দল তেমন সাফল্য অর্জন করতে পারেনি। এমতাবস্থায় দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতা সোনিয়াকে ফের দলের হাল ধরতে আর্জি জানিয়েছেন বলে খবর। 

বর্তমানে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সংযুক্ত প্রগতিশীল মোর্চা (ইউপিএ) চেয়ারপার্সন রয়েছেন সোনিয়া। তবে সোনিয়া সেই আর্জিতে কতটা সাড়া দেবেন তা সময়ই বলবে। কারণ সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পরই রাহুলের অভিমত ছিল যে গান্ধী পরিবারের বাইরের কোন ব্যক্তিকে এই পদে বসানো হোক। 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য