শিরোনাম
শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

গ্যাস বিস্ফোরণে এক পরিবারের সাতজন দগ্ধ

সিদ্ধিরগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইলের একটি টিনশেড বাসায় জমা গ্যাসের বিস্ফোরণের আগুনে এক পরিবারের সাতজন দগ্ধ হয়েছেন। এর মধ্যে এক নারীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। বুধবার রাতে নগরীর ১০ নম্বর ওয়ার্ডের বাঘপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। দগ্ধরা হলেন সুখী আক্তার (৩৫), তার ২৫ দিনের মেয়ে মুনতাহা, বড় মেয়ে সাদিয়া আক্তার (১৩), বোন জান্নাতি আক্তার (১৮), ভাই আরিফ হাওলাদার (২১), ফুফাতো বোন রহিমা আক্তার (৩৫), রহিমার মেয়ে রিতু আক্তার (১২)। তাদের রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ আবু বকর ছিদ্দিক।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. তরিকুল ইসলাম জানান, রহিমার শরীরের ৪৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। তিনি আশঙ্কাজনক অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন। সুখী আক্তার ১৭ ও জান্নাতি ১৫ শতাংশ দগ্ধ হয়ে ওয়ার্ডে ভর্তি আছেন। সাদিয়ার ৫, আরিফের ৩ ও রিতুর ১০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। ২৫ দিনের মুনতাহাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে দেখভালের জন্য পাশের বাসার ভাড়াটিয়া ফরিদার কাছে দেওয়া হয়েছে। দগ্ধ রহিমার স্বামী জাহাঙ্গীর হাওলাদার জানান, তারা এবং সুখীর পরিবার পাশাপাশি বাসায় থাকেন। সুখী ২৫ দিন আগে সন্তানের জন্ম দেন। তাকে দেখতেই সবাই বুধবার রাতে তার ঘরে ছিলেন। এ সময় আগুনের এ ঘটনাটি ঘটে। তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির নারায়ণগঞ্জ সদরের ম্যানেজার মোস্তাক মাসুদ মো. ইমরান বলেন, ‘ওই বাড়ি ঘেঁষে তিতাস গ্যাসের লাইনে লিকেজ ছিল তা বন্ধ করে দিয়ে এসেছি।’ সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘প্রাথমিক ধারণা ঘরে জমে থাকা গ্যাসের বিস্ফোরণের আগুনে তারা দগ্ধ হয়েছেন। তবে আগুনের সূত্রপাত কীভাবে তা নিয়ে কাজ করছে পুলিশ।’

সর্বশেষ খবর