শিরোনাম
প্রকাশ : ১৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:৪৪
আপডেট : ১৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:৪৬
প্রিন্ট করুন printer

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচন

বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার

বরগুনা প্রতিনিধি

বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার
মো. শাহাদাত হোসেন

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে মেয়র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় বরগুনা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ  সম্পাদক বর্তমান পৌর মেয়র মো. শাহাদাত হোসেনকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।  ২০১৫ সালের পৌর নির্বাচনেও শাহদাত হোসেন দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে মেয়র পদে নির্বাচন করে বিজয়ী হন।

ওই বছরও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। মঙ্গলবার রাতে বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের সিদ্ধান্ত অমান্য করে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন শাহাদাত হোসেন।

কেন্দ্রীয় নির্দেশনায় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেনকে দলের সকল পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আজ থেকে আওয়ামী লীগের সাথে তার কোন রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক সম্পর্ক নেই।

পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী শাহাদাত হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সাংগঠনিক নিয়ম অনুসারে দল থেকে বহিষ্কৃত হয়েছি। বঙ্গবন্ধু আর জননেত্রী শেখ হাসিনাকেও তো আর আমার মন থেকে বহিষ্কার করা যাবেনা। জনগণের ভালোবাসার কাছে পরাজিত হয়েই নির্বাচন করতে বাধ্য হচ্ছি।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৩৬
প্রিন্ট করুন printer

নরসিংদীতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার

নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদীতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার

নরসিংদীতে আনুষ্ঠানিকভাবে সংবাদ সম্মেলন করে স্বতন্ত্র প্রার্থীর প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সভাপতি আশরাফ হোসেন সরকার নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আশরাফ হোসেন সরকার বলেন, আমরা বংশ পরম্পরায় বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি। জননেত্রী শেখ হাসিনার আদেশই শিরোধার্য। তিনি আমাকে নৌকার মনোনয়ন দিয়েছেন। আবার একদিন পর মনোনয়ন বদল করে অন্য জনকে দিয়েছেন। দল এবং প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে আমি সেটাই মেনে নিয়েছি। এবং প্রধানমন্ত্রী যাকে নৌকা দিয়েছেন আমি তার পক্ষেই কাজ করবো। 

তিনি আরো বলেন, আমি নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন  নিয়ে আসার পর নরসিংদীবাসীর যে অকুন্ঠ ভালোবাসা পেয়েছি, সেই ভালোবাসা আমার আগামী দিনের পাথেয় হয়ে থাকবে। এর আগে বিকেলে আশরাফ হোসেন সরকার জেলা রিটানিং কর্মকর্তার অফিসে প্রর্থীতা প্রথ্যাহারের আবেদন জমা দেয়।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:৫১
আপডেট : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:৫৭
প্রিন্ট করুন printer

পাথরঘাটায় দুই মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের ব্যাপক সংঘর্ষ, আহত ২০

বরগুনা প্রতিনিধি:

পাথরঘাটায় দুই মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের ব্যাপক সংঘর্ষ, আহত ২০

বরগুনার পাথরঘাটা পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী নারিকেল গাছ প্রতীকের সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আজ বেলা ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। 

এতে পাথরঘাটা থানার ওসি সাহাবুদ্দিন, ৫ পুলিশ সদস্য, স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সোহেল, ২ সাংবাদিকসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। ইটের আঘাতে আহত ওসিসহ পুলিশ সদস্যদের পাথরঘাটা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। তবে মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান সোহেলকে আহতাবস্থায় পুলিশ থানায় নিয়ে যায়। 

পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) সাঈদ আহমেদ জানান, আহত হবার কারণে সোহেলকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। এখনও অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ৩টার দিকে মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান সোহেলের কর্মীরা গণসংযোগের জন্য তার বাসায় সমবেত হয়। এসময় পুলিশ, র‍্যাব, ডিবিসহ শতাধিক আইনশৃঙ্খলা বাহিনির সদস্য সোহেলের বাসার সামনে অবস্থান নেয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিত হয়ে আচরণবিধি ভঙ্গ না করার জন্য তাদের অনুরোধ করেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সাথে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে র‍্যাবের গাড়ি লক্ষ করে ইট ছুড়লে গাড়ির সামনের গ্লাস ফেটে যায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় মেয়র প্রার্থী সোহেল তার ৭/৮জন কর্মী নিয়ে লিপলেট বিতরণ করে বনবিভাগের সামনে রাস্তায় এলে হঠাৎ করে আওয়ামী লীগ কর্মীরা ইটপাটকেল ছুড়তে শুরু করে। সংবাদ পেয়ে সোহেলের শতাধিক কর্মী লাঠিশোটা নিয়ে পাল্টা হামলা করে। আওয়ামী লীগ কর্মীরা আরও সংগঠিত হয়ে পাল্টা হামলা করলে দু'পক্ষের সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ টিয়ারসেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। আওয়ামী লীগ কর্মীরা এসময় শহরের সাংবাদিক সুমনের টেলিকম দোকানে হামলা করে ভিডিও ক্যামেরা, ল্যাপটপ ভাঙচুর করাসহ সোহেলের বাসায় ভাঙচুর করে। 

পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা সাবরিনা বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রযেছে। কোন পক্ষ থেকে নির্বাচনী আচরণবিধ লংঘনের অভিযোগ আমরা পাইনি।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:৩৬
আপডেট : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

মুন্সীগঞ্জে নির্বাচনী উঠােন বৈঠকে জনতার ঢল

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি

মুন্সীগঞ্জে নির্বাচনী উঠােন বৈঠকে জনতার ঢল

মুন্সীগঞ্জ শহরের হাটলক্ষিগঞ্জে নির্বাচনী উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় উঠান বৈঠকে জনতার ঢল নামে। মহুর্তের মধ্যে উঠােন বৈঠকটি হাজারো নারী-পুরুষদের উপস্থিতে জনসভায় রূপ নেয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শহরের হাটলক্ষিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এই উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় আসন্ন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী হাজী মো. মুকবুল হোসেন (ডালিম) মার্কা ও নার্গিস আক্তার (আনারস)মার্কাকে বিপুল ভোটে জয়ী করা অনুরোধ জানান প্রার্থীরা । উঠােন বৈঠকে আওয়ামী লীগের দলীয় (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী হাজী ফয়সাল বিপ্লব উপস্থিত হয়ে  তার নির্বাচনীয় মার্কা নৌকায় ভোট প্রার্থনার পাশাপাশি ওয়ার্ডটির কাউন্সিলর প্রার্থী ডালিম মার্কার মুকবুল হোসেন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আনারস মার্কার নার্গিস আক্তারের পক্ষে ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের অনুরোধ করেন। 

হাজী আলাউদ্দিন আহম্মেদ এর সভাপতিত্বে  উঠান বৈঠনে বক্তব্য রাখেন শহর আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম মাহাতাব উদ্দিন কল্লোল, জেলা পরিষদ সদস্য মোকশেদা বেগম লিপি, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন, এ্যাডভোকেট গোলাম মাওয়ালা তপন, ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী হাজী মো. মুকবুল হোসেন ও নারী কাউন্সিলর প্রার্থী নার্গিস আক্তার, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ আহম্মেদ পাভেল প্রমুখ।

নৌকা, ডালিম ও আনারস মার্কায় ভোট প্রার্থনা করে এ সময় এস এম মাহাতাব উদ্দিন কল্লোল হুঁশিয়ারী দিয়ে বলেন, নির্বাচনে কোন রকম কারচুপি করতে দেয়া হবেনা।   নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হবে। তাই সবাই যার যার ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে যাবেন। কোন ধরনের গুজবে কান না দিয়ে সঠিক সময়ে ভোটাধিকার প্রয়োগের আহবানও জানান তিনি।

এবারের পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রতীকসহ ৫ জন মেয়র ও  সাধারণ আসনের ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর ৪০ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারী  ভোট গ্রহন হবে এখানে। এবারে নির্বাচনে ৯ টি ওয়ার্ডে ২৫ ভোট কেন্দ্রের ১৫০ টি ভূতে ৫৩ হাজার ৩শ ৭৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:১৬
প্রিন্ট করুন printer

পৌর নির্বাচন ইস্যুতে হরিণাকুন্ডুতে আরও ৩ নেতা বহিষ্কার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:

পৌর নির্বাচন ইস্যুতে হরিণাকুন্ডুতে আরও ৩ নেতা বহিষ্কার

ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফারুক হোসেনের বিপক্ষে কাজ করার অভিযোগে আরও ৩ নেতাকে বহিষ্কার করেছে আওয়ামী লীগ। এনিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ ৬ নেতাকে বহিষ্কার করলো জেলা আওয়ামী লীগ।

মঙ্গলবার বিকালে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আছাদুজ্জামান আছাদ ৩ নেতার বহিষ্কারাদেশ নিশ্চিত করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সাজেদুর রহমান টানু মল্লিক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য রবিউল ইসলাম পিলু মল্লিক ও হরিণাকুন্ডু পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মানুনর রশিদ আজাদ মল্লিক কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট করছেন। যা ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগ গঠিত তদন্তে সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে।

একই ঘটনায় শনিবার ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মশিউর রহমান জোয়ার্দার, উপজেলা আওয়ামী লীগের  যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শরীফুল ইসলাম শরীফ ও হরিনাকুন্ডু পৌর মেয়র শাহিনুর রহমান রিন্টুকে বহিস্কার করে জেলা আওয়ামী লীগ। এরপর এই বহিস্কারদেশ অবৈধ বলে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে বহিস্কৃত ৩ নেতা। 


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৩২
প্রিন্ট করুন printer

উলিপুরে বিএনপির প্রার্থীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আওয়ামী লীগ প্রার্থীর

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

উলিপুরে 
বিএনপির প্রার্থীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার
 ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আওয়ামী লীগ প্রার্থীর

কুড়িগ্রামের উলিপুরে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী। টাকা দিয়ে ভোট কেনা ও বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের বাড়িতে কর্মীদের খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে মঙ্গলবার বিকেলে নৌকা মার্কার নির্বাচনী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মামুন সরকার মিঠু। তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, বিএনপির প্রার্থী তাদের জাতীয় রাজনৈতিক চরিত্র মিথ্যাচার ও ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মিথ্যা অভিযোগ সৃষ্টির প্রক্রিয়া থেকে আজও বের হতে পারেননি। বিএনপির দলীয় কর্মীরা মাথায় হেলমেট পরে নিজেদের প্রচার মাইকের মেশিন ছিনতাই করে নৌকা মার্কার কর্মীদের দোষারোপ করে যাচ্ছেন। রাতের অন্ধকারে বিএনপির কর্মী আজিজার রহমান মাস্টারের বাড়িতে নিজেরাই হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগের কর্মীদের দোষ দিচ্ছেন। এ ধরনের বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে ইস্যু সৃষ্টি করে নির্বাচনী শান্ত-পরিবেশকে উত্তপ্ত করার অপচেষ্টা করছে বিএনপি। 

তিনি সংবাদ সম্মেলনে আরও অভিযোগ করেন, বিএনপির প্রার্থীর লোকজন তাদের সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের বাড়িতে বসে কৌশলে ভোটারদেরকে টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন। একই সঙ্গে কর্মীদের বাড়িতে বিভিন্ন অজুহাতে খাওয়া দাওয়ার আয়োজন করে বিএনপির ভোটারদের একত্রিত করছেন তারা। 
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, আওয়ামী লীগ সুষ্ঠু নির্বাচন চায়। বিএনপির কাছ থেকে জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। তিনি আশংকা করে বলেন, ভোটের দিন বিএনপির কর্মীরা নিজেরাই ভোট কেন্দ্রগুলোতে সংঘাত সৃষ্টি করে ভোটের পরিবেশ নষ্ট করে আওয়ামী লীগের উপর দোষ চাপানোর পায়তারা করছে। এ কারণে বিএনপি প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারণায় না থেকে ঘরে বসে শুধু মিথ্যাচার করছেন।

এ সময় আওয়ামীলীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মামুন সরকার মিঠু ছাড়াও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সরকার, তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মালেক ও দলদলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সহকারী অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম সরদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর