শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৬
আপডেট : ১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

বগুড়ার তিন পৌরসভার ২১ ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া

বগুড়ার তিন পৌরসভার ২১ ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

দ্বিতীয় ধাপে বগুড়ার তিন পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শনিবার। পৌরসভা তিনটি হলো সারিয়াকান্দি, সান্তাহার ও শেরপুর। বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে প্রচার প্রচারণা শেষ হয়েছে। শেরপুর পৌরসভায় ব্যালট পেপারে ভোট গ্রহণ করা হলেও সান্তাহার ও সারিয়াকান্দিতে এবারও প্রথম ইভিএম মেশিনে ভোট নেওয়া হবে। এই তিনটি পৌরসভায় মোট ভোটকেন্দ্র রয়েছে ৩২টি। এর মধ্যে ২১টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ন হিসেবে চিহিৃত করেছে।
সারিয়াকান্দি উপজেলা নিবার্চন অফিস সূত্রে জানা গেছে, পৌরসভায় ৯টি কেন্দ্রে ৫০টি বুথে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) বসানো হয়েছে। এর মধ্য ৫টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছে। নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩১ জন ও সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১১ জন প্রার্থী। 

পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ডে ১৪ হাজার ১৫৮ জন ভোটার রয়েছেন। এর মধ্য পুরুষ ভোটার ৬ হাজার ৯৬০ জন। মহিলা ৭ হাজার ১৯৮ জন।
সারিয়াকান্দির সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার সাখাওয়াত হোসেন জানান, প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও স্ট্রাইকিং ফোর্স মোতায়েন থাকবে। এছাড়া ২ প্লাটুন বিজিবিসহ স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন থাকবে। প্রতিটি কেন্দ্রের জন্য ১৪ জন আনসার, ৪জন পুলিশ মোতায়েন থাকবে। এছাড়াও ১ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন থাকবে। 

এদিকে সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী প্রতি›দ্ব›িদ্বতা করছেন। এছাড়া সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৪ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রার্থী। এ পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার ৬৬৯ জনের মধ্যে ১২ হাজার ৫৪৮ জন পুরুষ ও ১৩ হাজার ১২১ জন মহিলা ভোটার রয়েছে।
আদমদীঘি উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটানিং অফিসার আব্দুল রশিদ জানান, সান্তাহার পৌরসভায় ভোট গ্রহণের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।  তিনি জানান, ১২টি ভোট কেন্দ্রের ৯২টি বুথে ভোট গ্রহণের জন্য ১২ জন প্রিসাইডিং অফিসার, ৯২ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার এবং ১৮৪ জন পোলিং অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে।

শান্তিপূর্ণভাবে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণের জন্য একজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাবের টহল এবং প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশের পাশাপাশি আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োগ থাকবে।

শেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন প্রার্থী। এছাড়াও কাউন্সিলর পদে ৩৬জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রার্থী অংশ নিয়েছেন। 

উপজেলা নিবাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, এ পৌরসভার মোট ভোটার ২৩ হাজার ৭৫৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১১ হাজার ৪১৫ জন ও নারী ভোটারে সংখ্যা ১২ হাজার ৩৩৯ জন। 

বগুড়ার শেরপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আছিয়া খাতুন জানান, শেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে মোট ১১টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হবে। এর মধ্যে ৯টি ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ বা অতি গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে বাড়তি নিরাপত্তা থাকবে। বাকি দুইটি সাধারণ ভোটকেন্দ্র। 
শেরপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানান এই পৌরসভার অতি গুরুত্বপূর্ণ ভোট কেন্দ্রে পাঁচজন পুলিশ সদস্যসহ ১৩ জন ও সাধারণ ভোটকেন্দ্রে তিনজন পুলিশসহ ১১জন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিত থাকবেন বলে জানান তিনি।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর