Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : রবিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৯

ঠাকুরগাঁও-১

আলোচনায় কে হচ্ছেন নৌকার কাণ্ডারি

আবদুল লতিফ লিটু, ঠাকুরগাঁও

আলোচনায় কে হচ্ছেন নৌকার কাণ্ডারি

সংসদীয় আসনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ১০ মনোনয়নপ্রত্যাশী দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমাদান করেছেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বর্তমান সাংসদ সাবেক পানি সম্পদমন্ত্রী রমেশ চন্দ্রসহ একাধিক প্রার্থীর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ নিয়ে দলীয় কর্মী সমর্থকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে দ্বিধাদ্বন্দ্ব। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলাজুড়ে একই আলোচনা ‘কে হচ্ছেন নৌকার কাণ্ডারি’। প্রার্থী পরিবর্তনের দাবিতে একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশীরা একাট্টা হয়ে আওয়াজ তুলে সরব অবস্থান নিলেও বর্তমান সাংসদ রমেশ চন্দ্র সেন সমর্থকরা দাবি করছেন এবারও দলীয় মনোনয়ন তারাই পাবেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মাঝে মনোনয়ন ফরম জমা নিয়েছেন আওয়ামী লীগ। অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে এ আসন থেকে এবারই প্রথম ১০ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন।

নৌকার টিকিট পেতে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা হলেন : বর্তমান এমপি ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন, ৩ বারের প্রয়াত এমপি খাদেমুল ইসলামের ছেলে কূটনীতিক সাহেদুল ইসলাম সাহেদ, প্রয়াত ভাষাসৈনিক ও সাবেক গভর্নর ফজলুল করিমের ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন বাবু, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ সাদেক কুরাইশী, সাবেক যুবলীগের সভাপতি ও বর্তমান সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটো, কেন্দ্রীয় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক রাজিউর রেজা খোকন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পদাক ইন্দ্রনাথ রায়, সাবেক উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও যুব মহিলা লীগের সভাপতি তাহমিনা আক্তার মোল্লা, ঠাকুরগাঁও জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্র লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক কামরুল হাসান খোকন ও জেলা আওয়ামী লীগের বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক শামসুজ্জামান দুলাল।

বর্তমান এমপির নিজ দলের কর্মীদের সঙ্গে অভ্যন্তরীণ কোন্দল নিয়ে জেলা নেতৃবৃন্দ ও উপজেলা নেতৃবৃন্দের দ্বন্দ্ব আরও প্রকট হয়েছে বলে মনে করছেন দলের সাধারণ সমর্থকরা।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলার প্রবীণ নেতা আমির হোসেন বলেন, ঠাকুরগাঁও-১ আসলে দলীয় প্রার্থী পরিবর্তনের দাবি তৃণমূল নেতা-কর্মীদের। বর্তমান সাংসদ রমেশ চন্দ্র সেন নির্বাচিত হয়ে কতিপয় দুর্নীতিবাজ ও বিতর্কিত লোকদের নিয়ে তিনি তৃণমূল আওয়ামী লীগকে দূরে নিয়ে গেছেন। এখনই নেত্রীই সিদ্ধান্ত নেবেন কাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।

ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আলম টুলু বলেন, আওয়ামী লীগ অত্যন্ত শক্তিশালী সংগঠন। কতিপয় ব্যক্তি আওয়ামী লীগকে দুর্বল করার জন্য ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বিএনপি-জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করার জন্য দলে বিভেদ সৃষ্টি করছেন। এলাকার সাংসদ রমেশ চন্দ্র সেনের পক্ষে এই আসটির প্রতিটি ইউনিটের নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ।

মনোনয়নপ্রত্যাশী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটো বলেন, এলাকার মানুষ প্রার্থী পরিবর্তন চায়। এখানকার বর্তমান এমপি গত ১০ বছরে উন্নয়ন করেছেন ঠিকই। তার কাছের কিছু কতিপয় ব্যক্তি নিয়োগবাণিজ্য করেছেন শতভাগ। এদিকে মনোনয়ন পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন বাবু বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। আমার বাবা ভাষাসৈনিক, মুক্তিযুদ্ধে সংগঠক প্রয়াত ফজলুল করিম আওয়ামী লীগের এমপি ছিলেন। আমি আশাবাদী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দল এবং এলাকার উন্নয়নের কথা চিন্তা করে প্রার্থী মনোনয়ন দেবেন।

ঠাকুরগাঁও নির্বাচন কমিশনের দেওয়া তথ্য মতে, ঠাকুরগাঁও-১ আসনে মোট ভোটারের সংখ্যা ৪ লাখ ২১ হাজার ৬৬২ জন। এদের মধ্যে নারী ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ১০ হাজার ৯৬ ও পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ১১ হাজার ৫২৬।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর