Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:২২
ধোলাইখাল ব্র্যান্ড সম্ভাবনার খাত
নিজস্ব প্রতিবেদক
ধোলাইখাল ব্র্যান্ড সম্ভাবনার খাত

ইঞ্জিন-যন্ত্রাংশ, গাড়ির ক্ষুদ্র পার্টসসহ প্রায় ২০০ ধরনের মেশিনারিজ উৎপাদন ও বাজারজাতের বিশাল সম্ভাবনার খাত হয়ে উঠেছে ‘ধোলাইখাল ব্র্যান্ড’। এ শিল্পের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত পাঁচ লক্ষাধিক লোকের জীবিকা নির্বাহ হচ্ছে।

ধোলাইখাল ব্র্যান্ডের কারিগররা বাইসাইকেল থেকে শুরু করে সব ধরনের গাড়ি, ট্রাক্টর, ক্রেন, রিরোলিং মিল, এমনকি ট্রেনের বগিসহ যাবতীয় যন্ত্রাংশ অনায়াসে প্রস্তুত করছেন। বুয়েটের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মাহাবুবুল আলম বলেন, দেশের এ হালকা প্রকৌশল শিল্পে প্রায় ৩ হাজার ৮০০ ধরনের যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ তৈরি হচ্ছে, যার মধ্যে ১৩৭টি আইটেম রপ্তানি হচ্ছে বিশ্বের ১৭টি দেশে। পুরান ঢাকার মৈশুন্ডি, নবাবপুর, টিপু সুলতান রোড, বনগ্রাম, ওয়ারী ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় এ শিল্পের বিস্তৃতি ঘটেছে। ধোলাইখাল ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় রয়েছে ছোট-বড় অর্ধলক্ষাধিক ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ বা হালকা প্রকৌশল শিল্পের নানা স্থাপনা। এখানকার শ্রমিকদের বেশির ভাগেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই, নেই পুঁথিগত কারিগরি শিক্ষা। হাতের অভিজ্ঞতা আর চোখের মাপে তারা নিখুঁত থেকে নিখুঁততর মেশিনারি পার্টস তৈরি করেন। দেশের বাজারে এ শিল্পের এতটাই চাহিদা যে, ক্রেতারা যন্ত্রাংশ তৈরির জন্য উদ্যোক্তাদের অগ্রিম অর্থ দিয়ে বুকিং দিয়ে রাখছেন। অথচ দুই দশক আগেও বিভিন্ন শিল্প ও পরিবহন খাতের যন্ত্রাংশের পুরোটাই আমদানি করা হতো। যন্ত্রাংশ ছাড়াও নতুন আধুনিক যন্ত্রপাতি তৈরি হচ্ছে পুরান ঢাকার ধোলাইখালে। দেশীয় চাহিদার প্রায় ৫০ শতাংশ পূরণ করে বিদেশেও রপ্তানি করছেন শিল্পোদ্যোক্তারা। ধোলাইখাল ব্র্যান্ডের উদ্যোক্তারা বিভিন্ন সরকারি-আধাসরকারি প্রতিষ্ঠানে সাব-কন্ট্রাক্টের মাধ্যমে যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ সরবরাহ করে বিদেশনির্ভরতা কমিয়ে এনেছেন। বাংলাদেশ রেলওয়ে, বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন, বাংলাদেশ টেক্সটাইলস মিলস করপোরেশন, সিভিল এভিয়েশন, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর,

বন্দর ও সমুদ্র পরিবহন কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ, তিতাস, বাখরাবাদ ও জালালাবাদ গ্যাস কোম্পানি, চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়মিতভাবে যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ সরবরাহ করা হচ্ছে এখান থেকে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে অপার সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে পুরান ঢাকার ধোলাইখাল। এখানে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় পাঁচ হাজার খুচরা যন্ত্রাংশের দোকান রয়েছে। মোটর পার্টসের দোকান ছাড়াও এখানে রয়েছে ড্রামশিট, লেদ মেশিন, পুরনো লোহা-লক্কড়ের দোকান। লাইনার, পিস্টন, বিয়ারিং থেকে শুরু করে দেশি-বিদেশি মোটর পার্টস, গাড়ির ব্রেকড্রাম, ইঞ্জিন, কার্টিজ, সকেট, জগ, জাম্পার, স্প্রিং, হ্যামার, ম্যাকেল জয়েন্ট, বল জয়েন্টসহ নানা সামগ্রী এখানেই তৈরি হচ্ছে। ধোলাইখালে তৈরি মেশিনারি পার্টস ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরসহ নানা দেশে রপ্তানি হচ্ছে। এ ছাড়া ভালো রিকন্ডিশন্ড পার্টসের জন্য দেশব্যাপী সুনাম রয়েছে ধোলাইখালের। ইতিমধ্যে ধোলাইখাল পরিণত হয়েছে মিনি মোটর ইন্ডাস্ট্রিয়াল জোনে। হালকা প্রকৌশল শিল্পমালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্ডাস্ট্রিজ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিইআইওএ) সভাপতি আবদুর রাজ্জাক বলেন, দেশি তৈরি যন্ত্র ও যন্ত্রাংশের বিদেশে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। প্রতি বছর শতাধিক আইটেম রপ্তানি করে গড়ে ৩০-৪০ কোটি ডলার আয় হচ্ছে। বাংলাদেশ বছরে ৭ কোটি ৪০ লাখ ডলারের গাড়ির যন্ত্রাংশ আমদানি করছে। আর হালকা প্রকৌশল শিল্প থেকেই দেশের বাজারে সরবরাহ করা হয় ৭ কোটি ৫০ লাখ ডলার মূল্যের যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ।

সমস্যাজর্জরিত কয়েক হাজার শিল্প-কারখানা : নানা সমস্যায় জর্জরিত পুরান ঢাকার শ্যামপুর-কদমতলী ছোট ও মাঝারি কয়েক হাজার বিভিন্ন শিল্প-কারখানা। গ্যাস-বিদ্যুৎ আর জলাবদ্ধতার সমস্যার সঙ্গে উদ্যোক্তাদের মধ্যে এবার যোগ হয়েছে সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্ত হওয়া-না হওয়া নিয়ে দ্বিধা। সামান্য জায়গা আর তাতেই কয়েকটি মেশিনে চলছে অবিরাম পণ্য তৈরির কাজ। পুরান ঢাকার শ্যামপুর-কদমতলীতে অহরহ চোখে পড়বে এ চিত্র— ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ তৈরির কারখানা, প্লাস্টিক ও অ্যালুমিনিয়াম পণ্য তৈরির কারখানা, ছোট ছোট টেক্সটাইল মিল। আছে ডাইং, রিরোলিং মিল ও ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ। গত কয়েক দশকে নিজ উদ্যোগেই এখানে গড়ে উঠেছে এমন অজস্র ছোট ও মাঝারি শিল্প। সাধারণত বাংলাদেশ থেকে এয়ারকন্ডিশন ও রেফ্রিজারেটরের যন্ত্রাংশ, ফ্যান, বৈদ্যুতিক তার, ব্যাটারি, ভোল্টেজ স্টাবিলাইজার, বাইসাইকেল, মোটরগাড়ির ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ, সিরামিকস, ছোট মোটর যন্ত্রাংশ, পাইপ টিউব, ব্রয়লার, ডাইসসহ নানা ধরনের হালকা যন্ত্রপাতি বিদেশে রপ্তানি হয়। নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, অস্ট্রিয়া, ফ্রান্স, ভারত, চীন, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ানসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হয় এসব পণ্য।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow