শিরোনাম
প্রকাশ : ২ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৯:৪০
প্রিন্ট করুন printer

সিলেটে হত্যা মামলায় তিন জনের যাবজ্জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

সিলেটে হত্যা মামলায় তিন জনের যাবজ্জীবন

সিলেটে ফরহাদ হোসেন (১৬) নামে এক কিশোর খুনের ঘটনায় তিন আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার সিলেট জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল ও বিশেষ দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. শরিফ উদ্দিন এ রায় প্রদান করেন।

এছাড়াও আসামিদের ২০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। আরেক আসামিকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়েছে। ফরহাদ হোসেন জামালপুর জেলার সরিষা বাড়ি থানার বাইশি দক্ষিণপাড়া গ্রামের আজিম উদ্দিনের ছেলে।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- সিলেটের ওসমানীনগর থানার রনাগলপুর গ্রামের নওয়াব আলীর ছেলে ফয়ছল আহমদ (২০), সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার থানার দুর্গাপুর গ্রামের শৈলেন্দ্র দাসের ছেলে অমল কুমার দাস (২৮) ও ঢাকার কদমতলা থানার শ্যামপুর পালপাড়া গ্রামের হরিপদ দাসের ছেলে সুমন চন্দ্র দাস (২৮)। এসব আসামিদের প্রত্যেকেই পলাতক রয়েছেন। সিলেট নগরীর বিমানবন্দর থানার খাসদবির এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে ফরহাদ আহমদকে খালাস প্রদান করেছেন আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মো. মফুর আলী এবং আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট লাভলী আক্তার, অ্যাডভোকেট আব্দুস সোবহান ও অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খাঁন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, মোবাইল ছিনতাইয়ের একটি ঘটনাকে কেন্দ্র ২০১২ সালের ৬ আগস্ট রাতে সিলেট নগরীর মাছুদিঘীরপাড়ে একটি কলোনির কক্ষে ফরহাদ হোসেনকে খুন করা হয়। এ ঘটনায় কোতোয়ালী থানার লামাবাজার ফাঁড়িতে দায়িত্বরত তৎকালীন এসআই খায়রুল ইসলাম বাদল বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি ৪ জনকে অভিযুক্ত করে কোতোয়ালী থানার তৎকালীন এসআই রকিবুল হক আদালতে চার্জশিট দেন। আদালত অভিযোগ গঠনের পর ২৭ সাক্ষীর মধ্যে ১৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে আজ রায় ঘোষণা করা হয়।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:৩৯
প্রিন্ট করুন printer

কিবরিয়া হত্যা মামলায় আরও চারজনের সাক্ষ্য গ্রহণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

কিবরিয়া হত্যা মামলায় আরও চারজনের সাক্ষ্য গ্রহণ

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকসহ আরও চার জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। আজ বুধবার দুপুরে সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহরিয়ার কবিরের আদালতে তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয় বলে জানিয়েছেন আদালতের পিপি সরওয়ার চৌধুরী আবদাল।

এদিন আদালতে সাক্ষ্য দেন শাহ এএমএস কিবরিয়ার ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. মো আব্দুল্লাহ, ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী রহমত আলী, আব্দুল মতিন ও ইমান আলী। এ নিয়ে ওই মামলায় মোট ১৭১ জন সাক্ষীর মধ্যে ৪৭ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হল।

সাক্ষ্যগ্রহণকালে মামলার আসামির মধ্যে সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, হবিগঞ্জের সাবেক মেয়র জিকে গউছ সহ ১৯ আসামি উপস্থিত ছিলেন। এ মামলায় পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ঠিক করা হয়েছে আগামী ৩ মার্চ।

২০১৫ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার বাদী হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ খানের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালর ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভা শেষে ফেরার পথে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়াসহ ৫ জন। হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মজিদ খান ওই রাতেই হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দু’টি মামলা করেন। ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকারের সময় অর্থমন্ত্রী ছিলেন কিবরিয়া।

তিন দফা তদন্তের পর ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর আরিফুল হক চৌধুরী, জি কে গউছ ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীসহ ১১ জনের নাম যোগ করে ৩২ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেন এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সিলেট অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার মেহেরুন নেছা পারুল।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ০৯:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

আজ বিদ্যুৎ থাকছে না সিলেটের যেসব এলাকায়

সিলেট ব্যুরো

আজ  বিদ্যুৎ থাকছে না সিলেটের যেসব এলাকায়

বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-২, বিউবো, সিলেট দফতরের নিয়ন্ত্রণাধীন ১১ কেভি ফিডারের আওতাধীন সিলেট মহনগরীর বেশ কয়েকটি এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প, উন্নয়নমূলক কাজ ও ১১ কেভি ফিডারের আশে-পাশের গাছ-পালার শাখা-প্রশাখা কর্তন কাজের জন্য আজ বুধবার (২৭ জানুয়ারি) বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

গত শনিবার গণমাধ্যমে প্রেরিত বিদ্যুৎ বিভাগের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বুধবার সকাল ৮টা হতে বিকাল ৫টা পর্যন্ত  নগরীর শিবগঞ্জ, টিলাগড়, মালুয়া হাউজ, গোপালটিলা, সবুজবাগ, শাপলাবাগ, কল্যানপুর, সেনপাড়া, সাদিপুর, হাতিমবাগ, মনিপুরীপাড়া, বাদুরলটকা, লামাপাড়া, সবুজবাগ, রাজপাড়া, সোনারপাড়া, এম.সি কলেজ ও আশে-পাশের এলাকা সমূহে বিদ্যুৎ থাকবে না।

এছাড়া সকাল ৮টা হতে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নগরীর সোনারপাড়া, পূর্বাশা ক্লিনিক, মজুমদারপাড়া, ফরহাদ খা পুল, দর্জিপাড়া, দাদাপীর মাজার, খারপাড়া, হোটেল সুপ্রিম, টিএনটি কলোনী, বিদ্যুৎ অফিসসহ আশপাশ এলাকায়ও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

উন্নয়ন কাজের দিনগুলোতে নির্ধারিত সময়ের আগে কাজ শেষে হলে তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করা হবে। বিদ্যুৎ গ্রাহকদের এই সাময়িক অসুবিধার জন্য বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ০১:৫৩
আপডেট : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১০:৪৯
প্রিন্ট করুন printer

সিলেটে একদিনে বদলে গেলো করোনাক্রান্ত ২৫ লন্ডনির রিপোর্ট!

সিলেট ব্যুরো

সিলেটে একদিনে বদলে গেলো করোনাক্রান্ত ২৫ লন্ডনির রিপোর্ট!

সিলেটে একদিনে বদলে গেছে করোনাক্রান্ত ২৫ লন্ডনির টেস্টের রিপোর্ট। দ্বিতীয় দফা নমুনা পরীক্ষায় তারা নেগেটিভ হয়েছেন। মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়োটেকনোলজি বিভাগের (জিইবি) আরটি-পিসিআর ল্যাবে এ ২৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়।  

এর আগে যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে আসা ২৯ জন প্রবাসীর শরীরে মহামারি করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পড়ে। প্রথমবার সীমান্তিকের ল্যাবে তাদের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিলো। ২৫ প্রবাসীর টেস্টের রিপোর্ট 'নেগেটিভ' আসার বিষয়টি মঙ্গলবার রাত ১১টায় নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয়  কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান।

তিনি বলেন, গত ২১ জানুয়ারি যুক্তরাজ্য থেকে বাংলাদেশ বিমানের বিজি-২০২ ফ্লাইটে সিলেটে আসেন ১৫৭ জন প্রবাসী। রবিবার তাদের নমুনা সংগ্রহ করে সীমান্তিকের ল্যাবে পরীক্ষা করা হলে ২৮ জন করোনা আক্রান্ত বলে শনাক্ত হন। এর আগে আসা আরেকজনের শরীরেও ধরা পড়ে করোনা। এ ২৯ জনের নমুনা মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফা পরীক্ষা করা হয় শাবিপ্রবির ল্যাবে। দ্বিতীয় বার তাদের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

একদিনের ব্যবধানে রিপোর্ট পরিবর্তনের বিষয়ে ডা. আনিসুর রহমান বলেন, এটি অস্বাভাবিক নয়। বিভিন্ন কারণে একদিনের ব্যবধানে রিপোর্ট বদলাতে পারে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কারণগুলো হচ্ছে- আগে ঠিকমতো নিয়ম মেনে স্যাম্পল কালেকশন করা হয়নি। টেস্ট প্রক্রিয়া ইরোরও হতে পারে। অথবা ল্যাবেও সমস্যা থাকতে পারে। সর্বোপরি- ১৪ দিনের আগেও অনেকে করোনামুক্ত হতে পারেন।

উল্লেখ্য, যুক্তরাজ্য থেকে আসা সিলেটের ২৯ জন প্রবাসী মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবরে উদ্বীগ্ন স্বাস্থ্যবিভাগও। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ওই প্রবাসীদের শারীরিক তথ্য ও প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করতে ঢাকা থেকে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) একটি বিশেষ টিম এসেছে সিলেটে। ৭ সদস্যের ওই টিম মঙ্গলবার দুপুরে সিলেটে এসে পৌঁছায়।

বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল। তিনি জানান, আইইডিসিআরের টিম করোনাক্রান্ত প্রবাসীদের শারীরিক তথ্য ও প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করবে। তারপর সেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবেন তারা।

এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ মো. ময়নুল হক বলেন, যুক্তরাজ্যফেরত যাত্রীদের শরীরে শনাক্ত হওয়া ভাইরাস করোনার নতুন স্ট্রেইন হওয়ার শঙ্কা আছে, যেহেতু তারা যুক্তরাজ্য থেকে এসেছেন। তারা নতুন স্ট্রেইন বহন করছেন কীনা, তা জানতে বাংলাদেশ সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে ডিএনএ সিকোয়েন্সিংয়ের প্রয়োজন।

এদিকে, করোনায় আক্রান্ত যুক্তরাজ্য প্রবাসীদের মধ্যে ২৫ জনের দ্বিতীয় করোনা টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসলেও তাদের কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়া পাওয়ার বিষয়ে বুধবার (২৭ জানুয়ারী) সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।  


বিডী-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:৪০
প্রিন্ট করুন printer

মায়ের অভিযোগে যুবকের কবল থেকে মেয়েকে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট:

মায়ের অভিযোগে যুবকের কবল থেকে মেয়েকে উদ্ধার

সিলেটে মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে এক যুবকের কবল থেকে ‘অপহৃত’ কিশোরীকে (১৭) উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সিলেট মহানগরীর জালালাবাদ থানার আখালিয়া নোয়াপাড়া থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার ও মামলার আসামি অলক তালুকদারকে (২০) আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ভিকটিমের মা জালালাবাদ থানায় অপহরণ মামলা করেন। মামলার এজাহারে তিনি বলেন, গত ২৪ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টার দিকে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই থানার সমিপুর গ্রামের মৃত অনিল তালুকদারের ছেলে অলক তালুকদার তার নাবালিকা মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অলক তালুকদার বর্তমানে জালালাবাদ থানার আখালিয়া নোয়াপাড়া এলাকার আশরাফের কলোনিতে বসবাস করছে। কিশোরীটিকে অপহরণ করে সে ওই কলোনির বাসায় রেখেছে। মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে কিশোরীকে উদ্ধার ও মামলার আসামিকে গ্রেফতার করে বলে জানিয়েছেন জালালাবাদ থানার ওসি মো. নাজমুল হুদা খান। 

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:২৯
প্রিন্ট করুন printer

কন্দাল ফসল চাষে ভাগ্য বদলাতে পারে কৃষকের

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি:

কন্দাল ফসল চাষে ভাগ্য বদলাতে পারে কৃষকের

কন্দাল ফসল চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তারা। এই ফসল উন্নয়নের আওতায় মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) মাঠ দিবসের আয়োজন করে উপজেলা কৃষি অফিস। ওইদিন দুপুরে স্থানীয় দেওকলস ইউনিয়নের আলাপুর গ্রামে এই মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। 

গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি মো. মজম্মিল হোসেনের সভাপতিত্বে উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মনোজ কান্তি’র পরিচালনায় মাঠ দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমজান আলী। বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘কন্দাল ফসল লতিরাজ কচু খুবই উপকারী সবজি। ধানী জমি বা পরিত্যক্ত স্যাঁতস্যাঁতে যেকোন জায়গায় সহজেই অল্প পুঁজি ও পরিশ্রমে এ সবজি চাষ করা সম্ভব। কচুর লতি, কন্দমূল, ডাটা ও পাতা সবই খাবার উপযোগী। এতে মানবদেহের উপকারী গুণাগুণ রয়েছে। তাছাড়া এ সবজি চাষে পুঁজির অধিক মুনাফা করা সম্ভব।’ 

রমজান আলী আরও বলেন, ‘একজন আদর্শ কৃষকের জন্যে একটি এলাকা পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে। কারণ ওই কৃষকই হচ্ছেন সবচেয়ে বড় সম্প্রসারণ কর্মী। প্রত্যেক ইউনিয়নে একজন আদর্শ কৃষক তৈরী হলে তার কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে উপকৃত হতে পারেন অসংখ্য কৃষক। কৃষকদের জন্যে আমাদের পরামর্শ ও সহযোগিতা সবসময় অব্যাহত আছে এবং থাকবে। কৃষিক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। আমরা চাই কৃষিক্ষেত্রে প্রত্যেকেই সফলতা অর্জন করুক। কৃষকদের হাসিই আমাদের প্রাপ্য।’  

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্বনাথ সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিইউজে) সভাপতি সাইফুল ইসলাম বেগ, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ফয়জুল ইসলাম, মেঘনা লাইফ ইন্স্যুরেন্স বিশ্বনাথ শাখার ব্যবস্থাপক এইচএম সেলিম আহমদ, কৃষক জাকারিয়া শিকদার, সার-বীজ ব্যবসায়ী হাফেজ মো. আমিন মিয়া, কন্দাল ফসল লতিরাজ কচুর সফল চাষী জাবের আহমদ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নুরুন্নবী (দশঘর), জীবন চন্দ্র  দেওকলস), দেওকলস ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান মিনু, কৃষি উদ্যোক্তা কয়ছর আহমদ, মো. নিজাম উদ্দিন, কৃষক সাইফুল হোসেন মোহন, আফরোজ আলী, আবদুর রউফ, সাজাদ মিয়া, ফরিদ আলী, আবদুল ওয়াহিদ, মকদ্দুছ আলী, ইকবাল হোসেন, মোজাক্কির হোসেন বাবুল, সাইদুর রহমান, গয়াছ আলী, সাব্বির রহমান, কৃষাণী নেহার বেগম, লিপি বেগম, রুহেলা বেগম, ছালেখা বেগম, দিলারা বেগম, মোমেনা খাতুন প্রমুখ।  

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর