শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০১:২৯

জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা কাজের দরপ্রস্তাব অনুমোদন

ব্যয় হবে এক হাজার ৮১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা কাজের দরপ্রস্তাব অনুমোদন

দেশে জাপানি বিনিয়োগকারীদের জন্য নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে এক হাজার একর জমিতে গড়ে উঠছে অর্থনৈতিক অঞ্চল। এ অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভূমি উন্নয়ন কাজসহ অন্যান্য অবকাঠামোগত কাজ বাস্তবায়ন করবে জাপানের সবচেয়ে পুরনো নির্মাণ কোম্পানি টোয়া করপোরেশন। এ প্রকল্পে ব্যয় হবে এক হাজার ৮১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রীসভা কমিটির বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

সভা শেষে সাংবাদিকদের অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সারা দেশ ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি। এগুলো হয়ে গেলে যত্রতত্র শিল্প-কারখনা গড়ে উঠবে না। পরিকল্পনাবিহীনভাবে রাস্তাঘাট ও হাটবাজার তৈরি হচ্ছে, এগুলো বন্ধ হবে। কোন জায়গায় কী করলে ঠিক হবে সে অনুযায়ী আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারব। আমরা শহরে আর কোনোভাবে চাপ বাড়াতে চাই না। আমরা চাই শিল্প-কারখানা গ্রামেগঞ্জে হবে। সেখানকার লোক সেখানেই চাকরি করবে। তাদের চাকরির জন্য শহরে আসতে হবে না।’ তিনি বলেন, জাপানি বিনিয়োগকারীদের জন্য নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে এক হাজার ১০ একর জমিতে একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল করছি। এর সব কাজ প্রায় শেষ। আমরা এখন ভূমি উন্নয়নে কাজ করব। ভূমি উন্নয়ন কাজসহ অন্য অবকাঠামোগত কাজ করবে জাপানের নির্মাণ কোম্পানি টোয়া করপোরেশন। এতে খরচ হবে এক হাজার ৮১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। আড়াইহাজারে জাপানিদের জন্য বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বড় বিনিয়োগ আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন অর্থমন্ত্রী।

বৈঠকে ২০ লাখ মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) কেনার একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে খরচ হবে ৫৩ কোটি ৪ লাখ ৫৫ হাজার ২৫৭ টাকা। এ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, খুব অল্প সময়ের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী ই-পাসপোর্ট উদ্বোধন করবেন। কিন্তু স্বারাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৈঠকে জানিয়েছে ই-পাসপোর্ট চালু হতে আরও দুই থেকে তিন মাস সময় লাগবে। প্রথম দিকে দিনে ৫০০ ই-পাসপোর্ট দেওয়া হবে, পরে এটি বাড়িয়ে ২ হাজার করে দেবে বলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানি জানিয়েছে।

গতকালের বৈঠকে আশুগঞ্জ-আখাউড়া স্থলবন্দর মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীতকরণ শীর্ষক তিনটি দরপ্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ৫৬৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর