শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:০৪

মিন্নির জামিন বাতিল

তদন্তের নির্দেশ পুলিশকে

বরগুনা প্রতিনিধি

তদন্তের নির্দেশ পুলিশকে

বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ রিফাত ওরফে রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় জামিনে থাকা স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের বিষয়ে পুলিশকে আগামী সাত দিনের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। গতকাল মিন্নির জামিন বাতিলের বিষয়ে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে এ নির্দেশনা দেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। এর আগে ৮ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার সাক্ষীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে রাষ্ট্রপক্ষ  মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করে। মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, ‘রিফাত হত্যা মামলায় সাক্ষীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে ৮ জানুয়ারি রাষ্ট্রপক্ষ মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করে। পরে বিজ্ঞ আদালত মিন্নির জামিন কেন বাতিল করা হবে না সে মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিস দেয়। ১৫ জানুয়ারি আমরা নোটিসের জবাব দিলে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জামিন বাতিলের শুনানি পিছিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি নির্ধারণ করা হয়। এদিন উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আগামী সাত দিনের মধ্যে বরগুনা সদর থানার ওসিকে ঘটনা তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয় আদালত।’

পুলিশের কাছে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়ায় নাম উল্লেখ না করার শর্তে কয়েকজন মন্তব্য করেন, পুলিশের ভূমিকা এই মামলায় শুরু থেকেই পক্ষপাতমূলক, উদ্দেশ্যমূলক। সেখানে মিন্নির বিরুদ্ধে আনা অসত্য অভিযোগ পুলিশ কীভাবে সঠিক তদন্ত করবে? পুলিশ তো প্রকৃত হত্যাকারীদের চেয়ে মিন্নির সাজার ব্যাপারে আগ্রহী বেশি।

এ ব্যাপারে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হক কিশোর বলেন, ‘মিডিয়ায় কথা বলতেই তো ভয় করছে। আমি নিজেও আতঙ্কের মধ্যে আর নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। আল্লাহর ওপর ভরসা। তিনিই বিচারের মালিক।’

তিনি বলেন, ‘মিন্নি সাক্ষীদের হুমকি দিয়েছে এটা হাস্যকর ছাড়া আর কিছুই না। আমরা আশা করি পুলিশ প্রশাসন সঠিক তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করবে।’

গত বছর ১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুই ভাগে বিভক্ত অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেয় পুলিশ। একই সঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। অন্যদিকে ৮ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনার শিশু আদালত।

এ মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক। এ ছাড়া রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি ও অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামি প্রিন্স মোল্লা উচ্চ আদালতের আদেশে জামিনে রয়েছেন। আর বরগুনার শিশু আদালতের আদেশে জামিনে রয়েছেন মারুফ মল্লিক, আরিয়ান হোসেন শ্রাবণ, মো. নাজমুল হাসান ও রাতুল শিকদার জয়।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর