শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১২:১২
আপডেট : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১২:৪২

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষ কি অচ্ছুৎ কিছু!

সেরীন ফেরদৌস

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষ কি অচ্ছুৎ কিছু!

কভিড-১৯ বা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষ কি অচ্ছুৎ কিছু! না কি সাধারণ মানুষের মনে তাদের নিয়ে কোনো বিরাট ভীতি আছে! কিছু ভীতি তো আছেই, সেটাকে না বাড়ানোই তো ভালো! বাড়ানো যায় সতর্কতা, বাড়ানো যায় সেবা, কমানো দরকার ঘৃণা ও ভীতি!

কোথাও করোনা আক্রান্ত রোগী সনাক্ত হবার পর ওই বাড়ি, অ্যাপার্টমেন্ট এমন কি পাড়া মহল্লা ‘লকডাউন’ করে দেয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে, লাল পতাকা সেঁটে দেয়া হচ্ছে! একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রও ‘লক ডাউন’ করে দেয়া হয়েছে বলে পত্রিকা থেকে শুনতে পেলাম! কি কাণ্ড! তাহলে সচিবালয়ে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কেউ আক্রান্ত হলে সেগুলোও কি লকডাউন করা হবে! হাসপাতাল! হ্যাঁ, সাধারণত কোনো শহর বা দেশ লকডাউন করতে দেখা যায়, যাতে প্রচুর অনিয়ন্ত্রিত মানুষকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়ি বা বিল্ডিং বা পাড়া কি যুক্তিতে লক ডাউন করা হয় তার পরিষ্কার কোনো ব্যাখ্যা কোথাও পাওয়া যায়নি। হতে পারে সতর্কতা হিসেবে এটি করা হয়। কিন্তু এই ধরনের পদক্ষেপের অত্যন্ত নেতিবাচক একটা দিক আছে। বাড়ী লকডাউন করে বা লাল পতাকা উড়িয়ে দিয়ে আক্রান্ত ব্যক্তিটি সম্পর্কে ভীতি কিংবা তার প্রতি ঘৃণা ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে কি না কিংবা আক্রান্ত ব্যক্তিকে/ পরিবারকে মানসিক ও সামাজিক পীড়নের মধ্যে ফেলা হচ্ছে কি না সেটাও বিবেচনায় রাখা এই মুহূর্তে জরুরি!

করোনাভাইরাস সারা বিশ্বেই নতুন একটি উপসর্গ। এমনিতেই মানুষের মধ্যে এটি নিয়ে এক ধরনের সংশয়/ মৃত্যুভীতি আছে। ফলে যে কোনো আক্রান্ত ব্যক্তিই মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। তার পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজনদের মধ্যে এক ধরনের মানসিক ও সামাজিক চাপ তৈরি হয়। এই সময়ে তাদের এবং তাদের পরিবারের জন্য প্রয়োজন প্রতিবেশী-আত্মীয়স্বজন-বন্ধুবান্ধবের সহযোগিতা, সহমর্মিতা ও সাহায্য। তাদেরকে বাড়ির ভেতর ঢুকে গিয়ে সাহায্য সহযোগিতা করতে হবে এমন নয়। কিন্তু তাদের বাজার, ওষুধ আরও নানা পারিবারিক সাহায্য তো লাগতে পারে। তাই আচরণে, দৃষ্টিভঙ্গিতে মানবিকতা প্রকাশ করাই তো ধর্ম!

করোনা অত্যন্ত ছোঁয়াচে। কিন্তু আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে সরাসরি স্পর্শে না এলে এবং সেই স্পর্শের পর নিজের নাক, মুখ বা চোখে হাত না দিলে ভাইরাস প্রবাহিত হতে পারে না। সে কারণেই বিভিন্ন দেশে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের নিজ বাড়িতে রেখেও চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যানুসারে, করোনা আক্রান্ত ৮০ শতাংশই ‍সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন, তাদের সিংহভাগকে হাসপাতালে নিতেই হয় না। শারীরিক অন্যান্য উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসারত ব্যক্তিদের বা যাদের শ্বাসকষ্ট চরমে, তাদেরই কেবল হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে!

করোনা আক্রান্ত কোনো ব্যক্তিকে বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দিলে পাশের বাড়িতে কিংবা পুরো বিল্ডিং এ ভাইরাস ছড়িয়ে পরবে- এমন আশংকার বৈজ্ঞানিক কোনো যুক্তি নাই।

একটি পরিবারে কেউ একজনের কোভিড-১৯ টেস্ট পজেটিভ হলে (অথবা সব লক্ষণ দেখা গেলে), ধরে নেয়া যায় যে, পরিবারের অন্যান্যদেরকেও তা সংক্রামিত করে থাকতে পারে। এবং সম্ভাব্য সংক্রমণের শিকারদের ভেতর কেউ কেউ কখনোই আক্রান্ত না-ও
হতে পারেন (এ্যা-সিম্পটোম্যাটিক), আবার কেউ কেউ হতে পারেন!

এখন কথা হলো, কোন উপায়ে তাঁরা বাসায় থাকার ব্যাপারটা মেইনটেইন করবেন! সবাই জানেন, তারপরও মনে করিয়ে দেয়া আর কি! রোগীর অবস্থা যদি অনেক বেশি খারাপ না হয়ে যায়, তাহলে রোগী নিশ্চিন্তে বাসায়ই থাকতে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তি (যার উপসর্গগুলো সুস্পষ্ট) অবশ্যই নিজেকে একটি রুমের ভেতর বা রুমের অভাব দেখা দিলে ঘরের কোণে স্বল্প পরিসরে আবদ্ধ রাখবেন। প্রথম ও প্রধান কাজ হলো রোগী নিজে মাস্ক ব্যবহার করবেন, একট নির্দিষ্ট জায়গায় অবস্থান নেবেন ও ঘন ঘন হাত ধোবেন। রোগী যে সমস্ত জায়গা ছোঁবেন, সেগুলোতে নিয়মিত ডিসিইনফ্যাক্ট্যন্ট দিয়ে পরিষ্কার করবেন। নিতান্ত দরকার না হলে মুখোমুখি কারো সাথে কথা বলবেন না, ছোঁয়াছুঁয়ি সর্বনিম্ন পর্যায়ে রাখবেন। ঘরের বাকিদের মধ্যে একজন/ দুইজন অত্যন্ত সাবধানতার সাথে রোগীকে খাদ্য-পথ্য-দরকারি সেবা-ওষুধ দেবেন, আর নিজেদের প্রটোকল রক্ষা করবেন।

একটি সভ্য সমাজে রোগীর বাড়িতে লাল পতাকা গেড়ে দেয়াটা অত্যন্ত অমানবিক! এর মাধ্যমে সামাজিকভাবে অনেকটা শত্রু হিসেবে চিহ্নিতকরণ করা হয়। তাতে ঘৃণা বাড়ে, রোগী আর তার পরিবারের প্রতি হিংস্র হয়ে উঠবার আশঙ্কা দেখা দেয়! আর “লকডাউন” একটি নেগেটিভ শব্দও বটে! এর অতিরিক্ত ব্যবহার উল্টো অর্থ বহন করে এবং সামাজিক-মনস্তাত্তিক প্রবল চাপ তৈরি করে। তার চাইতে “ব্যক্তিগত দূরত্ব”/ “সামাজিক দূরত্ব” এইগুলো পজেটিভ শব্দ! করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় এবং প্রতিরোধে পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গি এবং মানসিকতা অতি জরুরি।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক: কানাডার কমিউনিটি নার্স

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য