শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ জুলাই, ২০১৯ ০০:১৯

শিকলবন্দী জীবন!

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

শিকলবন্দী জীবন!

১১ বছর ধরে শিকলবন্দী জীবন কাটছে তার। নাওয়া, খাওয়াও চলে শিকলে বাঁধা অবস্থায়। নেই বোধ শক্তি। অবুঝ নয়নে চেয়ে থাকে সব সময়। ঘরের বারান্দার গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখায় সেখানেই বসে, শুয়ে সময় যাচ্ছে। মানসিক প্রতিবন্ধী এই কিশোরের নাম মুন্না। বয়স ১৮ বছর। বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার জাবর হাট গ্রামে। মুন্নার মা মনোয়ারা বেগম বলেন, ‘অভাবের সংসার। অর্থের অভাবে ছেলের উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছি না। মুন্নার বয়স যখন ৭ বছর তখন সে মানসিক ভারসাম্য হারায়। ছেলের চিকিৎসার জন্য সহায়-সম্বল সব বিক্রি করেছি। কিন্তু সুস্থ হয়ে ওঠেনি। মুন্নার বাবা মুনসুর আলী পেশায় শ্রমিক। তার একার আয়ে চলে সংসার। মনসুর আলী বলেন, ‘প্রতিদিন কাজ করে ৩০০-৪০০ টাকা পারিশ্রমিক জুটে। এই টাকা থেকে দিনে ১০০ টাকার ওষুধ কিনি মুন্নার জন্য। বাকি টাকায় কোনোমতে চলে সংসার। ছেলের পায়ে শিকল পরানো বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মুন্না হঠাৎ রেগে যায়। মানুষকে মারধর করে। এতে গ্রামবাসী বিরক্ত। ছেলেকে নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য পায়ে শিকল বেঁধে দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় জাবরহাট ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির জানান, ‘মুন্নাকে উন্নত চিকিৎসা গেলে সে সুস্থ হতে পারে। তিনি চিকিৎসা সহায়তারও আশ্বাস দেন। পীরগঞ্জের ইউএনও এডাব্লিউএম রায়হান শাহ বলেন, ‘মুন্নার চিকিৎসার ব্যবস্থা নেবেন তিনি।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর