শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:১৩

শিবগঞ্জে নৌকা ও ধানের শীষের জোর প্রচারণা, লাঙল নিষ্ক্রিয়

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

শিবগঞ্জে নৌকা ও ধানের শীষের জোর প্রচারণা, লাঙল নিষ্ক্রিয়

শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোট গ্রহণ। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা জোরদার প্রচারণা চালাচ্ছেন। তাদের প্রতিশ্রুতি আর প্রচার-প্রচারণায় পুরো পৌর এলাকা মুখরিত। পোস্টার ও ব্যানারে ছেয়ে গেছে অলিগলি। ভোটাররা বলছেন, যিনি আধুনিক পৌরসভা গড়ে তুলবেন তাকেই ভোট দেবেন তারা। চায়ের স্টলসহ সব জায়গায়ই চলছে প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা আর জল্পনা-কল্পনা। মাইকিং ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চালানো হচ্ছে অনেক প্রার্থীর প্রচারণা। নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী থাকলেও এখন পর্যন্ত মাঠ কাঁপাচ্ছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। জাতীয় পার্টির প্রচারণা চোখে পড়ছে না। মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সৈয়দ মনিরুল ইসলাম, বিএনপির ওজিউল ইসলাম (ওজুল মিঞা) ও জাতীয় পার্টির আফজাল হোসেন। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সৈয়দ মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘পৌরবাসীকে সঙ্গে নিয়ে গড়ে তুলতে চাই একটি উন্নত আধুনিক মডেল ও পরিচ্ছন্ন পৌরসভা।’ তিনি আরও বলেন, ভোটারদের কাছে গিয়ে তাদের আশা-আকাক্সক্ষার কথা শুনেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে যেভাবে উন্নয়ন করেছেন এবার নৌকাকে ভোট দিয়ে নৌকার হাত ধরে এ পৌরসভায় উন্নয়নের ধারা শুরু হবে। মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে ‘তারুণ্য’ নামে একটি সংগঠন গঠন করা হয়েছে, সংগঠনের সদস্যরা বিভিন্ন ওয়ার্ড ও বাড়ি বাড়ি কাজ করছেন। তিনি মেয়র নির্বাচিত হলে শিবগঞ্জ পৌরসভাকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনবেন বলেও প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। ধানের শীষের প্রার্থী ওজিউল ইসলাম (ওজুল মিঞা) বলেন, মানুষ এখনো বিএনপিকে ভালোবাসে। তাই ব্যালটের মাধ্যমে সব অপপ্রচারের জবাব দেবেন তারা। লাঙলের প্রার্থী আফজাল হোসেনের কোনো ধরনের প্রচার-প্রচারণা নেই বললেই চলে। শিবগঞ্জ পৌরসভায় ভোটার ৩২ হাজার ৯৭৯ জন। পুরুষ ১৬ হাজার ৫৪৭ ও নারী ১৬ হাজার ৪৩২ জন। এবার তারা প্রথমবারের মতো ইভিএমের মাধ্যমে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

এদিকে গত রবিবার রাতে নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী অফিসে কে বা কারা ককটেল হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় একটি মামলা করার পর ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধানের শীষের প্রার্থী ওজিউল ইসলাম ওজুল মিঞা তাদের নেতা-কর্মীদের মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন। তবে শিবগঞ্জ থানার ওসি ফরিদ হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় কাউকে কোনো হয়রানি করা হচ্ছে না।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর