শিরোনাম
শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২৩ ০০:০০ টা

ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পাড়ি

দেবাশীষ বিশ্বাস, রাজবাড়ী

ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পাড়ি

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের ছোটভাকলা ইউনিয়নের অন্তারমোড় থেকে ট্রলারে ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পার হন পাবনা জেলার কয়েক গ্রামের মানুষ। পাশাপাশি গোয়ালন্দের রাখালগাছি, কুশাহাটা, বড়সিঙ্গা গ্রামে যাতায়াত করেন  ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে। প্রতিদিন গড়ে ৩ হাজার মানুষ ট্রলারে উত্তাল পদ্মা পাড়ি দেন। ছোটভাকলা ইউপি সূত্রে জানা যায়, প্রতি বছর অন্তারমোড় ঘাট ইজারা দেওয়া হয়। দেখভাল করেন পরিষদ সচিব। সরেজমিনে দেখা যায়, পদ্মা পাড়ি দিতে অনেক যাত্রী অন্তারমোড়ে জড়ো হয়েছেন। এখানে বসার কোনো ব্যবস্থা নেই। টিনের ছাপড়া ঘরে বসে আছেন ইজারাদারের লোক। ঝড়-বৃষ্টিতে দাঁড়ানোর মতোও ব্যবস্থা নেই। ৪০ মিনিট পরপর ঘাট থেকে ইঞ্জিনচালিত ট্রলার পাবনার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। যাত্রীরা জানান, প্রায় ছয় বছর ধরে এখানে ট্রলারে মানুষ যাতায়াত করেন। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে ব্যাপক প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। ট্রলারে জীবনরক্ষার সরঞ্জাম রাখা হয় না। অতিরিক্ত যাত্রী তুলতে নিষেধ করলেও ট্রলার মালিকরা শোনেন না। ট্রলারচালক বাবু প্রমাণিক বলেন, এই ঘাট থেকে প্রতিদিন ছয়টি ট্রলার চলাচল করে। জনপ্রতি ৪০ টাকা ভাড়া দিয়ে পাবনাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যায় মানুষ। রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে বর্তমানে ট্রলারে বেশি যাত্রী পারাপার হচ্ছেন। এখানে জীবন রক্ষার কোনো সরঞ্জাম নেই কেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এগুলো লাগে না। দৌলতদিয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ফরিদ বলেন, ওই ঘাট দিয়ে ইঞ্জিনচালিত ট্রলার চলাচল করে। আমি এখানে নতুন এসেছি বেশি কিছু জানি না।

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর