Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৪:৫৮
আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:০১

রাঙামাটির কাউখালীতে ২৩টি দোকান পুড়ে ছাই

রাঙামাটি প্রতিনিধি

রাঙামাটির কাউখালীতে ২৩টি দোকান পুড়ে ছাই

রাঙামাটির কাউখালী উপজেলায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২৩টি দোকান পুড়ে গেছে। বুধবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে কাউখালী উপজেলায় সদর এলাকায় আজম মার্কেট এঘটনা ঘটে। স্থানীয় ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারণে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কাউখালী উপজেলায় সদর এলাকায় আজম মার্কেটের একটি দোকানে হঠাৎ আগুন দেখতে পায় স্থানীয়রা। এ আগুন মুহূর্তে ছড়িয়ে পরে আশেপাশের দোকানে। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে স্থানীয় কাউখালী আর্মি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার মো. সফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর দল। খবর দেওয়া হয় রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসকেও। পরে স্থানীয়দের সহাযোগীতায় সেনাবাহিনী, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস যৌথভাবে চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।

কিন্তু এর আগেই মার্কেটের বেশি কিছু দোকান পুড়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত হয় মো. রমজান (২৫), মো. আযাদ (৩০), মো. জাকির (৩৫), মো. ইউছুপ (৩২), মো. সেলিম (২৬), রিপন নাথ দে ( ৩০), সজল (২৫), সধ্যবধি বড়ুয়া (৬০) দিপেন (৩৮), সুজন চৌধুরী, (৪০), বিমল শীল (৪০) মো. কুরবান আলী (৩৫), ডাঃ সুপ্রীয় বড়ুয়া (৪০) , শ্যামল (৩০), ঝন্টুলাল দে (৪৫), মো. সেলিম (৪৫), টুন্টু লাল দে (৬০), বাপ্পু দে (৪৫), দীপক চাকমা (৪৫), মো. ফেরদাউস (২৫)  মো. আলমগীর (৩০), ধনঞ্জয় দাস (৩২)।

এঘটনায় এক কোটি টাকার বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি ক্ষতিগ্রস্তদের

ক্ষতিগ্রস্ত মো. আযাদ বলেন, প্রায় শেষ রাতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। তখন সবাই ঘুমিয়েছিল। তাই আগুন ভয়াবহ রূপ নিয়েছিল। কিছুই উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। আগুনে সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স রাঙামাটি শাখার সহকারি আঞ্চলিক পরিচালক মো. দিদারুল আলম জানান, খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণের আনতে সক্ষম হয়। ঘটনার তদন্ত করে জানতে পারি বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারণে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য