Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ জুলাই, ২০১৯ ২১:২৬
আপডেট : ২৩ জুলাই, ২০১৯ ২২:৩৯

দিনাজপুরে বজ্রপাতে প্রাণ গেল তিনজনের

দিনাজপুর প্রতিনিধি

দিনাজপুরে বজ্রপাতে প্রাণ গেল তিনজনের

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর ও বিরল উপজেলায় পৃথক ঘটনায় বৃষ্টিপাতের সময় বজ্রপাতে এক মহিলাসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় বজ্রপাতে তিনটি গবাদি পশুও মারা যায়। 

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বজ্রসহ বৃষ্টি শুরুর সময় এসব ঘটনা ঘটে। 

নিহতরা হলেন, জনি দেবনাথ (২২), ধীরোবালা (৬০) ও মোজাহার আলী (৩৫)। জনি দেবনাথ চিরিরবন্দরের আলোকডিহি ইউনিয়নের গছাহার গ্রামের তাঁতীপাড়ার বীরেন্দ্র দেবনাথের ছেলে, ধীরোবালা (৬০) চিরিরবন্দরের আউলিয়াপুকুর ইউনিয়নের মাহাদানী গ্রামের ঝাড়য়াপাড়ার রনজিৎ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী এবং মোজাহার আলী (৩৫) বিরল উপজেলার সদর ইউপি’র মাধববাটী গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে চিরিরবন্দরের আলোকডিহি ইউপির গছাহার গ্রামের তাঁতীপাড়ায় অন্যের জমিতে কাজ করার সময় বৃষ্টির সাথে হঠাৎ বজ্রপাত হলে জনি দেবনাথ ঘটনাস্থলেই মারা যায়। 

অপরদিকে ওই সময়ে চিরিরবন্দরের আউলিয়াপুকুর ইউপির মাহাদানী গ্রামের ঝাড়য়াপাড়ায় মাঠ থেকে গরু আনার সময় বৃষ্টির সাথে হঠাৎ বজ্রপাত হলে ২গরুসহ ধীরোবালা নামে বৃদ্ধার মৃত্যু হয়। 

এদিকে, ওই সময়ে বিরল উপজেলার সদর ইউপি’র মাধববাটী গ্রামে নিজ বাড়ীর উঠানে কাজ করার সময় মোজাহার আলী বজ্রপাতে গুরুত্বর আহত হয়। তাকে উদ্ধার করে দ্রুত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সন্ধ্যার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়। 

এছাড়া উপজেলার ভান্ডারা ইউপি’র বালান্দোর পাগলাপাড়া গ্রামের রিয়াজুল ইসলামের একটি গবাদী পশু (ষাঁড় গরু) বজ্রপাতে মারা গেছে বলে জানাগেছে।  

চিরিরবন্দর থানার ওসি মো. হারেসুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের সময় শ্রমিক জনি দেবনাথ ও বৃদ্ধা ধীরোবালা বজ্রপাতে মারা যায়। এসময় বজ্রপাতে হটি গরুও মারা যায়। 

অপরদিকে বিরল থানার ওসি এটিএম গোলাম রসুল বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিরলের মাধববাটী গ্রামে নিজ বাড়ির উঠানে কাজ করার সময় মোজাহার আলী বজ্রপাতে গুরুত্বর আহত হয়। উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সন্ধ্যার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।

বিডি-প্রতিদিন/মাহবুব/হিমেল


আপনার মন্তব্য