শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৯:৩৪

কুড়িগ্রামে পিতার বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে কন্যার সংবাদ সম্মেলন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

কুড়িগ্রামে পিতার বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে
কন্যার সংবাদ সম্মেলন

কুড়িগ্রামের উলিপুরে নিজ পিতার বিরুদ্ধে কন্যাসহ পরিবারের সদস্যদের হত্যার চেষ্টার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে প্রেস ক্লাব উলিপুরের হলরুমে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে পিতার বিরুদ্ধে জমি দখল ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগ আনেন কন্যা মমতাজ বেগম।

উলিপুর উপজেলার ধরনীবাড়ী ইউনিয়নের পন্ডিতপাড়া গ্রামের আসাদুজ্জামান মঞ্জুর কন্যা মমতাজ বেগম (৩৬) অভিযোগ করে বলেন, তার পিতা কয়েক বছর আগে মা রুবিনা বেগমকে (৫৫) মৌখিকভাবে তালাক দেন এবং অন্যত্র দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এরপর প্রথম স্ত্রী রুবিনা বেগম, কন্যা মমতাজ বেগম ও নাতনি নুসরাত জাহানকে (১২) বাড়ি থেকে বের করে দেন তার পিতা। মমতাজ বেগম পাশেই তার কেনা জমিতে মা-মেয়ে ও স্বামীসহ বসবাস করে আসছিলেন। পরবর্তীতে কাজের সন্ধানে মমতাজ বেগম তার স্বামী-সন্তানসহ ঢাকায় চলে যান।

এরপর গত ঈদুল আযহার সময় বাড়িতে আসেন। ঈদের দিন রাতে আচমকা পিতা আসাদুজ্জামান মঞ্জু ও তার সহযোগী কয়েকজন মমতাজ বেগমের বাড়িতে ঢুকে ঘরের আসবাবপত্রসহ জিনিসপত্র ভাংচুর করে। এ সময় তাদের বাধা দিলে হামলাকারীরা কন্যা মমতাজ বেগম ও তার স্বামী হাছিনুর রহমানকে দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। তার মা রুবিনা বেগম এগিয়ে এলে তাকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে।

সম্মেলনে তার মা রুবিনা বেগম জানান, ঘটনার সময় ৯৯৯ এ ফোন করলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদের অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এছাড়াও এরশাদুল হক নামের একজনকে আটক করা হয়। মমতাজ বেগম অভিযোগ করে বলেন, আমার মা রুবিনা বেগমের অবস্থা আশংকাজনক হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন চিকিৎসক।

এরপর আমি গুরুতর অসুস্থ থাকায় আমার কন্যা নুসরাত জাহানের মাধ্যমে উলিপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করি। এরপর থেকে আমার পিতা আদালতে জামিন নিতে গেলে তার জামিন না মঞ্জুর করেন আদালত। মামলা তুলে নেয়ার জন্য এজাহারভুক্ত আসামীরা আমাদের পরিবারের সদস্যদেরকে প্রাণনাশের হুমকি প্রতিনিয়তই দিয়ে আসছেন। 

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর