শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:০৯
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৬:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

''সামিয়া রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের জালটা সূক্ষ্মভাবে বোনা হয়েছিলো''

মিলি সুলতানা

''সামিয়া রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের জালটা সূক্ষ্মভাবে বোনা হয়েছিলো''
সামিয়া রহমান

মিডিয়া ব্যক্তিত্ব এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সামিয়া রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের জালটা অতি মেধাবী কারিগরদের সমন্বয়ে সূক্ষ্মভাবে বোনা হয়েছিলো। শিকাগো ইউনিভার্সিটির পক্ষ থেকে আনা প্লেজারিজমের অভিযোগের ভিত্তিতে সামিয়ার বিরুদ্ধে যে শাস্তি ঘোষিত হল, তাঁকে পদাবনতির মতো অসম্মানজনক পরিণতির মুখে ঠেলে দেয়া হল, সেই চিঠিটাই ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়েছে। সামিয়া রহমান রহমান শিকাগো ইউনিভার্সিটির সাথে যোগাযোগ করার পর থলের বিড়াল বেরিয়ে এলো। শিকাগো জার্নালের এডিটর ক্রেইগ ওয়াকার সামিয়াকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন, অ্যালেক্স মার্টিন বলে তাদের ইউনিভার্সিটিতে কোনো ব্যক্তির অস্তিত্ব নেই। পুরো চিঠিটাই ভুয়া, অ্যালেক্স মার্টিন নামটাও ভুয়া। একটা মিথ্যা চিঠি দিয়ে সামিয়াকে ফাঁসানো হয়েছে।

সামিয়া রহমানের নিন্দুকের সংখ্যা শুধু এখানেই শেষ নয়। সামিয়ার নিন্দুকের এই টাইটানিক বহরটি অনেক আগে থেকেই তাদের মিশনে নেমে গিয়েছে। সামিয়া রহমান কেন অনেকের চক্ষুশূল হয়ে উঠেছিলেন, তার কিছু কারণ  উদঘাটন করেছি, (১) সামিয়া রহমান অনার্স এবং মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে গোল্ড মেডেল পাওয়া ব্যক্তি। (২) সামিয়া অত্যন্ত স্মার্ট সুদর্শনা। তার আকর্ষণীয় বাচনভঙ্গির ধারে কাছে কেউ যেতে পারেনি। (৩) সামিয়া খুব ফ্যাশনেবল। তার ফ্যাশনে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের এক দুর্লভ কম্বিনেশন। যা দেখলে অনেকের কলিজায় আগুন জ্বলে। তারা শত চেষ্টা করেও সামিয়ার মত ফ্যাশন সচেতন হতে পারবে না। (৪) ফ্যাশন সচেতন সামিয়ার হেয়ার স্টাইল তাদের অনেকের কাছে আজব মনে হয়। (৫) ইংরেজিতে সামিয়ার আছে দুর্দান্ত দক্ষতা। ক্লাসে তিনি তার ছাত্রছাত্রীদের সুনিপুণ স্টাইলে পড়ান বলে পুরো ডিপার্টমেন্টের সকল ছাত্রছাত্রীদের কাছে সামিয়া একজন আইকন। ছাত্রছাত্রীরা তাদের শিক্ষক সামিয়ার প্রতুৎপন্নমতিতার জন্য তার ভক্ত হয়ে গেছে। এটাও সামিয়াকে হিংসার আরেকটা কারণ। 

জনপ্রিয়তার মাপকাঠিতে সামিয়াই সবার শীর্ষে থাকবেন। তাই অনেকের গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। তাই তো "মুখুজ্জে বাড়ির মুখুজ্জেরা" সামিয়ার ঠ্যাঙ টেনে ধরে হলেও তাকে নিচে নামিয়ে আনার বিশেষ মেয়াদি কোর্সটিও কমপ্লিট করেছে। তবে সত্যের জয় হবেই। মিথ্যার রাজত্ব অস্থায়ী। সোশাল মিডিয়াতে সামিয়া রহমান পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার কবলে পড়েছেন। আজকাল আর অবাক হই না নিজেদেরকে নীতিবাদী বলে দাবি করা ব্যক্তিদের মুখে অনৈতিক কথা শুনে। আসলে এরা গরু পার্টির গোবলয় থেকে আমদানি করা কালচারের ধারক ও বাহক। এই ব্যাপারটি নিয়ে আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর