শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১১

আদর্শগত জায়গা থেকে আন্দোলন করছি

------- জুনায়েদ সাকী

নিজস্ব প্রতিবেদক

আদর্শগত জায়গা থেকে আন্দোলন করছি

বাম গণতান্ত্রিক জোটের অন্যতম শরিক গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকী বলেছেন, বাম গণতান্ত্রিক জোট এবং যুক্তফ্রন্ট যে যার আদর্শগত জায়গা থেকে গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন করছি। আমাদের একটি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে। একটা জাতীয় সনদ তৈরি করতে হবে। যার ভিত্তিতে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে জাতীয় ঐকমত্য তৈরি হতে পারে। তবে গণতন্ত্রের আন্দোলনের পথে চলতে গিয়ে যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে জোট হবে কিনা তা সময় বলে দেবে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন জোনায়েদ সাকী। আলাপচারিতায় জোটের রাজনীতি, জনগণের ভোটাধিকার, আগামী নির্বাচন পদ্ধতি, নির্বাচন নিয়ে গণসংহতি আন্দোলনের ভাবনা এবং প্রস্তুতির বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত কথা বলেন তিনি। জোনায়েদ সাকী বলেন, বাম গণতান্ত্রিক জোট আমাদের আদর্শগত ও দীর্ঘমেয়াদি আন্দোলনের জোট। যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে কিছু মিল রয়েছে। আবার অনেক অমিলও রয়েছে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার জন্য যার যার জায়গা থেকে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। গণসংহতির পক্ষ থেকে আমরা তাদের কাছে কিছু প্রস্তাব রেখেছি। কারণ বর্তমান সংকটময় পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক সংলাপ অত্যন্ত জরুরি। সরকার বিষয়টি এড়িয়ে গেলে বৃহত্তর আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায়ের বিকল্প নেই।

যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বাম গণতান্ত্রিক জোটের বৈঠক কবে হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার বৈঠকটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ওইদিন জোটের অর্ধশতাধিক নেতা-কর্মী আহত হওয়ায় বৈঠকটি পিছিয়ে যায়। নতুন করে সময় নির্ধারণ হয়নি। সাকী আরও বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সবাই উদ্বিগ্ন। জনগণের নিরাপত্তা নিয়ে, দেশের নিরাপত্তা নিয়ে সবাই উদ্বিগ্ন। সেদিক থেকে আমরা মনে করি, ঐক্যবদ্ধ কাজের অনেক জায়গা আছে। এই ঐক্যবদ্ধ কাজগুলো কীভাবে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়, সে বিষয় নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটে আলোচনা করা হবে। কীভাবে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের নিরাপত্তা, মানুষের নিরাপত্তা এবং গণতান্ত্রিক সংগ্রাম গড়ে তুলতে পারি সে বিষয়ে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, তফসিল ঘোষণার আগে সংসদ ভেঙে দিয়ে নিরপেক্ষ তদারকি সরকার গঠন, ইভিএম ও ডিজিটাল ভোট ডাকাতির পাঁয়তারা বন্ধ করা, প্রার্থীর জামানত ৫ হাজার টাকা ও নির্বাচনী ব্যয় ৩ লাখ টাকা নির্ধারণ করে কঠোরভাবে তা মেনে চলতে বাধ্য করা, অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার বিধান চালু করা, ভোটারের ইচ্ছায় জনপ্রতিনিধি প্রত্যাহার করা এবং ‘না’ ভোটের বিধান চালু করাসহ স্বতন্ত্র প্রার্থীর ক্ষেত্রে ১ শতাংশ ভোটারের সমর্থনসূচক সইয়ের বিধান বাতিল না করা পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। একই দাবিতে আগামী ৮ অক্টোবর সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করবে বাম গণতান্ত্রিক জোট।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর