শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪৫

শোষণ চিরতরে অবসান হোক

নিজস্ব প্রতিবেদক

শোষণ চিরতরে অবসান হোক
ড. আনিসুজ্জামান

জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান বলেছেন, পৃথিবীর দেশে দেশে সাধারণ মানুষ, চিন্তাবিদরা শান্তি আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করে নিয়েছে। আমরা ঠান্ডাযুদ্ধের দিনগুলো পেছনে ফেলে এসেছি। পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে সন্ত্রাস ও সংঘর্ষ দেখতে পাচ্ছি। আমরা চাই যুদ্ধ ও শোষণ চিরতরে অবসান হোক। গতকাল রাজধানীর কাকরাইলে ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে আয়োজিত বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- নেপাল পিস অ্যান্ড সলিডারিটি কাউন্সিলের কো-অর্ডিনেটর রবীন্দ্র অধিকারী, অল ইন্ডিয়া পিস অ্যান্ড সলিডারিটির প্রবোধ চন্দ্র সিনহা, প্যালেস্টাইনাল পিস অ্যান্ড সলিডারিটির বোর্ড মেম্বার আরওয়া আবু হাসহাস। আনিসুজ্জামান বলেন, দারিদ্র্য, বৈষম্য ও শোষণ মানব সমাজকে ভাগ করে ফেলেছে। যতদিন পর্যন্ত দারিদ্র্য ও শোষণ থাকবে, ততদিন পর্যন্ত পৃথিবীতে স্থায়ী শান্তি আসতে পারবে না। পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে যেসব সংঘাত হচ্ছে তার পেছনে হাত রয়েছে বিশ্বের পরাক্রমশালী রাষ্ট্রের। তারা অস্ত্রসজ্জার কাজ কখনো বন্ধ করেনি। নিজেরা নিরস্ত্রীকরণের দিকে যাচ্ছে না অথচ তারা অন্য দেশকে আহ্বান জানাচ্ছে অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণের জন্য। বিভিন্ন দেশে যে সংঘাত হচ্ছে তার ফলে নর-নারী, শিশু ভয়ঙ্কর অবস্থার মধ্যে পড়েছে। কেউ গৃহহারা হয়েছে, কেউ সন্তানহারা হয়েছে, কেউ আপনজন হারিয়েছে। দুর্গতিতে বাস করছে তারা। বিশ্ব শান্তি পরিষদের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে আমরা সারা পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য আওয়াজ তুলব। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র দেশ। আমাদের ক্ষুদ্র শক্তি দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সর্বময় প্রচেষ্টা চালিয়ে যাব। সম্মেলনে আগামী ২০১৯-২২ মেয়াদের কার্যনির্বাহী কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটিতে সভাপতি হিসেবে রয়েছেন মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু, এ ছাড়া সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান খান ও যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে রয়েছেন হাসান তারিক চৌধুরী। সভাপতির বক্তব্যে মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু বলেন, সারা বিশ্ব আজ অশান্তিকর অবস্থা অতিক্রম করছে। দেশে দেশে কলহ, বিদ্রোহ, দাঙ্গা, উগ্রবাদ, জঙ্গিবাদের উপদ্রব। সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদ, বর্ণবাদ বিশ্বকে আজ আতঙ্কিতই করেনি, বিশ্ব আজ বড় বিপর্যয়ের সম্মুখীন। এ অবস্থা থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করতে শান্তির বিকল্প কিছু নাই।


আপনার মন্তব্য