শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:২৫

চিকিৎসক-পুলিশ পাল্টাপাল্টি বিবৃতি

ইগো বা ক্ষমতার দম্ভ থাকা উচিত নয় : হাই কোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

চিকিৎসক-পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেটের মধ্যে মুভমেন্ট পাস নিয়ে বাকবিতন্ডার ঘটনায় দুই পেশাজীবী সংগঠনের পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেওয়া সমীচীন হয়নি বলে মন্তব্য করেছে হাই কোর্ট। হাই কোর্ট বলেছে, ইগো বা ক্ষমতার দম্ভ থাকা উচিত নয়। সবাইকে দায়িত্বশীল হয়ে পেশাদারিত্ব দেখাতে হবে। গতকাল বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চ এমন মন্তব্য করে।

এর আগে আদালতের কার্যক্রম শুরু হলে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ ওই দিনের ঘটনা এবং দুই সংগঠনের বিবৃতির বিষয়টি নিয়ে আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি এ বিষয়ে আদালতের হস্তক্ষেপ কামনা করে রিট করার অনুমতি চান। তবে অনুমতি প্রার্থনাকারী সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি না হওয়ায় রিটের অনুমতি দেয়নি আদালত। এ সময় বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারক বলেন, ওই ঘটনায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিবৃতি, পাল্টা বিবৃতি দেওয়া অনভিপ্রেত। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছ থেকে সবাই দায়িত্বশীল আচরণ আশা করে। করোনার এই পরিস্থিতিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ প্রজাতন্ত্রের সবাইকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। পারস্পরিক সম্মানবোধ থাকতে হবে। ইগো বা ক্ষমতার দম্ভ থাকা উচিত নয়। সবাইকে দায়িত্বশীল হয়ে পেশাদারিত্ব দেখাতে হবে। আইনজীবীর উদ্দেশে হাই কোর্ট বলে, ‘গতকাল (সোমবার) আপনি এ বিষয় নিয়ে এসেছিলেন। আপনি তো সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি নন। আপনি কেন এসেছেন?’ তখন আইনজীবী ইউনুছ আলী বলেন, ‘আমার মেয়ে একজন চিকিৎসক। এ ছাড়া আত্মীয়স্বজনের মধ্যেও চিকিৎসক রয়েছে।’ এ সময় আদালতে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মেহেদী হাসান চৌধুরী। তখন অ্যাটর্নি জেনারেলও ওই দিনের ঘটনাকে দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেন। পরে অ্যাটর্নি জেনারেলকে উভয়পক্ষের উত্তেজনা প্রশমনে ভূমিকা রাখতে বলে আদালত। লকডাউনে মুভমেন্ট পাস নিয়ে চিকিৎসক-পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেটের বাকবিতন্ডার ঘটনায় দুই পেশাজীবী সংগঠন সোমবার পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেয়। পুলিশের বিরুদ্ধে হেনস্তা ও হয়রানির অভিযোগ তুলে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানায় চিকিৎসকদের সংগঠন বিএমএ। অন্যদিকে পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন থেকে পাল্টা বিবৃতি দিয়ে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ করা হয়। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলা হয়।