শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৩১ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ জুলাই, ২০১৯ ২৩:৫০

মিন্নির জামিন ফের নামঞ্জুর

বরগুনা প্রতিনিধি

মিন্নির জামিন ফের নামঞ্জুর

বরগুনার চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় গ্রেফতার তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন আবেদন জজ আদালতেও নামঞ্জুর হয়েছে। গতকাল জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামান এ আদেশ দেন। এর আগে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মিন্নির জামিনের আবেদন নাকচ হয়েছিল। জজ আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে হাই কোর্টে আপিল করা হবে বলে জানিয়েছেন মিন্নির আইনজীবী। এদিকে মেয়ের জামিন আবেদনের শুনানি চলাকালে অন্য সাধারণ মানুষ আদালতে প্রবেশ করতে পারলেও পুলিশ মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরকে প্রবেশ করতে দেয়নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলেন, ‘আইনজীবী ছাড়াও অনেকে শুনানির সময় আদালতে ঢুকেছে। কিন্তু আমি যতবারই আদালতে প্রবেশের চেষ্টা করেছি, ততবারই পুলিশ আমাকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়েছে।’ ২৬ জুন রিফাতকে প্রকাশ্যে সড়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। সে সময় স্বামীকে বাঁচাতে মিন্নির চেষ্টার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সারা দেশে তোলপাড় হয়। পরদিন রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ ১২ জনকে আসামি করে যে মামলাটি করেন, তাতে মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করা হয়েছিল। সম্প্রতি মিন্নির শ্বশুর তার ছেলের হত্যাকান্ডে পুত্রবধূর জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করলে আলোচনা নতুন দিকে মোড় নেয়। তবে শ্বশুরের অভিযোগ মিন্নি অস্বীকার করেন। এরপর ১৬ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ডেকে নেওয়া হয় জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে। দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর রাতে তাকে রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। গতকাল বেলা ১১টা ১০ মিনিটে জামিনের শুনানি শুরু হয়ে চলে বেলা ৩টা পর্যন্ত। এর মধ্যে ৪০ মিনিটের বিরতিতে যায় আদালত। আদালতে মিন্নির পক্ষে বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী আসলাম শুনানি করেন। এ সময় নুসরাত হত্যা মামলার আলোচিত আইনজীবী ফারুক আহম্মেদসহ ৩০ জন আইনজীবী মিন্নির পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন। বাদীপক্ষে বরগুনার জেলার পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ভুবন চন্দ্র হাওলাদারসহ ৩০ জন আইনজীবী শুনানি করেন।

শুনানিতে মিন্নির আইনজীবী আসলাম বলেন, মিন্নির ১৬৪ ধারার জবানবন্দি যথাযথ প্রক্রিয়ায় নেওয়া হয়নি। মিন্নি ছিলেন এ মামলার প্রধান সাক্ষী। তাকে হঠাৎ করে আসামি বানানো বিস্ময়কর। এ মামলায় মিন্নিকে ফাঁসাতে প্রভাবশালীদের একটি চাপ রয়েছে এটা স্পষ্ট। আইনজীবী আসলাম আরও বলেন, মিন্নির বয়স মাত্র ১৯ বছর। এ ছাড়া তিনি খুবই অসুস্থ। তাই ফৌজদারি কার্যবিধির এ দুটি দিক বিবেচনা করে আদালত তাকে জামিন দিতে পারে। পরে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মিন্নির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন বিচারক। আদেশের পর মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা মিন্নির জামিনের জন্য উচ্চ আদালতে যাচ্ছি।’


আপনার মন্তব্য