শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ অক্টোবর, ২০২০ ২৩:৫২

আস্থাহীনতায় ভোট দিতে যাচ্ছে না মানুষ

-বদিউল আলম মজুমদার

নিজস্ব প্রতিবেদক

আস্থাহীনতায় ভোট দিতে যাচ্ছে না মানুষ

সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, নির্বাচন প্রক্রিয়ার ওপর মানুষের আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের যে ধরনের ভূমিকা পালন করার কথা- ‘যে কোনো মানুষ কোনো বাধা-বিপত্তি ছাড়াই সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষভাবে ভোট দিতে পারবেন।’ কিন্তু নির্বাচন কমিশন তা নিশ্চিত করতে পারেনি। ভোটের ওপর যে আস্থাহীনতা, তা মূলত নির্বাচন কমিশনের ওপর আস্থাহীনতা। এজন্যই মানুষ ভোট দিতে কেন্দ্রে যাচ্ছে না। সদ্যসমাপ্ত ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে মাত্র ১০ দশমিক ৪৩ শতাংশ ভোটার উপস্থিতি ও ভোটের প্রতি মানুষের অনাগ্রহের বিষয়ে গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, এ দেশের মানুষ ভোটপাগল। কিন্তু এমন অবস্থা হয়েছে যে, মানুষ ভোট দিতে গিয়ে ভোট দিতে পারবে না। ভোট দিলেও সঠিকভাবে গণনা হবে না। ভোট দিলেও কিছু আসে যায় না। এমন সন্দেহ মানুষের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে। বদিউল আলম মজুমদার বলেন, নির্বাচন কমিশন নির্বাচনব্যবস্থা ধ্বংস করে জনগণের ভোটাধিকার হরণ করেছে। তারা আইন প্রণয়নের মাধ্যমে নিজেদের স্থায়ীভাবে পঙ্গু করতে চাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, বর্তমান কমিশন তার বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে। কমিশনের বিভিন্ন কার্যক্রমে আমরা নাগরিক হিসেবে উদ্বিগ্ন বোধ করছি। সবচেয়ে পরিতাপের বিষয় হলো, যে কাজে তাদের নিবিষ্ট থাকা দরকার আরপিওসহ বিদ্যমান নির্বাচনী আইনগুলোর সঠিক ও কঠোর প্রয়োগ না করে কমিশন যেন অকাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। বিগত রকিবউদ্দীন কমিশন থেকে শুরু করে যে পরিবর্তন হয়েছে তার দুটি দিক আছে। একটি হচ্ছে নির্বাচনব্যবস্থাকে ধ্বংস করার প্রচেষ্টা। আরেকটি হচ্ছে কমিশনকে দুর্বল করার প্রচেষ্টা। উল্লেখ, সদ্যসমাপ্ত ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে ভোট পড়েছে ১০ দশমিক ৪৩ শতাংশ। নওগাঁয় ভোট পড়েছে ৩৬ দশমিক ৪ শতাংশ। গত মার্চে ঢাকা-১০ আসনের নির্বাচনে ভোট পড়েছিল ৫ দশমিক ২৮ শতাংশ।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর