শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ১৬:৫৮
প্রিন্ট করুন printer

চট্টগ্রামে দুই পৌরসভা নির্বাচন নানা সমীকরণে ‘ঘুরপাক’ মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীরা

সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে দুই পৌরসভা নির্বাচন নানা সমীকরণে ‘ঘুরপাক’ মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীরা

তফসিল ঘোষণার পর থেকেই চট্টগ্রামের দুটি পৌরসভায় শুরু হয়েছে সম্ভাব্য মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীদের কৌশলী প্রচার-প্রচারণা ও নানা সমীকরণ। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ১ম দফায় ২৮ ডিসেম্বর এবং সন্দ্বীপে ২য় দফায় ১৬ জানুয়ারি পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ইতোমধ্যে সীতাকুণ্ড পৌরসভায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি দলীয়ভাবে মেয়র প্রার্থী চূড়ান্তের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশন থেকে মনোনয়ন পত্রও সংগ্রহ করেছেন। কাউন্সিলর পদে দ্বন্দ্বের পাশাপাশি প্রতিটি ওয়ার্ডে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন একাধিক। 

অন্যদিকে সন্দ্বীপ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত করতে জেলায় তালিকা দেয়া হলেও বিএনপির দলীয় মেয়র প্রার্থী মনোনয়নে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের এখনও বৈঠক হয়নি। দলীয় সিদ্ধান্ত এলেই আলোচনার মাধ্যমে যে কোন সময় মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত হতে পারে। তবে ১০ ডিসেম্বর প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত আওয়ামী লীগ-বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থী চূড়ান্ত হওয়া নিয়ে নিশ্চিত কিছু বলা যাচ্ছে না ।

সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ বলেন, আওয়ামী লীগ-বিএনপির ২ জন মেয়র প্রার্থীসহ মোট ৮৬ জন কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। এদের মধ্যে মেয়র প্রার্থী ছাড়া সংরক্ষিত আসনে ১৩ জন ও কাউন্সিলর পদে ৭১ জন। এখানে ইভিএমের মাধ্যমেই প্রথম ভোটগ্রহণ হবে। সে লক্ষেই সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, সীতাকুণ্ডে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ-বিএনপির একক প্রার্থী চূড়ান্ত হলেও, সন্দ্বীপে হয়নি। সন্দ্বীপে মেয়র প্রার্থী নিয়ে কোন্দল না থাকলেও কাউন্সিলর পদে কোন্দল রয়েছে। কেন্দ্রীয়-ভাবে মেয়র প্রার্থীর পাশাপাশি কাউন্সিলর প্রার্থীও চূড়ান্ত করা গেলে কোন্দল কিছুটা কমে আসতো। কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী না হলে দলীয় নেতা-কর্মীদের বিতর্কে জড়িয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে । ভোটাররাও রয়েছেন নানা শঙ্কায়। 

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ সালাম বলেন, দলের পক্ষ থেকে সীতাকুণ্ডে মেয়র পদে বদিউল আলমকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। সন্দ্বীপের প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রীয় কমিটিতে পাঠানো হবে। কেন্দ্রীয় কমিটি যাকেই মনোনয়ন দেবেন তিনিই নির্বাচন করবেন। 

তিনি বলেন, কাউন্সিলর পদে দলীয়ভাবে কাউকে মনোনয়ন দেয়া হচ্ছে না। তাই কাউন্সিলর পদে দলের পক্ষ থেকে কোন একক প্রার্থী নেই। তাছাড়া মেয়র পদে দলের প্রার্থীকে জয়ী করতে সকল নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে বলে জানান তিনি। 

উত্তর জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক সহ-সভাপতি এমএ হালিম বলেন, সীতাকুণ্ডে  মেয়র ও কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী নির্বাচন করছেন। সন্দ্বীপের বিষয়ে আলোচনা চলছে। যে কোন সময় মেয়র প্রার্থী ঘোষণা হবে। তবে কাউন্সিলর পদেও একক প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

দলীয় ও স্থানীয় তৃনমূল সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ২৮ ডিসেম্বর পৌরসভা নির্বাচন ঘিরে শুরু হয়েছে কৌশলী প্রচার-প্রচারণা। এখানে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র বদিউল আলমকে চূড়ান্ত করা হলেও ৯টি ওয়ার্ডে একাধিক কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ায় বিদ্রোহীর সংখ্যাও বেশী রয়েছে। 

এতে স্থানীয় রাজনীতিতে এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতার পৃথক তিনটি মেরুর কারণে ৩টি করে ওয়ার্ড বেছে নিয়ে একক প্রার্থী ঘোষণাও হতে পারে। সেই আলোচনা ও পরিকল্পনার চূড়ান্ত ফল আসবে প্রত্যাহারের শেষ দিনই। অপরদিকে বিএনপির আবুল মনছুরকে মেয়র পদে প্রার্থী ঘোষণার পাশাপাশি দলীয় কাউন্সিলর প্রার্থীও রয়েছেন এককভাবেই। 

অন্যদিকে সন্দ্বীপে ১৬ জানুয়ারি ২য় দফায় পৌরসভা নির্বাচনের দিন-তারিখ ঘোষণা হয়। এই ঘোষণার আগে থেকেই আওয়ামীলীগ-বিএনপির স্থানীয় রাজনীতিতে দলের মেয়র প্রার্থী কে হচ্ছেন, কারা আসতে পারেন সেই আলোচনা চলছে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে। এরই মধ্যে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্তকরণে সন্দ্বীপে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভাও হয়েছে। 

সভায় মেয়র পদে মনোনয়ন দৌড়ে রয়েছেন আছেন বর্তমান মেয়র জাফর উল্যা টিটু, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোক্তাদের মাওলা সেলিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল মাওলা, সন্দ্বীপ উপজেলা চেয়ারম্যান মাস্টার শাহজাহান বিএ’র পুত্র নাদিম শাহ আলমগীরসহ কয়েকজনের নাম। 

অপরদিকে মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থীর বিষয়ে এখনও দলীয় বৈঠক বা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না হলেও আলোচনার পাশাপাশি মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী বিবেচনার জন্য লবিং থেমে নেই। মেয়র পদে আলোচনায় আছেন সন্দ্বীপ পৌর বিএনপির নেতা নাছিরুল কবির মনির, আবুল বশর ভূঁইয়া এবং আলমগীর হোসাইন ঠাকুরসহ বেশ কয়েকজনের নাম। আজ-কালের মধ্যেই সন্দ্বীপ পৌরসভার দলীয় প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত ঘোষণা হতে পারে।

নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, ১৯৯৮ সালে ১ এপ্রিল ২৮ বর্গমাইল আয়তনের নয়টি ওয়ার্ড নিয়ে সীতাকুণ্ড পৌরসভা গঠিত হয়। হালনাগাদ ভোটার তালিকায় পৌরসভায় ভোটার রয়েছেন মোট ভোটার ৩৪ হাজার ৮১৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৭ হাজার ৮২৭ জন। নির্বাচন হবে মোট ১৭টি কেন্দ্রে। ২০১৫ সালের  ৩০ ডিসেম্বর সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। 

অন্যদিকে চট্টগ্রামে ২য় দফায় সন্দ্বীপে পৌরসভার নির্বাচন হবে ১৬ জানুয়ারি। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২০ ডিসেম্বর। বাছাইয়ের শেষ সময় ২২ ডিসেম্বর এবং প্রত্যাহারের শেষ দিন হচ্ছে ২৯ ডিসেম্বর। এর আগে সন্দ্বীপ পৌরসভায় ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর নির্বাচন হয়।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর