শিরোনাম
প্রকাশ : ২ মার্চ, ২০২১ ২০:০৭
প্রিন্ট করুন printer

আগের জিপিএ বহাল রেখে ভর্তি পরীক্ষা নিতে ঢাবি উপাচার্যকে স্মারকলিপি

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

আগের জিপিএ বহাল রেখে ভর্তি পরীক্ষা নিতে ঢাবি উপাচার্যকে স্মারকলিপি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির শর্ত হিসেবে এসএসসি ও এইচএসসি’র জিপিএ-এর ক্ষেত্রে আগের মানদণ্ড বহাল রেখে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার দুপুর একটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কার্যালয়ে স্মারকলিপি পেশ করে তারা। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন সহকারি প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভূঁইয়া এবং সীমা ইসলাম।

এর আগে, বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজুভাস্কর্যের সামনে ‘২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থী’র ব্যানারে একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন শিক্ষার্থীরা। এতে তারা ভর্তির আবেদনের ক্ষেত্রে পূর্বের জিপিএ বহাল রাখতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। তাদের সাথে সংহতি জানান সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট এবং বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী।  

সমাবেশে সিলেটের মদন মোহন কলেজের শিক্ষার্থী সানোয়ার হোসেন বলেন, করোনায় অটোপাসের সিদ্ধান্তের কারণে আমরা আমাদের মেধা যাচাই করতে পারিনি। আমরা ভেবেছিলাম উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় না হলেও অন্তত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় নিজেদের মেধা যাচাইয়ের সুযোগ পাবো। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের ক্ষেত্রে ন্যূনতম জিপিএ শর্ত বৃদ্ধি করায় ভর্তি তো দূরের কথা আবেদনেরই সুযোগ পাচ্ছি না। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের কারণে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের বৃহৎ অংশ এবং আমাদের পরিবার অনেক হতাশ এবং মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। আমরা শুধুমাত্র পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ চাই। 

সমাবেশ শেষে ভর্তিচ্ছুদের একটি মিছিল রোকেয়া হল ও উপাচার্যের বাসভবন হয়ে উপাচার্য কার্যালয়ে গিয়ে স্মারকলিপি প্রদান করে। পরে তারা আগামী ৪ মার্চ বিকেল চারটায় শাহবাগে সংহতি সমাবেশের ঘোষণা দেন। 

উল্লেখ্য, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিষয়ক সাধারণ ভর্তি কমিটির সভায় এবছর সব ইউনিটে ভর্তিপরীক্ষায় আবেদনের জন্য ন্যূনতম জিপিএ বৃদ্ধি করা হয়। এই সিদ্ধান্তের পর থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পূর্বের মানদণ্ডে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা এবং গুচ্ছ পদ্ধতিতে প্রাথমিক বাছাই পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন ভর্তিচ্ছুরা।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর