Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২০:২০

চট্টগ্রামে ‘বায়েজিদ সবুজ উদ্যোন’র উদ্বোধন মঙ্গলবার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রামে ‘বায়েজিদ সবুজ উদ্যোন’র উদ্বোধন মঙ্গলবার

চট্টগ্রামের বায়েজিদ এলাকায় একটি আধুনিক সুযোগ-সুবিধা বিশিষ্ট সবুজ উদ্যোনের উদ্বোধন হচ্ছে মঙ্গলবার। ‘বায়েজিদ সবুজ উদ্যোন’টি দুই একরের বিশাল আকারের এটি সবুজের মাঝে ৪১ টি গাছের প্রজাতির পরিকল্পিত বনায়ন। সুদৃশ্য বসার বেঞ্চের পাশাপাশি রয়েছে ৪ হাজার ফুটের ওয়াকওয়ে। শিশুদের রকমারি খেলনা। আলোর ফোয়ারা। পানির ঝরনাধারা। পতেঙ্গা সৈকত, আগ্রাবাদের জাম্বুরি পার্কের পর এটি হবে নগরবাসীর পছন্দের একটি প্রাকৃতিক বিনোদন কেন্দ্র। 

এ প্রকল্পের অধীনে ২টি সুদৃশ ফটক রয়েছে। বসার বেঞ্চ আছে একক ৩৯টি, দ্বৈত ৭টি। ৬০ ফুট ব্যাসের জলাধারের দুই পাশে উন্মুক্ত গ্যালারি রাখা হয়েছে। জলাধারে পানি রাখা হবে ৩ থেকে সাড়ে ৩ ফুট। ১ হাজার ২০০ ফুট সীমানাপ্রাচীর রয়েছে। পার্কে আসা লোকজনের জন্য নারী-পুরষের আলাদা টয়লেট রয়েছে। উদ্যানটি ২৪ ঘণ্টা সিসিটিভি ক্যামেরায় মনিটরিং হবে বলে গণপূর্ত অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

নগরীর বায়েজিদ থানাধীন সেনানিবাসের বাম পাশে ‘বায়েজিদ সবুজ উদ্যান’টির উদ্বোধন হবে মঙ্গলবার সকাল ১১টায়। এটি উদ্বোধন করবেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি। বিশেষ অতিথি থাকবেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন, ব্যরিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি, মঈন উদ্দিন খান বাদল এমপি এবং চট্টগ্রাম সেনানিবাসের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং এএফডব্লিউসি পিএসসি মেজর জেনারেল এস.এম. মতিউর রহমান। এতে সভাপতিত্ব করবেন চট্টগ্রাম গণপূর্ত জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোসলেহ উদ্দিন আহাম্মদ।

গণপূর্ত অধিদপ্তর ও প্রকল্প সুত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রামের বায়েজিদ এলাকায় আধুনিক সুযোগ-সুবিধা বিশিষ্ট ‘বায়েজিদ সবুজ উদ্যোন’টি দুই একরের বিশাল আকারের এটি সবুজের মাঝে ৪১ প্রজাতির বৃক্ষরাজিতে পরিকল্পিত বনায়ন। অত্যন্ত যত্ন সহকারে উদ্যানের কাজটি সম্পন্ন করা হয়েছে। বাগানে সবুজ ঘাসে ও গাছে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পানি ছিটানোর জন্য রয়েছে ৬০টি স্প্রিঙ্কলার। পুরো উদ্যানে ১০৮টি কম্পাউন্ড লাইট, ১৬টি গার্ডেন লাইট, ৫৫টি ফাউন্টেন লাইট রয়েছে। সকালে ব্যায়াম, হাঁটাহাঁটি ও শরীরচর্চার জন্য এবং বিকালে স্বপরিবারে বেড়ানোর জন্য উদ্যানটি খোলা রাখা হবে। তাছাড়া এটি ১২ কোটি ৭৪ লাখ টাকা বরাদ্দ থাকলেও এ প্রকল্পের ব্যয় হয়েছে মাত্র ৮ কোটি ২৩ লাখ টাকা।

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার


আপনার মন্তব্য