শিরোনাম
প্রকাশ : ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২১:০০

চট্টগ্রামে বাস থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে বাস থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

চট্টগ্রাম নগরীর শাহ আমানত সেতুর উত্তর প্রান্তে চলন্ত বাস থেকে পড়ে মো. ইসমাইল (২৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকালে বাকলিয়া থানাধীন সেতুর অংশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তবে অভিযোগ ওঠেছে, বাসের ভেতর দুই বোনকে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠার পর নিজেকে রক্ষা করতে ওই যুবক বাস থেকে লাফ দিলে তার মৃত্যু হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ বাসচালকের সহকারী মো. আজিজ সাকিব (২৫) এবং দুই বোন ও বড় বোনের ১৯ বছর বয়সী ছেলেকে আটক করা হয়েছে।   

মৃত মো. ইসমাইল চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার পশ্চিম ডলু গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাট এলাকায় ইসমাইল দিন মজুরের কাজ করতেন।

বাকলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. কারিমুজ্জামান বলেন, ‘ইসমাইল পটিয়া থেকে শহর অভিমুখী বাসের যাত্রী ছিলেন। ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ইসমাইল বাস থেকে তড়িঘড়ি করে নামছিলেন। এসময় চলন্ত বাসের চাকায় পিস্ট হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নেজাম উদ্দিন বলেন, ‘আমরা আজিজসহ আটক চারজনের বক্তব্য নিয়েছি। চারজনের বক্তব্যই প্রায় অভিন্ন।  তারা জানিয়েছেন, দুই বোন ও এক বোনের ছেলে পটিয়া থেকে শহরের বাসে ওঠেন। দুই বোনের সামনের আসনে ছেলে বসেন এবং পেছনের সিটে ছিলেন ইসমাইল। ইসমাইল বারবার পেছন থেকে সামনের সিটের মাঝখানের ফাঁকা জায়গা দিয়ে দুই বোনের গায়ে হাত দিচ্ছিলেন। তারা বিষয়টি সামনের সিটে বসা ছেলেকে জানান। এসময় হট্টগোল শুরু হয়। কয়েকজন গিয়ে ইসমাইলকে ধরে ফেলেন।’ 

তিনি বলেন, ‘চালকের সহকারীর বক্তব্য হলো ‘তিনি দরজার কাছে ছিলেন। বাস যখন সেতুর ওপরে ওঠে, হঠাৎ ইসমাইল দ্রুত এসে দরজা দিয়ে লাফ দেন। এ সময় ওই বাসের পেছনের চাকায় পিষ্ট হয়ে তার মৃত্যু হয়। আটক চারজনের বক্তব্য এবং প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের কথার মধ্যে মিল পাওয়া গেছে। তবে আমাদের তদন্ত করে দেখতে হবে- তাকে ধাক্কা দেওয়া হয়েছে নাকি ইসমাইল লাফ দিয়ে পড়েছে। মৃতের স্বজনদের থানায় আসতে বলা হয়েছে।’  

বিডি প্রতিদিন/রেজা মুজাম্মেল/এনায়েত করিম


আপনার মন্তব্য

close