শিরোনাম
প্রকাশ : ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২২:১৮
প্রিন্ট করুন printer

চাকরি দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ, বন্দরের ভুয়া সচিব গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম:

চাকরি দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ, বন্দরের ভুয়া সচিব গ্রেফতার
Google News

চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব পরিচয় দিয়ে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে সেকান্দর আলী (৫৫) নামে চট্টগ্রাম বন্দরের এক ভুয়া সচিবকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। সেকান্দর আলী নগরের চান্দগাঁও থানা মধ্যম মোহরা সদর আলী মুন্সির বাড়ীর মৃত জাফর আহম্মদের ছেলে।   

কোতোয়ালী থানা সূত্রে জানা যায়, রিয়াজউদ্দিন বাজারস্থ মুরগীহাটা লাইনে একটি চায়ের দোকানিকে সেকান্দর আলী চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব বলে পরিচয় দেয়। পরে ছেলেকে চট্টগ্রাম বন্দরে চাকরি পেতে ১৫ লাখ টাকা দিতে হবে। চাকরি জন্য গত ২০১৮ সালের ২৫ ডিসেম্বর রিয়াজউদ্দিন বাজার মদিনা হোটেলেরে প্রথমে নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা দেন আবুল কাশেম। জামানত হিসেবে তাকে একটি খালি চেক দেন সেকান্দর। এরপর ২০২০ মালের মার্চ মাসে ছেলে চাকরিতে যোগদান করতে পারবে জানিয়ে অবশিষ্ট টাকা দ্রুত দিতে বলেন। তার কথায় বিশ্বাস করে বাকি ১১ লাখ ৫০ হাজার টাকা দেন আবুল কাশেম। কিন্তু মার্চ মাস পেরিয়ে গেলেও ছেলের চাকরি কোনো খবর না পাওয়ায় সেকান্দরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেন। কিন্তু তার মোবাইল নম্বর বন্ধ পান।

কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নেজাম উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব পরিচয় দিয়ে সেকান্দর নামে এক প্রতারক নগর ও জেলার বিভিন্ন চাকরি প্রার্থীদের বন্দরে চাকরি দেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে অগ্রিম টাকা গ্রহণ করত। পরবর্তীতে ইন্টারনেট থেকে ভুয়া নিয়োগপত্র সংগ্রহ করে প্রার্থীদের বাসায় এবং ভুয়া পুলিশ ভেরিফিকেশনের কাগজ ডাকযোগে থানায় পাঠাত। থানা থেকে পুলিশ চাকরি প্রার্থীদের বাড়িতে গেলে সেকান্দার চাকরি প্রার্থীদের নিকট থেকে চাকরি হয়ে গেছে বলে অবশিষ্ট টাকা আদায় করতেন। তিনি বলেন, সেকান্দর পেশাদার প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য। প্রতারণা করে জীবিকা নির্বাহ করা তার কাজ। সুযোগ বুঝে বিভিন্ন চাকরি প্রার্থীদের সরলতার সুযোগে চাকরি দিবে বলে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সঙ্গবদ্ধ ভাবে বন্দর হতে বিভিন্ন মালামাল নিলামের তথ্য সংগ্রহ করতেন। বিভিন্ন লোকজনদের নিকট বন্দরের উক্ত নিলাম পণ্য নিয়ে দেওয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাৎ করেন। পরে আত্মগোপনে চলে যান বলে স্বীকার করেন।

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার 

এই বিভাগের আরও খবর