শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ মে, ২০২১ ১৮:৫৪
প্রিন্ট করুন printer

রংপুরে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

রংপুরে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি
Google News

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিধি উপেক্ষা করে রংপুরে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা। ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে রংপুরের মার্কেটগুলোসহ ৮ উপজেলার হাট-বাজারের কেনাকাটা বেড়েছে। অনেকে ইতিমধ্যে সেরে ফেলেছেন ঈদের কেনাকাটা। এবারে ক্রেতাদের মধ্যে নারী ও শিশুদের সংখ্যাই বেশি। পুরুষ ক্রেতার সংখ্যা কম।

নগরী ঘুরে দেখা গেছে, রংপুর শহরের সুপার মার্কেট, জাহাজ কোম্পানি শপিং কমপ্লেক্স, জেলা পরিষদ কমিউনিটি মার্কেট ও সালেক মার্কেটে গত ঈদের চেয়ে এবার ঈদের কেনাকাটা বেশি। তবে হকার্স মার্কেট, হাড়ীপট্টি মার্কেটে কেনাকাটা বেশি। কাপড়ের দোকানগুলোতে সকাল থেকে গভীর পর্যন্ত ক্রেতাদের ভিড় হয়। ঈদ মার্কেটে নারীদের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে আরপিএমপি।

ব্যবসায়ীরা জানায়, এবারে অনেক দেরি করে কেনাকাটা শুরু হয়েছে। গত বছরের ঈদে করোনার কারণে খুব একটা কেনাকাটা হয়নি। করোনার প্রভাব বেশি থাকায় বাজার দখল করেছে দেশীয় কাপড়। এছাড়া শিশুদের হরেক রকম পোশাকও বিক্রি হচ্ছে বেশি। তবে শিশুদের পোশাকের দাম অপেক্ষাকৃত বেশি। এছাড়াও জিন্স প্যান্ট, গ্যাবার্ডিন প্যান্টের পাশাপাশি কালার শার্ট ফুলশার্ট, চেক শার্ট, এক কালার শার্ট রয়েছে পছন্দের তালিকায়। টপ, স্কার্ট, ফ্রকও রয়েছে ছোটদের পছন্দের তালিকা।

হরেক রকমের বর্ণালী পাঞ্জাবির চাহিদাই এবার সর্বাধিক। এক রঙয়ের বা সাদা পাঞ্জাবির দিকে নজরই দিচ্ছে না ক্রেতারা। জুতা স্যান্ডেলের দোকানগুলোতে ভিড় বাড়ছে।

জুতা ব্যবসায়ী আমজাদ বলেন, আমাদের জুতার দোকানে ভিড় থাকলেও গতবারের মত বিক্রি নেই। এ কারণে জুতা ব্যবসায় লস হতে পারে। হাট বাজারগুলোতে রাস্তার দুই পাশ দিয়ে ফুটপাতের দোকানে মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষ কেনাকাটা করছে। তবে তারাও বলছে গতবারের চেয়ে এবারে দাম বেশি।

আরএমপি পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে , ঈদের কেনাকাটা আরামদায়ক করতে বাড়তি নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর