শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:১২

গাজীপুর ও খুলনা সিটিতে ভোট

আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় মেয়র প্রার্থীরা

খায়রুল ইসলাম, গাজীপুর

আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় মেয়র প্রার্থীরা
Google News

উৎসবমুখর পরিবেশে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেছেন প্রার্থীরা। নগরীর অলিগলি, বাজার ও রাস্তার পাশে টাঙ্গানো হয়েছে নির্বাচনী পোস্টার। মাইকিং, হ্যান্ডবিল নিয়ে প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় রয়েছেন কর্মী-সমর্থকরা।

গতকাল সকাল সাড়ে ৯টায় মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক রণাঙ্গন ‘ছয়দানা মালেকের বাড়ি’ থেকে আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকার। এ সময় তিনি বলেন, তরুণ বয়সেও কোনো লোভ-লালসা ন্যায়নীতি ও সত্যের পথ থেকে বিন্দু পরিমাণ সরাতে পারেননি। তিনি বলেন, কালো টাকা কখনো কল্যাণ বয়ে আনতে পারে না। সুযোগ পেলে তরুণরা কালো টাকা হাতিয়ে নেবে; কিন্তু তারা নীতি নৈতিকতা ও বিবেক  বিসর্জন দেবে না। তিনি প্রার্থীদের মিথ্যাচার থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান। এ সময় আরও বক্তব্য দেন, গাজীপুর জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক কাজী ছাইয়েদুল আলম বাবুল, বিএনপি নেতা ডা. মাজহারুল আলম, শওকত হোসেন সরকার, মোশারফ হোসেন খান, সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, সাবেক ছাত্রনেতা হুমায়ুন কবির রাজু প্রমুখ। পরে হাসান সরকার সাবেক গাছা ইউনিয়নের শরিফ মার্কেট, রাজ্জাক হাজী বাড়ি মসজিদ মাঠ, রশিদ মার্কেট, নতুন বাজার, ইছর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ, কাথোরা মাদ্রাসা মাঠ, কামারজুরি স্কুল মাঠ, চেয়ারম্যান বাড়ি কাঁচা বাজার, জব্দুলের বালুর মাঠ, গাছা বাজার, চান্দরা মাদরাসা মাঠ, কুনিয়া মির্জা হাশেম স্কুল ও আয়েত আলী স্কুল মাঠে পথসভা করেন। এসব পথসভায় বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলীয় জোটের শরিক দলের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।   অপর দিকে সকালে ছয়দানার নিজ বাসভবনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম নেতা-কর্মী ও দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

 এ সময় জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন, সিটি নির্বাচন স্থানীয় সরকার নির্বাচন। আওয়ামী লীগ তথা ১৪ দল এই নির্বাচন স্থানীয়ভাবে করতে চায়। বিএনপির দলবাজিতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে জ্বালাও-পোড়াও মামলার আসামিরা গাজীপুরে ঢুকেছে। স্থানীয় নির্বাচন স্থানীয়রা করবে। স্থানীয় সমস্যা স্থানীয়ভাবে সমাধান করতে হবে। গণতন্ত্র চর্চার স্বার্থে একই মঞ্চে, একই গাড়িতে, একই পথসভায় বিএনপি প্রার্থীকে সঙ্গে নিয়ে তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে ইচ্ছুক বলে জানান জাহাঙ্গীর আলম।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা প্রচারনায় অংশ নেন। তারা প্রথমে টঙ্গীর চেরাগআলী মার্কেট বাসস্ট্যান্ড এলাকায় লিফলেট বিতরণ করেন ও ভোট চান। এ সময় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোল্লা মো. আবু কাওছার, সহ-সভাপতি মতিউর রহমান মতি, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদলি আলিম ব্যাপারী ও এ কে এম আজিম, দফতর সম্পাদক সালেহ মো. টুটুল, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়ক সম্পাদক কাজী মোয়জ্জেম হোসেন, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মানিক ঘোষ, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল সায়েম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে নেতারা গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী সমাবেশে অংশ নেন।

এ ছাড়া বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির রুহুল আমিন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নাসির উদ্দিন, ইসলামী ঐক্যজোটের ফজলুর রহমান, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মো. জালাল উদ্দিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদ আহমদ এলাকায় গণসংযোগ করে ভোট চাইছেন। গাজীপুর সিটি করপোরেশনে ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১১লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬। এতে পুরুষ ৫লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৫ এবং ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১।

এই বিভাগের আরও খবর