শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ জুন, ২০২১ ০১:৪০

২৫ হাজার টাকা বিনিয়োগে কোটি টাকার অফার ভুয়া বিজ্ঞানীর

নিজেকে পরিচয় দিতেন রাজা-বাদশা গ্রুপের চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

জলবায়ু পরিবর্তন প্রজেক্ট, বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট স্থাপন, পরিবেশবান্ধব যানবাহন, ডায়াবেটিস নিরাময় প্রতিষেধক, হৃদরোগ নিরাময় প্রতিষেধক প্রজেক্ট, করোনা নিরাময় কয়েল টেকনিক প্রজেক্টের বিনিয়োগে প্রলোভন দেখিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন সাইফুল ইসলাম ওরফে বিজ্ঞানী সাইফুল ওরফে সায়েন্টিস্ট সাইফুল। এসব প্রজেক্টের কথা বলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকা বিনিয়োগ করলে কোটি টাকার অফার দিতেন প্রতারক সাইফুল। এ ছাড়া জমি প্রদানে প্রজেক্টের মালিকানা শেয়ার অফার দিতেন। অল্পশিতি ধনী ব্যবসায়ী ও সম্পত্তির মালিকদের তিনি টার্গেট করতেন। এসব অভিযোগে মঙ্গলবার রাত থেকে গতকাল সকাল পর্যন্ত র‌্যাব সদর দফতরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-১ এর অভিযানে টাঙ্গাইল ও রাজধানীর উত্তরা থেকে প্রতারক সংগঠন ‘রাজা-বাদশা’ গ্রুপের নতুন কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করে ১৬ প্রতারককে গ্রেফতার করা হয়। গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এসব কথা বলেন। গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন- প্রতারক চক্রের হোতা মো. সাইফুল ইসলাম ওরফে বিজ্ঞানী সাইফুল ওরফে সায়েন্টিস্ট সাইফুল ও তার স্ত্রী মোছা. বকুলি ইয়াসমিন, ইমরান রাজা, মোছা. কাকুলী আক্তার, রোমান বাদশা, আনিসুজ্জামান সিদ্দিকী, নাজমুল হক, তারেক আজিজ, বেল্লাল হোসেন, আবদুল মান্নান, শিমুল মিয়া, নুরনবী, আবুল হাশেম, আলী হোসেন, শওকত আলী ও রোকনুজ্জামান। সংবাদ সম্মেলনে কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, আন্তর্জাতিক মানের বিজ্ঞানীর ভুয়া পরিচয়ে নিজের উদ্ভাবিত জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব-প্রতিকার, পাওয়ার প্ল্যান্ট প্রজেক্ট, করোনা প্রতিরোধ ব্যবস্থা ও অন্যান্য প্রজেক্ট বা¯-বায়নের নামে কোটি কোটি টাকা ও জমি আত্মসাৎ করেছেন সাইফুল ইসলাম। তিনি ‘রাজা-বাদশা গ্রুপ’ নামে একটি ভুয়া সংগঠন তৈরি প্রতারণা শুরু করেন। তিনি নিজেকে রাজা-বাদশা গ্রুপের চেয়ারম্যান বলে পরিচয় দেন। এই চক্রের সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যরাও ওতপ্রোতভাবে জড়িত। স্ত্রী বকুলী ইয়াসমিন, ছেলে মো. ইমরান রাজা ও মো. রোমান বাদশা ও পুত্রবধূ মোছা. কাকুলী আক্তার ভুয়া গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর