বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

আজহারী ঘৃণা প্রচারক তাকে যুক্তরাজ্যে ঢুকতে দেওয়া ঠিক হবে না

-ব্রিটিশ এমপি বব ব্ল্যাকম্যান

আ স ম মাসুম, যুক্তরাজ্য

ব্রিটিশ এমপি বব ব্ল্যাকম্যান বলেছেন, বাংলাদেশের মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী অন্য ধর্মের প্রতি ঘৃণা প্রচারক (হেইট প্রিচার)। তিনি হিন্দু ও ইহুদি ধর্মের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়িয়ে বেড়ান। তাকে যুক্তরাজ্যে ঢুকতে দেওয়া ঠিক হবে না। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বাংলাদেশের মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী সম্পর্কে আলোচনার আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটিশ এমপি বব ব্ল্যাকম্যান। বব ব্ল্যাকম্যান মঙ্গলবার ব্রিটিশ সংসদে বক্তৃতা করছিলেন। তিনি বলেন, ইসলামী জলসায় বক্তৃতা করার জন্য মাওলানা আজহারীকে লন্ডনে রয়েল রিজেন্সি হলে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তিনি যুক্তরাজ্যে আসার পথে কাতারে এসে আটকে আছেন। আজহারী ব্রিটেনে ঢুকলে তার বক্তব্যের মাধ্যমে এখানকার শান্তিপ্রিয় মুসলিম জনগোষ্ঠী ভুল তথ্য পেয়ে বিভ্রান্ত হতে পারে। এমনকি আজহারী অনলাইনেও ঘৃণা ছড়াতে পারেন।

এমপি ব্ল্যাকম্যান সংসদে আজহারীর ভিসা বাতিল বহালের বিষয়টি আলোচনার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রীতি প্যাটেলের প্রতি আহ্বান জানান। ব্ল্যাকম্যানের বক্তব্যের পর সংসদ নেতা স্যার জ্যাকব রিস বলেন, বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ, আমাদের দেশে ঘৃণা ছড়ানো মারাত্মক একটি অপরাধ। ঘৃণা ছড়ায় এমন কাউকে আমরা এ দেশে ঢুকতে দিতে পারি না। ঘৃণা ছড়ানোর বিরুদ্ধে আমাদের একটি অবস্থান রয়েছে তারই ভিত্তিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বিষয়টি দেওয়া হলো।

তবে এ বিষয়ে মিজানুর রহমান আজহারী বলেন, মঙ্গলবার হাউস অব কমন্সে গ্রেটার লন্ডনের নির্বাচনী এলাকা ‘হারো ইস্ট’-এর কনজারভেটিভ পার্টির এমপি বব ব্ল্যাকম্যান আমাকে ‘হেইট প্রিচার’ আখ্যা দিতে গিয়ে বিভ্রান্তিকর কিছু তথ্য দিয়েছেন।

আজহারী তার লেখায় ‘ব্ল্যাকম্যানের মিথ্যাচারের’ তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ সরকার তাকে নিষিদ্ধ করেনি। তিনি দেশ থেকে পালানওনি। আজহারী দাবি করেন, সরকার শত শত পুলিশ দিয়ে তার অনুষ্ঠানগুলো সফল করেছে। সরকারের এমপি-মন্ত্রীরা তার বিভিন্ন প্রোগ্রামে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকেছেন। প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সবাই তার অনুষ্ঠান বাস্তবায়নে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছেন।

আজহারী বলেন, ২০২০ সালের অবশিষ্ট প্রোগ্রামগুলো স্থগিত করে তিনি যে মালয়েশিয়ায় চলে এলেন তার কারণ তাকে নিয়ে মাত্রাতিরিক্ত মাতামাতি, হইচই, প্রোগ্রামস্থলে ধারণক্ষমতার বাইরে উপস্থিতি, বেসামাল জনতা এবং আল্লাহর কিছু বান্দার প্রতিহিংসাপরায়ণতা। এসব যখন ক্রমান্বয়ে বেড়েই চলছিল তখন কিছু শুভাকাক্সক্ষীর পরামর্শে তিনি সব প্রোগ্রাম স্থগিত করে পিএইচডি গবেষণার কাজে তার বিশ্ববিদ্যালয়ে মানে মালয়েশিয়ায় সাময়িকভাবে ফিরে এসেছেন। আজহারী বলেন, বাংলাদেশ আমার দেশ। আমি এ দেশের সন্তান। করোনার কারণে গত বছর দেশে যেতে পারিনি। ইতিমধ্যে আমি ফ্যাকাল্টিতে পিএইচডি থিসিস সাবমিট করেছি। পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন শেষে আমি দেশে ফিরব ইনশা আল্লাহ।

এদিকে আজহারীর বাতিল করা ভিসা বহালের জন্য লন্ডন হাই কোর্টে আপিল করা হয়েছে ২৮ অক্টোবর। ২ নভেম্বর এটি নিয়ে শুনানি করার কথা বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যায়। তবে মঙ্গলবার ব্রিটিশ হাই কোর্ট এবং আপার ট্রাইব্যুনালের কোনো কোর্টেই শুনানির তালিকায় আজহারীর মামলার উল্লেখ পাওয়া যায়নি। এমনকি ৩ নভেম্বর বুধবারের তালিকায়ও এ মামলাটি নেই।

কিন্তু এরই মধ্যে ব্রিটিশ এমপির সংসদে বক্তব্যে মাওলানা আজহারীর বিরুদ্ধে যারা অবস্থান নিয়েছেন তাদের অনেকেই বলছেন, ভিসা বহালের আর সম্ভাবনা নেই।

এদিকে ব্রিটেনে যে অনুষ্ঠানে আজহারীর উপস্থিত থাকার কথা সেই অনুষ্ঠানের আয়োজক আইওন টিভি অনুষ্ঠান আপাতত স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে।

আজহারী আসার খবরের পর থেকেই কমিউনিটিতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। অনেকেই আয়োজক আইওন টিভির ব্যানারে আজহারীর আগমনকে স্বাগত জানিয়েছেন আবার একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি থেকে শুরু করে প্রগতিশীল ও মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের অনেক মানুষ আজহারীর সফরের বিরোধিতা করে চলেছেন।

এদিকে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি যুক্তরাজ্য শাখা এক সংবাদ সম্মেলনে বিতর্কিত মিজানুর রহমান আজহারীসহ সব সাম্প্রদায়িক ধর্মাচারীকে ব্রিটেনে প্রবেশ না করতে দেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় থাকতে ব্রিটিশ হোম অফিসের প্রতি আবেদন জানিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ভবিষ্যতে যাতে কোনো উগ্রবাদী ব্রিটেনে প্রবেশ করে মালটিকালচারাল সোসাইটিতে শান্তি বিঘিœত করতে না পারে এ ব্যাপারে কমিউনিটির সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানানো হয়।

সর্বশেষ খবর