শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:০২

প্রতিশ্রুতির বন্যায় ভাসছে ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

প্রতিশ্রুতির বন্যায় ভাসছে ঠাকুরগাঁও

চতুর্থ ধাপের পৌরনির্বাচনকে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁও পৌর শহর ভাসছে জমজমাট প্রচারণায়। পাল্টা দিয়ে চলছে প্রতিশ্রুতির বন্যা। মাত্র সাত দিন পরেই ঠাকুরগাঁও পৌরসভা নির্বাচন। এ নিয়ে শহরজুড়ে চলছে জল্পনা আর কল্পনা। কে হবেন এই পৌরপিতা। প্রথম শ্রেণির এই পৌরসভা নির্বাচনে তিনজন প্রার্থী মেয়র পদে লড়ছেন। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আঞ্জুমান আরা বন্যা, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শরিফুল ইসলাম শরিফ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রার্থী আনোয়ার হোসেন। অন্যদিকে ১২টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৬ জন, সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে নয়জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৫৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ঠাকুরগাঁও পৌরসভা। প্রথম  শ্রেণির পৌরসভায় উন্নীত হয় ১৯৯৭ সালে। মোট ভোটার সংখ্যা ৬০ হাজার ৭২৭ জন। এর মধ্যে নারী  ভোটার ৩১ হাজার ১৫ জন এবং পুরুষ ভোটার ২৯ হাজার ৭১২ জন। স্থানীয়রা মনে করছেন পৌরসভার উন্নয়নে কাজ করবেন- এমন প্রার্থীকে এবার বেছে নিতে হবে বলে জানান তারা। দিন-রাত প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। পাড়া-মহল্লায় ঝুলছে পোস্টার। মাইকে মাইকে নির্বাচনী প্রচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে শহরের প্রতিটি অলি গলি। হিমেল হাওয়া আর কনকনে ঠান্ডায় ছুটে চলেছেন মেয়রসহ কাউন্সিলর প্রার্থীরা। আর দিয়ে যাচ্ছেন নানান প্রতিশ্রুতি। তবে বড় দুই দলের মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছেন অনেকে। অনেকে আবার মন্তব্য করেছেন প্রথম শ্রেণির এই পৌরসভায় প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়াটা কোনো দলেই সঠিক হয়নি বলে জানান তারা। পৌর শহরের সরকারপাড়ার বাসিন্দা সামসুজ্জামানসহ আরও অনেকে বলেন, প্রথম শ্রেণির পৌর শহর হলেও উন্নয়নের কোনো ছোঁয়া লাগেনি। রাস্তাঘাট জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে। খানাখন্দে ভরে গেছে। অধিকাংশ রাস্তায় বৈদ্যুতিক বাতি না থাকায় সন্ধ্যার পরই সৃষ্টি হয় ভুতুড়ে অবস্থা। সংস্কার হয়নি পৌরভবনসহ পৌরসভা-নিয়ন্ত্রিত হাটবাজার ও বাস টার্মিনালগুলো। একই কথা বলেন আশ্রমপাড়ার বাসিন্দা শমসের আলমসহ অনেকে। অটোরিকশাচালক শামসুল আলম, রবিউল ইসলাম বলেন, এমন প্রার্থীকে ভোট দেওয়া উচিত যার দ্বারা পৌরসভার রাস্তাঘাটের উন্নয়ন হবে। বিএনপি প্রার্থী শরিফুল ইসলাম শরিফ বলেন, উন্নয়নের স্বার্থে জনগণ আমাকে ভোট দেবেন।  আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আঞ্জুমান আরা বন্যা বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন হয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পৌরবাসীর প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।