শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ মার্চ, ২০২১ ২২:০৭
প্রিন্ট করুন printer

চুরি হওয়া শিশুটিকে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিল পুলিশ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:

চুরি হওয়া শিশুটিকে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিল পুলিশ
মায়ের কোলে শিশু

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার রায়দৌলতপুর ইউনিয়নের বারাকান্দির একটি বাড়ি থেকে কাওসার নামের ২৩ দিন বয়সী শিশু চুরির চার ঘণ্টা পর শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জ সদর থানা পুলিশ জেলা শহরের আভিসিনা হসপিটালের সামনে থেকে শিশুটিকে উদ্ধারের পর মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিয়েছে। 

শিশু চুরির মূলহোতা রানীকে আটক করা হয়েছে। সে রায়দৌলতপুর ইউপির মধ্যপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী। শিশুটির নাম আলিফ। তার বাবার নাম শহিদুল ইসলাম ও মায়ের নাম ফরিদা খাতুন। ১৪ বছর যাবত রানীর বাচ্চা না হওয়ায় সে শিশুটিকে চুরি করেছে বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। 

সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম সন্ধ্যা সাতটায় সদর থানা ক্যাম্পাসে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানান, শনিবার দুপরের দিকে শিশু আলিফের মা ফরিদা খাতুন শিশু সন্তানকে নিজ ঘরে রেখে বাড়ির পেছনে গাছের পাতা কুড়ানোর জন্য যান। বেশ কিছুক্ষণ পর ঘরে ঢুকে তিনি শিশু সন্তানকে দেখতে না পেয়ে আশপাশে খোঁজ নিতে থাকেন। সন্তানকে কোথাও না পেয়ে মা ফরিদা কান্নাকাটি শুরু করেন। কয়েকজন প্রতিবেশী বলেছে বোরকা পড়া একটি নারীকে শিশু কোলে নিয়ে যেতে দেখেছে। আরেক নারীকে বাড়ির পাশে ঘুরঘুর করতে দেখেছে। পরে তিনি কামারখন্দ থানা পুলিশকে অবহিত করেন। তাৎক্ষনিক পুলিশ তদন্ত শুরু করে এবং জেলার সকল থানায় ম্যাসেজ দিয়ে তল্লাশী চৌকি স্থাপন করেন। প্রাথমিকভাবে শিশু চুরির মূলহোতা রানীকে বোরকা সরবরাহকারী আলেয়া নামে এক নারীকে আটক করে। তার দেয়া তথ্য মতে পুলিশ রানীর বাড়িতে যায়। অন্যদিকে, রানী শিশু বাচ্চাকে নিয়ে শহরের আভিসিনা হাসপাতালের সামনে এসে এক দোকানদারের কাছ থেকে মোবাইল নিয়ে তার বাবাকে ফোন দেন এবং হাসপাতালে আসতে বলেন। পুলিশ রানীর বাবাকে আটক করে দোকানদারের নম্বরের ফোন দিয়ে লোকেশন জানে। তাৎক্ষণিক কামারখন্দ থানার ওসি রাকিবুল হুদা সদর থানার পুলিশকে অবহিত করে। সদর থানা পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে আভিসিনা হাসপাতাল ঘেরাও করে। কিছুক্ষণ পর কামারখন্দ থানা পুলিশ রানীর বাবাকে নিয়ে হাসপাতালে এলাকায় আসেন। এ সময় দেখা যায় রানী বাচ্চাটিকে কোলে নিয়ে হাসপাতালের আশপাশে ঘোরাফেরা করছে। রানীর বাবা মেয়েকে শনাক্ত করলে পুলিশ তাকে আটক করে এবং বাচ্চাটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দেন। সন্ধ্যার দিকে পুলিশ শিশু বাচ্চাকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেন। 

পুলিশ সুপার জানান, চুরির মূলহোতা রানী কামারখন্দ চৌবাড়ী ডিগ্রী কলেজ থেকে বিএ পাশ করেছে। তার স্বামী শহিদুল ইসলাম কামারখন্দ কৃষি কারিগরি কলেজের একজন কর্মচারী। ১৪ বছরের দাম্পত্য জীবনে কোনো সন্তান না হওয়ায়  সে বাচ্চাটি চুরি করেছিল। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২৩ ফেব্রুয়ারী  সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতাল থেকে ২৩ দিনের শিশু মাহিম ও ২৭ ফেব্রুয়ারী সলঙ্গা থানার সাকাওয়াত এইচ মেমোরিয়ার হাসপাতাল থেকে জন্মের ৬ ঘণ্টা পর  শিশু সামিউল চুরি হয়। পরে পুলিশ সলঙ্গা থানার আলোকদিয়া গ্রাম থেকে শিশু ফাহিমকে মৃত ও শিশু সামিউলকে জীবিত উদ্ধার করে এবং ৭জনকে আটক করেছিল। 


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর